kalerkantho

অরবিটার থেকে আলাদা হলো ল্যান্ডার; চন্দ্র বিজয়ের পথে ভারত

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১৬:১১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অরবিটার থেকে আলাদা হলো ল্যান্ডার; চন্দ্র বিজয়ের পথে ভারত

এভাবেই চাঁদের মাটিতে অবতরণ করবে চন্দ্রযান-২ এর ল্যান্ডার। ছবি : ইসরো

উৎক্ষেপণের দেড় মাস সফলভাবে পাড়ি দেওয়ার পর এবার চূড়ান্ত পর্যায়ে চাঁদের মাটিতে নামার প্রস্তুতি শুরু করেছে ভারতের চন্দ্রযান- ২। আজই অরবিটার থেকে আলাদা হয়েছে বিক্রম ল্যান্ডার। এই ল্যান্ডারের মধ্যে আবার রয়েছে প্রজ্ঞান রোভার। প্রকৃতপক্ষে ল্যান্ডার এবং রোভার দুটিই আলাদা হয়ে গেছে অরবিটার থেকে। ইসরোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ল্যান্ডার এবং রোভার দুটিই কোনোরকম যান্ত্রিক গোলযোগ ছাড়াই মিশনে আছে। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে রোভার-সহ অবতরণ করবে এই ল্যান্ডার।

গত ২২ জুলাই ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটায় সতীশ ধাওয়ান স্পেস রিসার্চ সেন্টার থেকে দুপুর ২:৪৩ মিনিটে বাহুবলি রকেটে চেপে চাঁদের উদ্দেশে উড়ে যায় চন্দ্রযান-২। পৃথিবীর কক্ষপথ পার হওয়ার পর ঢুকেছে চাঁদের কক্ষপথে। তার পর চাঁদের কক্ষপথেও পাঁচটি ধাপ পেরিয়ে অবশেষে আলাদা হয়ে গেল বিক্রম ল্যান্ডার। ইসরোর পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে আজ ২ সেপ্টেম্বর সোমবার দুপুর ১:১৫ মিনিটে অরবিটার থেকে সফল ভাবে আলাদা হয়েছে। 

এর পর আরও দুটি ছোট বৃত্তাকার কক্ষপথে ঘুরতে ঘুরতে আগামী ৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের মাটিতে নামবে এই ল্যান্ডার। ইসরো জানিয়েছে, বর্তমানে ল্যান্ডারটি ১১৯ X ১২৭ কিলোমিটার দূরে রয়েছে। এর অর্থ চাঁদের মাটি থেকে ল্যান্ডারের সবচেয়ে বেশি দূরত্ব ১২৭ কিলোমিটার এবং সবচেয়ে কাছের দূরত্ব ১১৯ কিলোমিটার। অর্থাৎ এখনও কক্ষপথ পুরোপুরি বৃত্তাকার হয়নি। এই মিশনটি অপারেশনস কমপ্লেক্স এবং বেঙ্গালুরুর ট্র্যাকিং অ্যান্ড কম্যান্ড নেটওয়ার্ক থেকে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে।

এরপর যা যা হবে

প্রথমত চাঁদের কক্ষপথ থেকে বার করতে হবে ল্যান্ডারকে। সেই কাজ করা হবে দুটি পর্যায়ে। আগামীকাল মঙ্গলবার এবং বুধবার পর পর দুদিন গতি বাড়িয়ে কক্ষপথ থেকে ঠেলে বাইরে বের করে দেওয়া হবে। তারপর শুরু হবে অবতরণের প্রক্রিয়া। সেই পর্যায়ে ল্যান্ডারের গতি কমাতে কমাতে প্রায় শূন্যের কাছাকাছি নিয়ে আসতে হবে। সব শেষে ৭ সেপ্টেম্বর নিয়ন্ত্রিত ধাক্কা দিয়ে চাঁদের মাটিতে নামাতে হবে ল্যান্ডারকে।

সেই অবতরণ এতটাই নিখুঁতভাবে করতে হবে যে, রীতিমতো মসৃণভাবে প্রায় পালকের মতো গিয়ে চাঁদের মাটিতে বসে পড়বে ল্যান্ডার। এই প্রক্রিয়া ১৫ মিনিটের। আর এই ১৫ মিনিটই কার্যত অগ্নিপরীক্ষা। ইসরোর বিজ্ঞানীদের ভাষায় '১৫ মিনিটস অব টেরর' বা 'আতঙ্কের ১৫ মিনিট'।

চন্দ্রযানের নির্ধারিত যাত্রাপথ অনুসারে ল্যান্ডার চাঁদের মাটিতে অবতরণ করার পর তার থেকে রোভারটি আলাদা হয়ে যাবে। এই রোভারটি ৬ চাকার একটি যন্ত্রযান, যা চাঁদের দক্ষিণ গোলার্ধের মাটিতে ঘুরে বেড়াবে। চাঁদের এক দিন অর্থাৎ পৃথিবীর ১৪ দিন ধরে চাঁদের মাটিতে ঘুরবে এই রোভার। অন্য দিকে অরবিটারটি চাঁদের কক্ষপথে ঘুরতে থাকবে আরও প্রায় এক বছর।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা