kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২১ নভেম্বর, ২০১৯ ০১:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার

ছবি: কালের কণ্ঠ

নতুন সড়ক পরিবহন আইন নিয়ে ডাকা অনির্দিষ্টকালের জন্য ধমর্ঘট প্রত্যাহার করা হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাত পৌনে ১টার দিকে ধানমন্ডিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবনে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। ফলে আজ থেকে সড়কে যানবাহন চলাচল করবে।

এ সময় বৈঠকে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব নজরুল ইসলাম ও বিআরটিএ কর্মকর্তারাও উপস্থিত ছিলেন।

আনুষ্ঠানিকভাবে ধর্মঘট আহ্বানকারী ট্রাক-কভার্ড ভ্যান মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতাদের মধ্যে বৈঠকে ছিলেন রুস্তম আলী খান, তাজুল ইসলাম, মকবুল আহমেদসহ অন্তত ১০ জন।

বাস মালিক সমিতির নেতা খন্দকার এনায়েত উল্লাহও ছিলেন বৈঠকে। 

পরিবহন শ্রমিকরা গতকাল বুধবার বেআইনিভাবে কর্মবিরতির নামে সারা দেশে বাস-ট্রাক চলায় বাধা দেয়, সাধারণ চালকদের হয়রানি করে, যাত্রীদের লাঞ্ছিত করে। এই পরিস্থিতিতে পরিবহন মালিক-শ্রমিকদের নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল রাতে দীর্ঘ বৈঠক করেন। বৈঠক শেষে রাতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানান, বৈঠকে পরিবহন শ্রমিক ও মালিকদের বিভিন্ন সংগঠন তাদের ৯টি দাবিসহ আরো কিছু সমস্যা তুলে ধরে। এর মধ্যে যেগুলো যৌক্তিক মনে হয়েছে, সেগুলো সমাধানের ক্ষেত্রে তাদের সময় দেওয়া হয়েছে। 

যেমন—বিদ্যমান লাইসেন্স নিয়ে তারা গাড়ি চালানোর জন্য সাত মাস অর্থাৎ ৩০ জুন পর্যন্ত সময় পাবে। এই সময়ের মধ্যে তারা বিআরটিএ থেকে নতুন লাইসেন্স ঠিকঠাক করে নেবে। মন্ত্রী জানান, এ রকম আরো দু-একটি বিষয়ে তাদের সময় দেওয়া হয়েছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে তারা কর্মবিরতি কাল থেকে প্রত্যাহার করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। 

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর ধানমণ্ডির বাসভবনে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠক শেষে শ্রমিক নেতারও বৈঠকের ফলাফল নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে জানান, তাঁরা কর্মবিরতি প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন।

এর আগে বুধবার রাত সোয়া ৯টার পর নতুন সড়ক আইন সংশোধনসহ ৯ দফা দাবিতে কর্মবিরতিতে থাকা বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক সমিতির নেতারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসেন।

মঙ্গলবার ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ স্থগিত ও সংশোধনসহ ৯ দফা দাবি আদায়ে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয় বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান, পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্যপরিষদ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা