kalerkantho

সোমবার। ২৭ জানুয়ারি ২০২০। ১৩ মাঘ ১৪২৬। ৩০ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১     

সহকর্মীর সঙ্গে বিছানায় যাওয়ার আগে বিষয়গুলো জেনে নিন

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১৬:৩৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



সহকর্মীর সঙ্গে বিছানায় যাওয়ার আগে বিষয়গুলো জেনে নিন

দিনের বেশিরভাগ সময় কাটে সহকর্মীদের সঙ্গেই। কাজের পরিবেশ ভালো হলে অনেকের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক তৈরি হয়। বিভিন্ন ইস্যুতে সহকর্মীদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা যেমন হয়, কর্মক্ষেত্রে নিজের মতোই ভাবনা-চিন্তার মানুষও পাওয়া যায়। 

প্রথমে অল্পবিস্তর কথা হলেও দীর্ঘদিন ধরে মোবাইলে কথোপকথন, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে চ্যাট থেকে শুরু করে অফিসের নানা বিষয়ে কথা বলতে বলতে একটা সম্পর্ক তৈরি হয়ে যায়। কখনো সহকর্মীর সঙ্গে সেই সম্পর্ক হতে পারে বন্ধুত্বের, আবার কখনো প্রেমের সম্পর্কও গড়ে উঠতে পারে। 

অবশ্য ভালোবাসার সম্পর্কটা প্রথমে একপাক্ষিকই হয়। তারপর বিষয়টি অপরজন জানলে সম্পর্কটা সামনের দিকে এগিয়ে যেতে পারে। 

তবে সহকর্মীকে ভালোবাসার বিষয়টি জানাতে একটু বেশিই ভাবতে হয়। কারণ, অপরজন বিষয়টি কিভাবে নিচ্ছে, সেটার ওপর অনেক কিছুই নির্ভর করে। খুবই সাবলীলভাবে পছন্দের সেই সহকর্মীকে গুছিয়ে বলতে পারেন। তবে অন্যজন এতে আগ্রহী না হলে সাবলীলভাবে বিষয়টি হ্যান্ডেল করতে হবে। অন্যথায় অফিসে আপনার অবস্থা যা তা হয়ে যেতে পারে। সেজন্য বিষয়টি কিন্তু গুরুত্বের সঙ্গে আগে পরে ভাবনাচিন্তা করে এগোতে হবে।

সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্ক বিছানা পর্যন্ত গড়ালেও কিছু বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। এই যেমন, বিষয়টি নিয়ে যেন অফিসে কানাকানি শুরু না হয়ে যায়, সেজন্য সেই সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্কটা সেভাবেই এগিয়ে নেবেন। আর সম্পর্কের কারণে অফিসে যেন সেই মানুষটি বাড়তি সুবিধা কিংবা ভিন্নভাবে উপস্থাপিত না হয়, সেটাও খেয়াল রাখবেন। 

আর বিছানায় যাওয়ার ক্ষেত্রে সবসময় তাকে মানুষ ভাবা দরকার। কোনোভাবেই সহকর্মীর সঙ্গে বিছানায় যাচ্ছেন বলে মনে করবেন না। এতে করে অফিসের পরিবেশ যেমন নষ্ট হয়, সম্পর্কেও একটা দূরত্ব থেকে যায়।

সহকর্মীর সঙ্গে সম্পর্কের পর তাকে দিয়ে নিজের কাজ করিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করবেন না। অফিস থেকে যেসব দায়িত্ব আপনাকে দেওয়া হবে, আগের মতোই সেগুলো নিজে করার চেষ্টা করবেন। তবে সহকর্মী সেই স্বজনের কাছ থেকে সাহায্য নিতে পারেন। কোনোভাবেই তার ওপর বিষয়টি চাপিয়ে দিতে যাবেন না। এমনকি ওই বিষয়ে আপনার পার্টনার যদি পারদর্শীও হয়, তার পরেও তার ওপর বিষয়টি ছেড়ে দেবেন না। এতে করে সম্পর্কে টানাপড়েন দেখা দিতে পারে।

সর্বোপরি মনে রাখবেন, কাজের পরিবেশ আর বাসার পরিবেশ আলাদা। কর্মক্ষেত্রে সেভাবেই অপরজনকে দেখবেন, এবং সে অনুসারে আচরণ করবেন। যদি আপনার পার্টনার পদে আপনার ঊর্ধ্বে থাকে, তাকে অফিসের নিয়মানুসারে সম্মান করবেন। এসবের ভিন্নতা ঘটলে বিছানার সম্পর্কে চিড় ধরার শঙ্কা থাকে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা