খান একাডেমির বাংলা সংস্করণ উদ্বোধন-331217 | খবর | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ১২ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৪ জিলহজ ১৪৩৭


খান একাডেমির বাংলা সংস্করণ উদ্বোধন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বিশ্বজুড়ে সমাদৃত অনলাইন এডুকেশন প্ল্যাটফর্ম ‘খান একাডেমি’র বাংলা সংস্করণের উন্মোচন করল গ্রামীণফোন ও আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশন। খান একাডেমির বাংলা সংস্করণের লিংকটি হলো bn.khanacademy.org.

গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজধানীর গুলশান এলাকায় একটি কনভেনশন সেন্টারে খান একাডেমি বাংলা সংস্করণের উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। 

অনুষ্ঠানে জানানো হয় সবার জন্য যেকোনো স্থানে বিনা মূল্যে বিশ্বমানের শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২০০৬ সালে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত উদ্যোক্তা ও শিক্ষাবিদ সালমান খান যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান খান একাডেমি প্রতিষ্ঠা করেন। খান একাডেমি সব বয়সের সব শিক্ষার্থীর জন্য অনলাইনে বিনা মূল্যে বিষয়ভিত্তিক শিক্ষার উপকরণ ও উৎসভিত্তিক সহায়তা দিয়ে আসছে। খান একাডেমিতে রয়েছে নিয়মিত চর্চার অনুশীলনী, নির্দেশনামূলক ভিডিও, ড্যাশবোর্ড বিশ্লেষণ ও শিক্ষক উপকরণ যার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষ ও এর বাইরে নিজেদের মতো করে অধ্যায়নের মাধ্যমে ক্ষমতায়নের সুযোগ পাবে। খান একাডেমির বাংলা সংস্করণ উন্মোচনের মাধ্যমে দেশজুড়ে শিক্ষার্থী ও শিক্ষাবিদরা খান একাডেমির সব বিষয়বস্তু ও উপকরণ বাংলায় পড়তে পারবেন।

এ ছাড়া জানানো হয়, আগামী, গ্রামীণফোন ও খান একাডেমির যৌথ সহযোগিতার ভিত্তিতে খান একাডেমির বাংলায় রূপান্তর সম্ভব হয়েছে। এ সহযোগিতার অংশ হিসেবে গত আট মাসে ২০ লাখ শব্দ ও ছয় শর বেশি ভিডিও বাংলা ভাষায় রূপান্তর করা হয়েছে। খান একাডেমি রূপান্তরের এ কার্যক্রম এখনো চলছে। সামনের দিনগুলোয় খান একাডেমির বাংলা সংস্করণে আরো বেশি কন্টেন্ট ও অতিরিক্ত অনেক বিষয় যুক্ত হবে। এ ছাড়া খান একাডেমি বাংলা ওয়েবসাইটের মূল্যায়ন ও বিস্তৃতির জন্য স্কুল পর্যায়ে একটি পরীক্ষামূলক গবেষণা চালানোর পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ উদ্যোগ সম্পর্কে গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীব শেঠি বলেন, “এ মহৎ উদ্যোগের অংশ হতে পেরে গ্রামীণফোন অত্যন্ত গর্বিত। এখন বাংলা ভাষাভাষী শিক্ষার্থী ও শিক্ষাবিদরা যেকোনো জায়গায় যেকোনো সময় তাদের হাতের নাগালে উচ্চ মানসম্পন্ন শিক্ষা উপকরণ খুঁজে পাবে। দেশের প্রতিটি ঘরে ইন্টারনেটের সুবিধা পৌঁছে দেওয়াই আমাদের ‘সবার জন্য ইন্টারনেট’ প্রচারণার লক্ষ্য। ব্যক্তি, সমাজ ও জাতিকে উপকৃত করার ক্ষেত্রে মানসম্পন্ন শিক্ষাব্যবস্থা সহজলভ্য করার চেয়ে আর ভালো কোনো উপায় নেই।”

অনুষ্ঠানে আগামী এডুকেশন ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক মসিহুজ্জামান বলেন, ‘আগামীর বাংলাদেশের সব শিশুর মানসম্পন্ন শিক্ষা গ্রহণের সমান সুযোগ নিশ্চিত করার রূপকল্প বাস্তবায়নে খান একাডেমি বাংলা একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। দেশজুড়ে শিক্ষার্থী, মা-বাবা ও শিক্ষকরা যেন বিনা মূল্যে এ অনলাইন শিক্ষা কার্যক্রমকে শিক্ষার উৎস হিসেবে সদ্ব্যবহার করতে পারে—এটা নিশ্চিত করতে আমাদের কার্যক্রম ধারাবাহিকভাবে চলবে।’

মন্তব্য