kalerkantho


অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহানের মত

সরকারি ব্যয়ের বড় অংশ রাজনীতিকদের পকেটে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহান মনে করেন, সরকারি ব্যয় বাড়ছে। এর একটি বড় অংশ যাচ্ছে রাজনীতিকদের পকেটে। রাজনীতিকরা সম্পদশালী হচ্ছেন। অন্যদিকে বঞ্চিত হচ্ছে সাধারণ মানুষ। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর ব্র্যাক সেন্টারে ‘রাজনীতি এবং উন্নয়ন : গণতন্ত্র এবং প্রবৃদ্ধি’ শীর্ষক কর্মশালায় এই অভিমত তুলে ধরেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান রেহমান সোবহান। ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট আয়োজিত এই কর্মশালায় প্রধান আলোচক ছিলেন তিনি।

বিশ্বমন্দা ও বিদেশি বিনিয়োগের ভাটার মধ্যে সরকারি ব্যয় বাড়িয়ে দেশের অর্থনীতিকে গতিশীল রাখার কথা অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলে আসছেন। কিন্তু এর মধ্যে অনেক ঘাপলা আছে বলে মনে করেন রেহমান সোবহান। বিশিষ্ট এই অর্থনীতিবিদ বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে ‘আদর্শহীন’ রাজনীতিকরা সরকারি টাকা থেকেই সম্পদশালী হচ্ছেন। এ কারণে বাজেটের আকার বাড়ছে। তিনি বলেন, ‘২৫ বছর আগের বাজেটের সঙ্গে বর্তমান বাজেট তুলনা করলে দেখা যায়, আমাদের বাজেটের আকার বিপুল পরিমাণে বেড়েছে।

মূলত সরকারি ব্যয় বৃদ্ধির কারণেই এভাবে বাজেট বৃদ্ধি পাচ্ছে। এটা অপরচুনিটি কস্ট। এই অপরচুনিটি কস্ট থেকেই রাজনীতিকরা সম্পদের মালিক হচ্ছেন। ’ তিনি আরো বলেন, ‘এখন এই সিস্টেমেই রাজনীতি চলছে। ’

রাজনীতিকদের নিয়ে হতাশা ব্যক্ত করে রেহমান সোবহান বলেন, বর্তমান রাজনীতিবিদদের মধ্যে সমন্বিত আদর্শ নেই। সে রাজনীতিকরা ডান বা বাম যে ধরনেরই হোন না কেন। তিনি বলেন, সমপ্রতি দেশে যে ধর্মীয় উগ্রবাদের উত্থান ঘটেছে সেখানেও কোনো আদর্শ নেই। তারা শুধু সুযোগ তৈরির জন্য দলে লোক টানার চেষ্টা করছে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা অর্থনীতিবিদ ওয়াহিদ উদ্দিন মাহমুদ অর্থনীতি সুসংহত করতে বহুদলীয় রাজনৈতিক ব্যবস্থা টিকিয়ে রাখার ওপর জোর দেন।

অনুষ্ঠানে সিপিডির সম্মানীয় ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, যে খাজনা নেয়, সে ওই সম্পদ থেকে নতুন কোনো আয় সৃষ্টি নাও করতে পারে। এর ফলে বিনিয়োগ ব্যাহত হয়। রাষ্ট্র এটা থেকে রাজস্ব পায় না। গরিবের জন্য রাষ্ট্র যেটা দিতে পারত সেটা দিতে পারে না। এতে সমাজের দক্ষতা ও প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ব্যাহত হয়। বাংলাদেশে গত শতকের আশির দশকে অর্থনীতির সংস্কারের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, এর ফলে একদিকে যেমন উন্নয়ন হয়েছে তেমনি প্রবৃদ্ধিও হয়েছিল।

কর্মশালার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে রাজনৈতিক অর্থশাস্ত্র ও প্রবৃদ্ধির সম্পর্ক নিয়ে উপস্থাপন করা এক নিবন্ধে ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির শিক্ষক মির্জা হাসান বলেন, রাজনীতিবিদদের দ্বারা বাংলাদেশের আমলারা প্রভাবিত। নীতিনির্ধারণের ক্ষেত্রে সমাজের উঁচুস্তরের দিকেই তাঁরা বেশি লক্ষ্য রাখেন।


মন্তব্য