kalerkantho

সোমবার । ২১ অক্টোবর ২০১৯। ৫ কাতির্ক ১৪২৬। ২১ সফর ১৪৪১       

খুলনায় আক্রান্তদের সবাই ঢাকাফেরত

সচেতনতায় প্রচারাভিযান শুরু

খুলনা অফিস   

২ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সারা দেশের মতো খুলনায়ও ডেঙ্গু নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে ভীতি সঞ্চার করেছে। সামান্য জ্বর-সর্দিতে অনেক মানুষ এখন চিকিৎসকের দারস্থ হচ্ছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, খুলনায় ডেঙ্গু আক্রান্ত ১২১ জন রোগী শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৮২ জন। তবে তাদের কেউই স্থানীয়ভাবে আক্রান্ত হয়নি, ঢাকা থেকে আক্রান্ত হয়ে এসেছে। জেলা সিভিল সার্জন ডা. এ এস এম আব্দুর রাজ্জাক এ তথ্য জানিয়েছেন।

অন্যদিকে ডেঙ্গুবিরোধী জনসচেতনতায় শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে আওয়ামী লীগ, সিটি করপোরেশন এবং জেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন সংগঠন। গত বুধবার থেকে পৃথক পৃথক কর্মসূচি শুরু হয়েছে। কর্মসূচিতে নিজ বাড়ির আঙিনা পরিষ্কার ও সর্বস্তরে সতকর্তা গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়।

ডেঙ্গু জনসচেতনতামূলক পরিষ্কার ও পরিছন্নতা অভিযান কর্মসূচির অংশ হিসেবে গত বুধবার সকাল ১১টায় দলীয় কার্যালয় থেকে শোভাযাত্রা ও সাধারণ মানুষের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করেছে খুলনা মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগ। এর আগে মহানগর সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য মিজানুর রহমান মিজানের সভাপতিত্বে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। নগর উপপ্রচার সম্পাদক মফিদুল ইসলাম টুটুলের সঞ্চালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুজ্জামান জামাল, মহানগর নেতা শ্যামল সিংহ রায়, মকবুল হোসেন মিন্টু, হাফেজ মো. শামিম, মাহাবুবুর রহমান বাবলু মোল্লা প্রমুখ।

অন্যদিকে বুধবার সকাল ১০টায় আযম খান কমার্স কলেজে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে লিফলেট বিতরণ করেছে মহানগর ছাত্রলীগ।

এদিকে ডেঙ্গু ও গুজব প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে খুলনা স্কাউটস ও রোভার স্কাউটসের সহযোগিতায় খুলনা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে গত বুধবার সকালে খুলনা সার্কিট হাউস সম্মেলনকক্ষে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। খুলনার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেনের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি ছিলেন খুলনা সিটি করপোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক, বিশেষ অতিথি ছিলেন খুলনা বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, কেএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার সরদার রকিবুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা. এ এস এম আব্দুর রাজ্জাক এবং জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ পারভেজ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা