kalerkantho


তারা হৃদয়হীন, নিষ্ঠুর

সেন্সর বোর্ডে যাওয়ার আগেই আটকে গেল ‘ডুব’। এনওসি (অনাপত্তিপত্র) দেওয়ার পর আবার প্রত্যাহার করে নেয় প্রিভিউ কমিটি। এ বিষয়ে ছবির পরিচালক মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর সঙ্গে কথা বলেছেন দাউদ হোসাইন রনি

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০




তারা হৃদয়হীন, নিষ্ঠুর

ছবি আটকে যাওয়ার খবর শোনার পর আপনার অনুভূতি কী?

 

আমি ভীষণ বিরক্ত। ১৫ ফেব্রুয়ারি অনাপত্তিপত্র দিল প্রিভিউ কমিটি, পরের দিনই কিভাবে সেটা প্রত্যাহার করে! এটা একটা নজিরবিহীন ঘটনা।

আর ছবি ‘নিষিদ্ধ করেছে’ বলতে চাই না, এটা সাময়িক সমস্যা।

 

অনেকেই বলছে, ছবির প্রচারণার জন্যই নাকি এসব...

এ রকম নির্দয় মন্তব্য আর হয় না। আমাকে ছুরিকাঘাত করে বলা হলো, আমি নিজেই নিজেকে ছুরিকাঘাত করেছি—নিষ্ঠুর একটা মন্তব্য। একজন ফিল্মমেকারের ছবি যখন আটকে যায়, তখন তার হৃদয়ে কতটা রক্তক্ষরণ হয় সেটা অন্যরা বুঝবে না। যারা এ ধরনের কথা বলে তারা হৃদয়হীন, নিষ্ঠুর। মেহের আফরোজ শাওন বা সরকার কি আমার কথামতো চলবে?

 

এখন আপনাদের পরবর্তী পদক্ষেপ কী?

তথ্যমন্ত্রীর কাছে যাব। বিস্তারিত জানতে চাইব, তারপর চিঠি দিয়ে বলব, ‘সাসপেনশন’ প্রত্যাহার করা হোক। আমরা এখনো বিশ্বাস করি, সরকার বিষয়টা বুঝবে। নইলে তো আদালতের কাছেই যেতে হবে।

 

দেশের বাইরে ‘ডুব’ মুক্তি দিতে কোনো সমস্যা হবে কি?

একেবারেই না। এটা যৌথ প্রযোজনার ছবি। যখন-তখন দেশের বাইরে মুক্তি দেওয়া সম্ভব। বাংলাদেশের আইন শুধু বাংলাদেশেই প্রযোজ্য। কিন্তু আমি তো বাংলাদেশের মানুষকেই ছবিটা আগে দেখাতে চাই।

 

‘ডুব-এ ইরফান খান’, ‘হুমায়ূন আহমেদের জীবনী নিয়ে ছবি’ এবং ‘সাসপেনশন’—এই ছবির সব সংবাদই কেন বাইরের দেশের মিডিয়ায় আগে যাচ্ছে? এর নেপথ্য কারণটা কি বলবেন?

‘আনন্দবাজার’কে আমি নিউজ দিইনি। ‘ভ্যারাইটি’ বা ‘হলিউড রিপোর্টার’ আমার ছবির ব্যাপারে আগ্রহী। ইরফান খানও একটা বিষয়। আর দেশের মিডিয়া এই অভিযোগ করতেই পারে না, কারণ কোনো সংবাদ দিলে তারা খুবই হেলাফেলা করে সেটা ছাপে। মাত্র দুই লাইনেই নিউজ করে অনেকে। আমি যেখানে প্রায়োরিটি পাব সেখানেই তো নিউজ দেব, নাকি?


মন্তব্য