kalerkantho

সোমবার । ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ২৫  মে ২০২০। ১ শাওয়াল ১৪৪১

ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি পরিচালিত বাছাই পরীক্ষা

রূপালী ব্যাংকে সিনিয়র অফিসার পদে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি

বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটি সচিবালয়ের অধীনে ১৫ নভেম্বর হয়ে গেল রূপালী ব্যাংকের ‘সিনিয়র অফিসার’ পদের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। এ ধাপ উতরালেই বসতে হবে লিখিত পরীক্ষায়। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ করে এ পরীক্ষার প্রস্তুতির খুঁটিনাটি নিয়ে লিখেছেন এম এম মুজাহিদ উদ্দীন

১৬ নভেম্বর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রূপালী ব্যাংকে সিনিয়র অফিসার পদে লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি

গণিতে ৭০ নম্বর। এ বিষয়ে ভালো করতে পারলে লিখিত পরীক্ষায় পাস করার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি থাকে। অনেক প্রার্থী গণিতে খারাপ করেন। আগের বছরের গণিতের প্রশ্ন দেখে প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বুঝে বুঝে সমাধান করবেন

 

রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের বাছাই পরীক্ষা হয় তিন ধাপে। প্রথম ধাপে ১০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি। প্রশ্ন হয় এমসিকিউ পদ্ধতি। দ্বিতীয় ধাপে লিখিত পরীক্ষা—২০০ নম্বর। আর সবশেষে ২৫ নম্বরের ভাইভা। প্রিলিমিনারিতে বাংলা, ইংরেজি, গণিত, সাধারণ জ্ঞান, কম্পিউটার জ্ঞান ও তথ্য-প্রযুক্তির ওপর প্রশ্ন হলেও লিখিত পরীক্ষায় কেবল বাংলা, ইংরেজি ও গণিতের ওপর প্রশ্ন থাকে।

 

লিখিত পরীক্ষার প্রস্তুতি

রূপালী ব্যাংকের অফিসার শাহরিয়ার আলম রানা বলেন, ‘লিখিত পরীক্ষায় বাংলা বিষয়ে সাধারণত সমসাময়িক কোনো ঘটনা বা বিষয়বস্তুর ওপর একটি রচনা লিখতে বলা হয়, এর জন্য ২০ নম্বর। সংবাদপত্রে প্রকাশের জন্য প্রতিবেদন কিংবা ব্যাংকসংশ্লিষ্ট কাজের দরখাস্ত লিখতে হতে পারে। এর নম্বরও ২০। ইংরেজির ক্ষেত্রে ফোকাস রাইটিং বা রচনা থাকবে, নম্বর ৩০। ফোকাস রাইটিংয়ের জন্য বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সমসাময়িক বিষয়গুলো সম্পর্কে ইংরেজিতে ঠিকঠাক লেখায় দক্ষতা থাকতে হবে। ইংরেজিতে একটি প্যাসেজ দেওয়া থাকে, এর আলোকে ৫টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়। এর জন্য ২০ নম্বর বরাদ্দ। বাংলা থেকে ইংরেজি এবং ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদের জন্য ২০+২০ করে মোট ৪০। অনুবাদের প্রস্তুতির জন্য এম এম মহিউদ্দীনের লেখা ‘Translation for competitive exams’ বই থেকে অনুবাদ চর্চা করতে হবে। আগের বছরগুলোতে আসা অনুবাদ গুরুত্বের সঙ্গে দেখবেন। পাশাপাশি অনান্য অনুবাদও অনুশীলন করতে হবে। আর গণিতে ৭০ নম্বর। এ বিষয়ে ভালো করতে পারলে লিখিত পরীক্ষায় পাস করার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি থাকে। অনেক প্রার্থী গণিতে খারাপ করেন। আগের বছরের গণিতের প্রশ্ন দেখে প্রস্তুতি নেওয়ার সময় বুঝে বুঝে সমাধান করবেন। আগারওয়ালের ‘ম্যাথমেটিকস’ বই থেকে অনুশীলন করতে পারলে প্রস্তুতি পাকাপোক্ত হবে। বইটা বেশ বড় বলে শুরুতে ঘাবড়ে যাবেন না। যেসব টপিকস থেকে পরীক্ষায় প্রশ্ন আসে সেসব টপিকসের গণিতে বাড়তি গুরুত্ব দেবেন। লিখিত পরীক্ষায় মাঝেমধ্যে অন্যান্য বিষয় থেকে নম্বর কমিয়ে গণিতে ১০-২০ নম্বর বাড়ানো হয়, অর্থাৎ ৮০-৯০ নম্বরের প্রশ্ন করা হয়।’

 

লিখিত পরীক্ষায় টিকলে

লিখিত পরীক্ষায় টেকার পর চাকরি পেতে ভাইভাও টপকাতে হবে। চাকরি পাওয়ার পর বেতন ধরা হবে নবম গ্রেডে। রূপালী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের সুযোগ-সুবিধা কেমন? জানতে চাইলে রূপালী ব্যাংকের অফিসার শাহরিয়ার আলম রানা বলেন, ‘সিনিয়র অফিসার হিসেবে যাঁরা চাকরিতে যোগদান করবেন তাঁরা নবম গ্রেডের ২২ হাজার টাকার বেসিক স্কেলে বেতন পাবেন। ঢাকার কোনো অফিসে পোস্টিং হলে মাসে বেতন ধরা হবে সর্বসাকল্যে প্রায় ৪০ হাজার টাকা। আর জেলা শহরগুলোতে হলে প্রায় ৩৮ হাজার টাকা। চাকরির বয়স পাঁচ বছর হলে একত্রে ৯৫ লাখ টাকা গৃহঋণ নিতে পারবেন। অন্যান্য বাণিজ্যিক ব্যাংকের তুলনায় রূপালী ব্যাংকে কাজের পরিবেশ আমার কাছে ভালো মনে হয়। পদোন্নতি পেতে এখানে জটিলতা নেই বললেই চলে। একজন সিনিয়র অফিসার পদোন্নতি পেয়ে ভবিষ্যতে ব্যাংকের এমডি বা ম্যানেজিং ডিরেক্টর পর্যন্ত হতে পারেন।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা