kalerkantho

শনিবার । ২৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ । ৬ জুন ২০২০। ১৩ শাওয়াল ১৪৪১

এগিয়ে এলেন দুই আওয়ামী লীগ নেতা

রাজধানীতে ফ্রি সেবা দেবে অ্যাম্বুলেন্স, চালক-সহকারীদের পিপিই বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩১ মার্চ, ২০২০ ১৭:০৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



 রাজধানীতে ফ্রি সেবা দেবে অ্যাম্বুলেন্স, চালক-সহকারীদের পিপিই বিতরণ

চিকিৎসক-নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীদের মতো করোনা ভাইরাস আক্রান্তের ঝুঁকিতে আছেন রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের অ্যাম্বুলেন্স গাড়ির চালক ও সহকারীরাও। কেউ অসুস্থ হলেই প্রথমে ডাক পড়ে তাদের। কিন্তু মারাত্মক ছোঁয়াচে রোগটি নিয়ে তাদের মাঝেও আতঙ্ক বিরাজ করছে। সম্প্রতি অ্যাম্বুলেন্সের জন্য বাইরে থেকে ডাক পড়লেই কোনো চালক এবং তার সহকারী করোনা রোগীর ভয়ে যেতে চাচ্ছেন না। কেউ কেউ করোনার ভয়ে ছুটি নিয়েও চলে গেছেন। ঠিক এমনই সময়ে নিজ উদ্যোগে পাশে দাঁড়িয়েছেন আওয়ামী লীগের তরুণ নেতা ও ব্যবসায়ী দেলোয়ার হোসেন ফারুক। 

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের সামনে অ্যাম্বুলেন্স চালকদের পারসোনাল প্রটেক্টিভ ইকুইপমেন্ট (পিপিই), মাস্ক, গ্লাভস ও স্যানিটাইজার বিনামূল্যে বিতরণ করেন। অ্যাম্বুলেন্স চালকরা এসব প্রয়োজনীয় উপকরণ পেয়ে খুশি হন এবং জাতির এই কঠিন সময়ে অসহায় রোগীদের পাশে থাকারও অঙ্গীকার করেন। 

অ্যাম্বুলেন্স চালক রফিকুল ইসলাম বলেন, শতাধিক অ্যাম্বুলেন্স রয়েছে। প্রতিদিনই রোগীদের আনা-নেওয়ার জন্য ফোন আসে বিভিন্ন স্থান থেকে। কিন্তু সম্প্রতি করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক ছিল। অসুস্থ রোগীর কথা শুনলেই করোনার কথা মাথায় আসে। কিন্তু এখন আর ভয় নেই। করোনা থেকে মুক্ত থাকতে পোশাক পড়েই রোগী বহন করতে পারবো।

আওয়ামী লীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন ফারুক বলেন, দেখুন, ডাক্তার-নার্সসহ স্বাস্থ্যকর্মীরা ঝুঁকিতে থাকলেও সরকার এবং বিভিন্ন সংস্থা তাদেও পিপিইসহ বিভিন্ন উপকরণ দিচ্ছে। কিন্তু অ্যাম্বুলেন্স চালক ও সহকারীরাও এখন ঝুঁকিতে আছেন। এদের কথা কেউ বিবেচনা করেনি। কারণ তারাই প্রথম বিভিন্ন স্থান থেকে রোগী বহন করে হাসপাতালে নিয়ে আসে এবং যায়। এই ঝুঁকির বিষয়টি মাথায় রেখেই আমি তাদের পাশে দাঁড়িয়েছি। 

অ্যাম্বুলেন্স ও লাশবাহী কয়েকটি গাড়ির মালিক ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জ্যোতি প্রকাশ বড়ুয়া দেশের এমন কঠিন সময়ে এগিয়ে এসেছেন। রাজধানী ঢাকার কোনো রোগী বহনকালে বিনাপয়সায় তারা রোগী বহন করবেন বলে সিদ্ধন্ত নিয়েছেন। এছাড়া ৪০ কিলোমিটারের মধ্যে কোনো সামগ্রী বহন করতে চাইলেও সেটা বিনামূল্যে করে দেওয়া হচ্ছে। 

জ্যোতি প্রকাশ বড়ুয়া বলেন, করোনার ভয়ে অনেকেই চালকই আতঙ্কে ছিলেন। কিন্তু দেলোয়ার হোসেন ফারুক ভাই পিপিইসহ প্রয়োজনীয় উপকরণ বিতরণ করায় অ্যাম্বুলেন্স চালক ও সহকারীরা সুরক্ষা নিয়েই রোগী বহন করতে পারবে। 

অ্যাম্বুলেন্স চালকরা দাবি করেন, শুধু তাদেরই নয়, সারাদেশের অ্যাম্বুলেন্সচালক ও সহকারীদের যেন এসব পিপিই বিতরণ করা হয়। তাহলে নিজেদের সুরক্ষা করেই রোগী বহন করতে পারবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা