kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৮ জুন ২০২২ । ১৪ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

আপনার শিশু

গড়ে তুলুন শিশুর আত্মবিশ্বাস

১৭ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



গড়ে তুলুন শিশুর আত্মবিশ্বাস

ছবি : মোহাম্মদ আসাদ

শিশুর জীবনে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ আত্মবিশ্বাসের শিক্ষা। জীবনের প্রথমেই সন্তানের আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাইকোলজিস্ট কার্ল পিকহার্ট এবং টেরি অ্যাপটার দেওয়া কিছু পরামর্শ—

১। হারুক আর জিতুক, প্রশংসা করুন : সন্তানের প্রচেষ্টার প্রশংসা করাটাই সবচেয়ে বড়। হারার কারণে তাকে লজ্জা দেবেন না।

বিজ্ঞাপন

এতে সে বারবার চেষ্টার উৎসাহ পাবে।

২। অনুশীলন করতে বলুন : সন্তানের উৎসাহ যেখানেই হোক, খেলাধুলা বা পড়াশোনা, অনুশীলনের উৎসাহ দিন। এতে সে ওই কাজে ভালো হয়ে উঠবে, আত্মবিশ্বাস বাড়বে। তাকে নিরুৎসাহিত করলে মনে করবে আপনি তার ইচ্ছার মূল্য দিচ্ছেন না।

৩। তার সমস্যা তাকেই সমাধান করতে দিন : তার যেকোনো সমস্যা বা বাড়ির কাজ তাকেই সমাধান করতে দিন। সে নিজেই নিজের কাজ পারে, এমন আত্মবিশ্বাস গড়ে উঠবে।

৪। কৌতূহলী হতে দিন : সন্তান প্রশ্ন করতে থাকলে হয়রান না হয়ে প্রশ্ন করতে দিন। নিরুৎসাহিত করবেন না বা বকা দিয়ে থামিয়ে দেবেন না। এতে সে কৌতূহলী হয়ে উঠবে। তার আত্মবিশ্বাস, অধ্যবসায় এবং প্রচেষ্টা বাড়বে।

৫। তাকে নতুন নতুন চ্যালেঞ্জ দিন : তাকে বিভিন্ন কাজ যেমন—সাইকেল চালাতে দিন। আশপাশে এক পাক ঘুরে আসতে দিন। নিজে এই কাজটি পারলে তার আত্মবিশ্বাস বাড়বে।

৬। তার কাজের সমালোচনা করবেন না : সন্তান খুব শখ করে আপনাকে খুশি করতে কোনো কাজ করলে সরাসরি তার সমালোচনা করবেন না। এতে সে নিজে থেকে কিছু করার সাহস হারাবে; বরং উৎসাহমূলক মন্তব্য করুন। সংশোধনের দরকার হলে পরে বুঝিয়ে বলুন।

৭। ব্যর্থতাই সফলতার চাবিকাঠি : ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা গ্রহণ শিশুর আত্মবিশ্বাস বাড়ায়। সন্তান ব্যর্থ হলেও তাকে উৎসাহ দিতে হবে এবং এর থেকে শিক্ষা গ্রহণের পথ দেখাতে হবে।

ব্যর্থতা মেনে নেওয়ার জন্য সন্তানকে সাহায্য করুন।

৮। অপরিচিত হলেও বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে তাদের নিয়ে যেতে হবে। তাহলে তারা মানুষের সঙ্গে মিশতে শিখবে।

৯। শিশুদের বাদ্যযন্ত্র শেখাতে পারেন। এটা তাদের মনকে ভারমুক্ত রাখতে সাহায্য করে।

১০। শিশুদের রান্নাঘরের কাজেও যুক্ত করতে পারেন। তাদের রান্না বা কিছু কাটাকাটি করতে হবে তা নয়। বরং এটাসেটা এগিয়ে দিতে বললেও সে উৎসাহ পাবে।

১১। অনেক সময়ই শিশুরা মনে করে তারা যা জানে বড়রা তা জানে না। তাদের তার জ্ঞান ভাগাভাগি করার সুযোগ দিন।

১২। শিশুকে আত্মবিশ্বাসী দেখতে চাইলে নিজেও আত্মবিশ্বাসী হোন। আপনাকে দেখলে শিশুর মধ্যেও তা তৈরি হবে।

১৩। শিশুর সঙ্গে সহজভাবে মেশার চেষ্টা করুন। নিজের সমস্যার কথা বলতে তাকে সাহায্য করুন।

১৪। তার চোখে চোখ রেখে কথা বলুন। তার কথা মনোযোগ দিয়ে শুনুন। তাহলে সে সহজে আপনাকে বিশ্বাস করতে পারবে।

১৫। আপনার কাছে তার গুরুত্ব আছে, এই বোধ তাকে দিন।

সূত্র : প্যারেন্টিং ডট কম



সাতদিনের সেরা