kalerkantho

বুধবার । ১৭ জুলাই ২০১৯। ২ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৩ জিলকদ ১৪৪০

নিরুত্তাপ ৭৮ উপজেলায় আজ ভোটগ্রহণ

বিশেষ প্রতিনিধি   

১০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



নিরুত্তাপ ৭৮ উপজেলায় আজ ভোটগ্রহণ

উপজেলা পরিষদের পঞ্চম সাধারণ নির্বাচনের প্রথম ধাপে ৭৮ উপজেলায় এক কোটি ৪২ লাখ ৪৮ হাজার ৮৫০ জন ভোটারের ভোট আজ। গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর এটিই বড় মাপের নির্বাচন। তবে দলীয় প্রতীকের এ নির্বাচনে দেশের প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দল বিএনপিসহ বেশির ভাগ অংশগ্রহণ না করায় উত্তাপ কিছুটা কম।

এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ২০৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৩৮৬ জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৪৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন। মোট পাঁচ হাজার ৮৪৭টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলবে সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত।

এ  ধাপে দেশের নির্বাচনযোগ্য ৪৮০ উপজেলার মধ্যে ১২টি জেলার মোট ৮৭টি উপজেলার   নির্বাচনী তফসিল ঘোষণা করা হয়। পরে আদালতের নির্দেশনায় এবং প্রভাব সৃষ্টির অভিযোগে নির্বাচন কমিশন নিজে ছয়টি উপজেলার নির্বাচন স্থগিত করে। এ ছাড়া তিনটি উপজেলায় সব পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ কারণে ভোট হতে যাচ্ছে ৭৮টি উপজেলায়। এর মধ্যে ১২টি উপজেলায়

চেয়ারম্যান পদে, তিনটি উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে এবং চারটি উপজেলায় নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন হচ্ছে না। এসব উপজেলায় এই পদগুলোতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সব মিলিয়ে সব পদে এবং বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়া তিন উপজেলাসহ অন্যান্য উপজেলাগুলোর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ১৫ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ছয়জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের তথ্য অনুসারে যে তিন উপজেলায় সব পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায়  নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে সেগুলো হচ্ছে—নাটোরের সদর উপজেলা, জামালপুর জেলার মেলান্দহ ও মাদারগঞ্জ উপজেলা। এ ছাড়া চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ১২ জন নির্বাচিত হয়েছেন। উপজেলাগুলো হলো পঞ্চগড়ের বোদা, জামালপুর সদর ও সরিষাবাড়ী, নেত্রকোনার কেন্দুয়া ও সদর, সিরাজগঞ্জের সদর, কাজিপুর ও উল্লাপাড়া, জয়পুরহাটের সদর ও পাঁচবিবি,  রাজশাহীর মোহনপুর ও বাঘা।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার তিন উপজেলাসহ ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে—জামালপুরের সরিষাবাড়ী, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর ও উল্লাপাড়া। এ ছাড়া নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার তিন উপজেলাসহ নেত্রকোনা সদর, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর, রাজশাহীর গোদাগাড়ী ও মোহনপুর উপজেলায়। এই পরিস্থিতিতে জামালপুরের সরিষাবাড়ী ও সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়াতে শুধু নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু আদালতের নির্দেশে উল্লাপাড়ায় এ নির্বাচন স্থগিত রয়েছে। আর শুধু চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে। এ ছাড়া শুধু ভাইস চেয়ারম্যান পদে ভোট হবে রাজশাহীর মোহনপুরে।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় আরো জানায়, সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া, রাজশাহীর পবা, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীর নির্বাচন আলাদতের নির্দেশে স্থগিত রয়েছে। আর নির্বাচন কমিশন অন্যায় প্রভাব সৃষ্টির অভিযোগে স্থগিত করেছে লালমনিরহাটের আদিতমারী, নেত্রকোনার পূর্বধলা ও সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলার নির্বাচন।

এ নির্বাচনে প্রভাব সৃষ্টির অভিযোগে বেশ কয়েকজন সংসদ সদস্যকে নির্বাচনী এলাকা ত্যাগ করার  নির্দেশ এবং সতর্ক করে দেয় নির্বাচন কমিশন।

প্রথম ধাপের এই নির্বাচনের পর দ্বিতীয় ধাপে ১৮ মার্চ ১২৪টি, তৃতীয় ধাপে ২৪ মার্চ ১২৭টি, চতুর্থ ধাপে ৩১ মার্চ ১২২টি এবং জুনে পঞ্চম ধাপে বাকি উপজেলাগুলোতে ভোট গ্রহণ করা হবে। উপজেলা নির্বাচনে ৭৫০ কোটি টাকারও বেশি ব্যয় বরাদ্দ ধরা হয়েছে। এর মধ্যে নির্বাচন পরিচালনায় ৩০০ কোটি টাকার বেশি এবং আইন-শৃঙ্খলায় ৪৫০ কোটি টাকার বেশি ব্যয় হতে পারে।

গতকাল শনিবার নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমান প্রেস ব্রিফিংয়ে এ নির্বাচন সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য উপস্থাপন করেন। তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘সব দল এ নির্বাচনে অংশ না নিলেও যেহেতু এটি স্থানীয় সরকার নির্বাচন, সে কারণে ভোটার উপস্থিতি ভালো হবে বলেই আমরা আশা করছি।’ এ ছাড়া তিনি আরো বলেন, কোনো কেন্দ্রে অনিয়ম লক্ষ করা গেলে সেই কেন্দ্রের ভোট বন্ধ করে দেওয়া হবে।

যেসব উপজেলায় আজ নির্বাচন : পঞ্চগড় জেলার সদর, আটোয়ারি, বোদা, দেবীগঞ্জ ও  তেঁতুলিয়া। কুড়িগ্রাম জেলার ভূরুঙ্গামারী, উলিপুর, নাগেশ্বরী, রাজারহাট, রাজিবপুর, সদর, চিলমারী ও রৌমারী। নীলফামারী জেলার ডোমার, ডিমলা, সদর, জলঢাকা, সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ। লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম, হাতিবান্ধা, সদর ও কালীগঞ্জ। জামালপুর জেলার সদর, সরিষাবাড়ী, ইসলামপুর, বকশীগঞ্জ ও দেওয়ানগঞ্জ। নেত্রকোনা জেলার বারহাট্টা, দুর্গাপুর, খালিয়াজুরী, কলমাকান্দা, কেন্দুয়া, মদন, মোহনগঞ্জ ও সদর। সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক, দেয়ারাবাজার, সদর, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, শাল্লা, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভরপুর, তাহিরপুর ও জগন্নাথপুর। হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল, মাধবপুর, চুনারুঘাট, লাখাই, সদর, নবীগঞ্জ, আজমিরীগঞ্জ ও বানিয়াচং। সিরাজগঞ্জ জেলার সদর, বেলকুচি, চৌহালী, কাজিপুর, রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর ও তাড়াশ। জয়পুরহাট জেলার সদর, পাঁচবিবি, আক্কেলপুর, কালাই ও ক্ষেতলাল। নাটোর জেলার বাগাতিপাড়া, গুরুদাসপুর, বড়াইগ্রাম, লালপুর ও সিংড়া। রাজশাহী জেলার তানোর, গোদাগাড়ী, মোহনপুর, বাগমারা, পুটিয়া, দুর্গাপুর, চারঘাট ও বাঘা।

 

মন্তব্য