kalerkantho


১৬ উপজেলা দুই পৌরসভায় নির্বাচন কাল

বিশেষ প্রতিনিধি   

৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



১৬ উপজেলা দুই পৌরসভায় নির্বাচন কাল

দেশের ১৮ উপজেলা পরিষদে আগামীকাল সোমবার সাধারণ ও উপনির্বাচনে ভোটগ্রহণের প্রস্তুতি থাকলেও দুটি উপজেলায় তা হচ্ছে না। চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচনে কুড়িগ্রাম সদর এবং ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলায় শুধু আওয়ামী লীগের একজন করে প্রার্থী থাকায় তাঁরা ভোট ছাড়াই নির্বাচিত হয়েছেন। বাকি ১৬টি উপজেলার মধ্যে সিলেটের ওসমানীনগর, খাগড়াছড়ির গুইমারা এবং সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলায় সব পদেই ভোট হবে। এ ছাড়া শুধু চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন হবে বরিশালের বানারীপাড়া ও গৌরনদী, পটুয়াখালীর রাঙ্গাবালী, কুমিল্লার আদর্শ সদর, পাবনার সুজানগর এবং কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে। ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম, নাটোরের বড়াইগ্রাম, নীলফামারীর জলঢাকা, সাতক্ষীরার কলারোয়া এবং বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে। পাবনার ঈশ্বরদী এবং কুমিল্লার সদর দক্ষিণে নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে।

এ ছাড়া পটুয়াখালীর গলাচিপা পৌরসভায় চেয়ারম্যান পদে, রাজশাহীর বাঘায় আড়ানী পৌরসভায় সংরক্ষিত ১ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে এবং বগুড়ার শেরপুর পৌরসভায় ৭ নম্বর সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে উপনির্বাচন হতে যাচ্ছে আগামীকাল।

এদিকে ১৬ উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী এড়াতে পারেনি আওয়ামী লীগ। সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর এবং কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে ক্ষমতাসীন দলের বিদ্রোহী নেতারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। জগন্নাথপুরে আওয়ামী লীগের দলীয় ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সহিংসতায় গুলিবিদ্ধ হয়ে দুজন নিহত হয়েছেন। আরো কয়েকটি উপজেলায় সহিংসতা, প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তা এবং বিএনপির প্রার্থীদের প্রচার চালাতে না দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে।

কেন্দ্র দখল ও ভোট জালিয়াতির আশঙ্কা প্রকাশ করে নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আবেদন করেছেন কয়েকজন প্রার্থী।

কে এম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন নতুন ইসির পাঁচজন সদস্য জেলা সফরে বেরিয়ে এসব নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে অনুষ্ঠানের তাগিদ দিয়েছিলেন। কিন্তু মাঠে সেই তাগিদের প্রতিফলন ঘটেনি বলে মনে করছেন সংশিষ্ট ব্যক্তিরা। তাঁরা বলছেন, ইসির ভূমিকা দৃশ্যমান নয়। নতুন ইসির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগও করেছেন প্রার্থীরা। পাবনার সুজানগর উপজেলার উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিএনপির প্রার্থী হাজারী জাকির হোসেন অভিযোগ করেন, প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বারবার চিঠি দেওয়ার পরও কমিশন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

গত বৃহস্পতিবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) বরাবর পাঠানো এক চিঠিতে হাজারী জাকির হোসেন উল্লেখ করেন, ‘আগামী ৬ মার্চ হতে যাওয়া পাবনার সুজানগর উপজেলার উপনির্বাচন নিয়ে আমি আপনার কার্যালয়ে এলাকার যাবতীয় সমস্যা, সহিংসতা, নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনসহ বিভিন্ন বিষয়ে পর পর ৯টি চিঠি দিয়েছি। কিন্তু জানি না, চিঠিগুলো আপনার দৃষ্টিগোচর হয়েছে কি না। ’

হোসেনপুর : কিশোরগঞ্জের এ উপজেলার চেয়ারম্যান মো. আয়ুব আলী মারা যাওয়ায় শূন্য পদে উপনির্বাচন হচ্ছে। এতে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের মো. জহিরুল ইসলাম নূরু মিয়া, বিএনপির জহিরুল ইসলাম মবিন এবং আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোহাম্মদ সোহেল। সোহেল প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান আয়ুব আলীর ছেলে। এ উপজেলায় নির্বাচনে গতকাল শনিবার পর্যন্ত কোনো সংঘর্ষের খবর পাওয়া যায়নি। তবে ৪৯টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ৩২টিকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

সুজানগর : পাবনার এ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের আব্দুল কাদের রোকন এবং বিএনপির হাজারী জাকির হোসেন চুন্নু। সুজানগর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের মৃত্যুতে আসন শূন্য হয়েছে।

বিএনপির পক্ষ থেকে সুজানগরে প্রচার চালানোর সময় তাদের নেতাকর্মীদের আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা মারধর ও হুমকি প্রদর্শন করেছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে। পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও তদন্ত) গৌতম কুমার বিশ্বাস জানান, সুজানগর উপজেলার ৬৩ কেন্দ্রের সবকটিই গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

গতকাল দুপুরে পাবনা প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি প্রার্থী হাজারী জাকির হোসেন চুন্নু অভিযোগ করেন, পাবনা-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সেলিম রেজা হাবিবসহ নেতাদের গতিরোধ করে তাঁদের ওপর হামলা চালানো হয়। ঘটনার পর থানায় মামলা করতে গেলে পুলিশ তা নেয়নি। স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা যায়, গত শুক্রবার রাতে সেলিম রেজা হাবিব বিএনপি মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে গণসংযোগ করে নিজস্ব জিপ গাড়িতে করে মালিফায় নিজ বাড়ি ফিরছিলেন। গাড়িটি মানিকদীতে পৌঁছালে প্রতিপক্ষের লোকজন তাঁর ওপর হামলা চালায়। সেলিম রেজা হাবিব গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে নিরাপদ স্থানে যাওয়ার সময় পাশের বাড়ির একটি বিল্ডিংয়ের সঙ্গে ধাক্কা লেগে চোখ-মুখসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাত পেয়ে রক্তাক্ত হন। এ বিষয়ে সুজানগর থানার ওসি ওবাইদুল হক বলেন, ‘রাতের আঁধারে কে বা কারা সেলিম রেজা হাবিবের ওপর হামলার চেষ্টা চালায়। ওই সময় তিনি দৌড়ে নিরাপদ স্থানে যাওয়ার সময় পড়ে গিয়ে আঘাতপ্রাপ্ত হন। এ বিষয়ে তাঁর সঙ্গে (সেলিম রেজা হাবিব) আমার কথা হয়েছে। তিনি কোনো অভিযোগ দেননি বা মামলাও করেননি। ’

এ ছাড়া পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলায় নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদেও কাল নির্বাচন হতে যাচ্ছে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মাহমুদা বেগম এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী এ জান্নাতুন ফেরদৌস রুনু। এখানে বিএনপির কোনো প্রার্থী নেই।

জগন্নাথপুর : সুনামগঞ্জের এ উপজেলার চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন আওয়ামী লীগের আকমল হোসেন, বিএনপির আতাউর রহমান ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা। এ উপজেলার মোট ভোটকেন্দ্র ৮৭টি। এর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত ৫১টি।

ওসমানীনগর : সিলেটের এ উপজেলায় এবার প্রথম নির্বাচন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান এ তিনটি পদে ১০ জন প্রার্থী রয়েছেন। চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী চারজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী দুজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী চারজন। চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হচ্ছেন আওয়ামী লীগের আতাউর রহমান (সভাপতি উপজেলা আওয়ামী লীগ), বিএনপির মঈনুল হক চৌধুরী (সাবেক সহসভাপতি সিলেট জেলা বিএনপি), আওয়ামী লীগের ‘বিদ্রোহী’ আক্তারুজ্জামান চৌধুরী জগলু (জেলা আওয়ামী লীগের উপদপ্তর সম্পাদক) এবং জাতীয় পার্টির শিব্বির আহমদ।

ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুই প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপির গয়াছ মিয়া এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ফেরদৌস খান। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে চার প্রার্থী হচ্ছেন বিএনপির মুসলিমা আক্তার চৌধুরী, আওয়ামী লীগ সমর্থিত মুক্তা পারভীন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী শারমিন আক্তার ও হুসনা বেগম।

গত ২৬ ফেব্রুয়ারি আওয়ামী লীগ ও বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে সাইফুল ইসলাম (১৭) নামের এক কিশোর এবং সোহেল মিয়া (৩৫) নামের এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্কণ্ঠার মধ্যে আছে ভোটাররা।

ওসমানীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং অফিসার মোহাম্মদ শওকত আলী বলেন, সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ব্যাপারে তাঁরা দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

গুইমারা : খাগড়াছড়ি জেলার নবসৃষ্ট এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থী রয়েছেন। তাঁরা হচ্ছেন আওয়ামী লীগের মেমং মারমা, বিএনপির মো. ইউচুপ এবং ‘ইউপিডিএফ’ সমর্থিত বলে পরিচিত স্বতন্ত্র প্রার্থী উশ্যেপ্রু মারমা। এ উপজেলায় গতকাল পর্যন্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেনি। তবে উশ্যেপ্রু মারমার লোকজনের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর ভোটারদের ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ রয়েছে। অন্যদিকে উশ্যেপ্রু মারমার পক্ষ থেকেও আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ রয়েছে। অবশ্য রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ জমা পড়েনি বলে জানিয়েছেন সহকারি রিটার্নিং অফিসার ও মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এ বি এম মশিউর রহমান।

রাঙ্গাবালী : পটুয়াখালীর এ উপজেলার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দেলোয়ার হোসেন, বিএনপির জাহাঙ্গীর হোসেন আকন এবং ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির হোসেন মোল্লা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। এ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কর্মীরা দুইবার বিএনপির পথসভায় হামলা চালিয়েছে। গত ২১ ফেব্রুয়ারি রাতে উপজেলার খালগোড়া বাজারের চৌরাস্তা এলাকায় প্রথম হামলা হয় পথসভায়। ওই হামলায় প্রায় ১০ জন আহত হয়। এ ছাড়া গত শুক্রবার বিকেলে মৌডুবি বাজার এলাকায় আওয়ামী লীগের কর্মীরা বিএনপির পথসভায় হামলা করে। এতে প্রায় ৩০ জন আহত হয়। এ উপজেলায় বিএনপি প্রার্থীর অবস্থান ভালো হওয়ায় আরো সহিংস ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

কাঁঠালিয়া : ঝালকাঠির এ উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. গোলাম কিবরিয়া সিকদার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। গত ১৭ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের দিন তাঁর একমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি প্রার্থী মো. সাব্বির আহম্মেদ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেন।

বড়াইগ্রাম : নাটোরের এ উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী এবং বিএনপির রাশেদুল ইসলাম রাসেল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন। সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী অভিযোগ করছেন, তাঁর দলের এমপি অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস বিভিন্ন স্থানে সমাবেশ ও অনুদান প্রদান অব্যাহত রেখেছেন এবং পরোক্ষভাবে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। এ বিষয়ে অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুসের মোবাইল ফোনে কল করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। অন্যদিকে বিএনপি প্রার্থীর পক্ষ থেকেও অভিযোগ, আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকরা বিএনপির কর্মীদের নানাভাবে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

কুড়িগ্রাম সদর : এ উপজেলা পরিষদের উপনির্বাচনে একজন মাত্র প্রার্থী থাকায় ভোট হচ্ছে না। জেলা নির্বাচন অফিসার দেলোয়ার হোসেন জানান, প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় এরই মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আমান উদ্দিন মঞ্জুকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে।

বানারীপাড়া ও গৌরনদী : বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের মো. গোলাম ফারুক, বিএনপির শাহ আলম মিঞা এবং জাতীয় পার্টির মিজানুর রহমান চোকদার প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। আর গৌরনদী উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বতায় রয়েছেন বিএনপির মঞ্জুর হোসেন মিলন এবং আওয়ামী লীগের মনিরুন নাহার মেরী।

বানারীপাড়ায় বিএনপি প্রার্থী শাহ আলম মিঞার অভিযোগ, আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা তাঁকে প্রচারে নামতেই দিচ্ছে না। তাঁর কর্মী-সমর্থকদের মারধর করছে। রিটার্নিং অফিসার ও প্রশাসনকে জানালেও কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না।

এ বিষয়ে বরিশালের পুলিশ সুপার এস এম আকতারুজ্জামানের বক্তব্য, নির্বাচনে এ পর্যন্ত কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

এদিকে এ নির্বাচনে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে বরিশালের তিন বিএনপি নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। শুক্রবার রাতে বরিশাল জেলা (দক্ষিণ) বিএনপির এক জরুরি সভা শেষে জেলা বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চান ও সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম শাহীন স্বাক্ষরিত এক পত্রের মাধ্যমে বানারীপাড়া পৌর বিএনপির সভাপতি গোলাম মাহমুদ মাহাবুব মাস্টার, পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি বর্তমান সদস্য খলিলুর রহমান চোকদার এবং উদয়কাঠি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি মো. হাচান বালীকে বহিষ্কার করা হয়।

গলাচিপা : এ উপজেলায় উপনির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের আহসানুল হক তুহিন, বিএনপির মো. জাহাঙ্গীর খান এবং বিএনপির ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী আবু তালেব মিয়া প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন।

[প্রতিবেদনটি তৈরি করতে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছেন সংশ্লিষ্ট এলাকার নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিরা]


মন্তব্য