kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ চৈত্র ১৪২৬। ৭ এপ্রিল ২০২০। ১২ শাবান ১৪৪১

আনন্দবাজারের প্রতিবেদন

ওরশে গিয়ে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বাংলাদেশিরা যা বললেন...

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৪:৪৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ওরশে গিয়ে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে বাংলাদেশিরা যা বললেন...

কোনো কাগজ নয়, মাটির অধিকারেই নির্ধারিত হোক নাগরিকত্ব। যিনি যে মাটিতে থাকেন, সেই মাটিই হোক তাঁর অধিকার। এমনই মত আব্দুল আজিজ কাদেরি, মহম্মদ জাকির হোসেনের মতো একদল বাংলাদেশি নাগরিকের। ওরশ উৎসবে যোগ দিতে মেদিনীপুর যাওয়া বাংলাদেশিরাও স্পষ্টই জানাচ্ছেন, তাঁদের অবস্থান ভারতের সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের (সিএএ) বিরুদ্ধে। সেই সূত্রে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আন্দোলনকেও সমর্থন করেন তাঁরা। আনন্দবাজারের এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়। 

ওরশ উৎসব উপলক্ষে সোমবার সকালে মেদিনীপুর পৌঁছেছে বাংলাদেশের বিশেষ ট্রেন। এবার সেখানে গিয়েছেন ২৩০০ জন। মেদিনীপুর শহরের মির্জাবাজারে জোড়া মসজিদ রয়েছে। সেখানেই এক সুফি সাধকের মৃত্যুবার্ষিকী স্মরণে ওরশ উৎসবের আয়োজন হয়। বসে মেলা। মেলায় জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সকলেই ভিড় করেন। আর সেই ১৯০২ সাল থেকে বাংলাদেশ থেকে মেদিনীপুরে আসছে ‘ওরশ স্পেশ্যাল’ ট্রেন। এবার বিশেষ ট্রেনের ‘লিডার’ আব্দুল আজিজ কাদেরি জানালেন, এই ট্রেন পরিচালনার সঙ্গে তিনি প্রায় ৩৫ বছর ধরে যুক্ত আছেন। নাগরিকত্ব আইন ‘ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়’ বলে মন্তব্য করেও আজিজ বললেন, আমরা মনে করি, যে যেখানে বসবাস করেন সেই মাটিতে তাঁর একটা অধিকার আছে। সেই অধিকার থেকেই তাঁর নাগরিকত্ব পাওয়ারও অধিকার আছে। যিনি যে মাটিতে থাকেন, সেই মাটিই হোক তাঁর অধিকার।

দেশভাগ, সীমান্তের কাঁটাতারের বাস্তবতা ছাপিয়েও যে দুই বাংলার আবেগের সম্পর্ক রয়েছে, তাও মনে করিয়ে দিয়েছেন আজিজ। তাঁর কথায়, আমরা এখানে যখন আসি তখন মনেই হয় না অন্য দেশে এসেছি। এত দিনে মেদিনীপুরবাসীর সঙ্গে আত্মিক সম্পর্ক গড়ে উঠেছে। এই সম্পর্ক ভালোবাসার, সম্প্রীতির। 

বাংলাদেশের ফাতেমা বিবি বলছিলেন, ওরশ উৎসব দুই দেশকে ভালোবাসার বন্ধনে বেঁধে রেখেছে। আর সেই সম্পর্কের সূত্রেই মমতার নাগরিকত্ব আইনবিরোধী আন্দোলনের প্রতি সমর্থন রয়েছে আজিজ, ফাতেমাদের। 

মহম্মদ জাকির হোসেন নামে এক তীর্থযাত্রীর কথায়, আমরা এক ভাষায় কথা বলি। মুক্তিযুদ্ধের সময়ে ভারত আমাদের সহযোগিতা করেছে। ভারতের প্রতি আমাদের মমত্ব আছে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সিএএ নিয়ে যে কথা বলছেন, আমাদেরও ওই একই কথা।

মেদিনীপুর টাউন মুসলিম কমিটির সম্পাদক আব্দুল ওয়াহেদও বলছিলেন, আমাদের এক হৃদয়, এক প্রাণ। আমরাও সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের তীব্র বিরোধিতা করছি। 

মেদিনীপুরের বিধায়ক মৃগেন্দ্রনাথ মাইতিরও মত, সবাই মিলেমিশে থাকাটাই তো আমাদের ঐতিহ্য।

সূত্র: আনন্দবাজার

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা