kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

পুঁইশাক

[নবম-দশম শ্রেণির বাংলা সাহিত্য বইয়ের ‘নিরীহ বাঙালি’ গল্পে পুঁইশাকের উল্লেখ আছে]

৮ মে, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



পুঁইশাক

পুঁইশাক এক ধরনের লতাজাতীয় সবজি। এর বৈজ্ঞানিক নাম Basella alba. পুঁইগাছের পাতা ও লতা শাক হিসেবে খাওয়া হয় বলে সচরাচর একে পুঁইশাক হিসাবে উল্লেখ করা হয়। এটি Basellaceae পরিবারভুক্ত বহুবর্ষজীবী উষ্ণমণ্ডলীয় গাছ। পুঁইশাক সাধারণত বসতবাড়ির আঙিনার বেড়ায় বা মাচায় জন্মাতে দেখা যায়। এ ছাড়া ব্যাবসায়িক ভিত্তিতেও এর চাষ করা হয়। বাংলাদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, আসাম ও ত্রিপুরায় এই শাক প্রচুর পরিমাণে চাষ করা হয়।

লাল ও সবুজ পুঁইশাক নামের এই শাকের দুটি জাত আছে। এ ছাড়া বাংলাদেশে কৃষি গবেষণা কর্তৃক উদ্ভাবিত বারি-১, বারি-২ নামের দুটি জাত আছে।

পুঁইশাক নরম বহু শাখাযুক্ত উদ্ভিদ। এর মাংসল লতা দৈর্ঘ্যে ১০ মিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে। পাতা মোটা, মসৃণ, রসালো এবং মৃদু সুগন্ধ যুক্ত। লাভ আকৃতির পাতার দৈর্ঘ্য মাঝারি। লাল পুঁইয়ের পূর্ণবয়স্ক কাণ্ড লালচে বেগুনি রঙের হয়, যা লাল পুঁই ডাঁটা হিসেবে পরিচিত। পুঁইয়ের ফুল সাদা ও লাল। ফল মটরের দানার মতো। পাকা ফল বেগুনি রঙের।

মার্চ-এপ্রিল মাসে পুঁইশাকের বীজ বপন করতে হয়। বীজ ও শাখা কলম দিয়ে পুঁইয়ের চাষ করা যায়। পুঁইয়ের জমিতে খরার সময় নিয়মিত পানি সেচ দিতে হয়। তবে জমিতে যাতে পানি না জমে সে দিকে খেয়াল রাখতে হয়। অল্প জায়গায় খুব দ্রুত বাড়ে এই শাক। এ কারণে আজকাল ফ্ল্যাটবাড়ির টবেও অনেকে পুঁইলতা লাগান। পুঁইশাকের ডগা মাঝে মাঝে কেটে দিতে হয়। এতে শাক খাওয়াও হয়, আবার গাছে নতুন ডগাও বের হয়।

পুঁইশাকে বিটল বা ফ্লি বিটল ছাড়া আর কোনো পোকা তেমন ক্ষতি করে না। এই পোকা পুঁইশাকের পাতায় ছোট ছোট ছিদ্র করে এবং নরম কাণ্ডে আক্রমণ করে। ছত্রাকনাশক স্প্রে করে এসব রোগ নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

পুঁইশাক পুষ্টিকারক ও তৃপ্তিকারক। পাতাসহ সমগ্র গাছ ভেষজ গুণাবলিসম্পন্ন। পাতা মূত্রকারক। গনোরিয়া রোগে এটি উপকারী।

পুঁইশাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ, যা কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে দেহের বর্জ্য সুষ্ঠুভাবে নির্গমনে সাহায্য করে। এই শাকে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ ও ‘সি’, যা ত্বকের রোগজীবাণু দূর করে। এ ছাড়া শরীরের বৃদ্ধিকেও ত্বরান্বিত করে। পাশাপাশি চোখ ও চুল ভালো রাখে এই শাক।

                ►     ইন্দ্রজিৎ মণ্ডল



সাতদিনের সেরা