kalerkantho


ডেসটিনির রফিকুল আমীনের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৩১ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০



ডেসটিনির রফিকুল আমীনের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন

দৈনিক ডেসটিনি ও বৈশাখী টিভির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনের মুক্তির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধন। ছবি : কালের কণ্ঠ

ডেসটিনি গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রফিকুল আমীনের দ্রুত মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছেন গ্রুপটির বিনিয়োগ ও ক্রেতা-পরিবেশকরা। তাঁকে মুক্তি দিয়ে ডেসটিনি গ্রুপের সম্পদ রক্ষা ও ব্যবসায়িক কার্যক্রম সচল রেখে গ্রুপটির ৪৫ লাখ গ্রাহক-পরিবেশকের পরিবার-পরিজন নিয়ে বেঁচে থাকার সুযোগ করে দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানান তাঁরা।

গতকাল শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এই মানববন্ধনে প্রতিষ্ঠানটির বিপুলসংখ্যক পরিবেশকের পাশাপাশি অংশ নেন ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) নেতৃবৃন্দ।

মানববন্ধনে বক্তব্য দেন বিএফইউজের নবনির্বাচিত সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল, মহাসচিব ওমর ফারুক, ডিইউজের সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, বৈশাখী টেলিভিশনের প্রধান বার্তা সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, বৈশাখী টিভির উপদেষ্টা সিরাজাম মুনির প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, দুর্নীতিবাজরা জামিন পেলেও সাংবাদিকবান্ধব দৈনিক ডেসটিনি সম্পাদক মোহাম্মদ রফিকুল আমীন দীর্ঘ সাড়ে চার বছর বিনা বিচারে কারাগারে আছেন, এটা হয় না। আমরা দেখলাম তাঁর জামিন হলো; কিন্তু এখনো তা বাস্তবায়ন হয়নি। জামিনের আদেশ বহাল রেখে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন, সাংবাদিকরা অনেক কষ্টে আছেন, ৎাদের কথা ভেবে রফিকুল আমীনকে মুক্তি দিন।

মনজুরুল আহসান বুলবুল বলেন, দীর্ঘদিন ধরে দৈনিক ডেসটিনি এবং বৈশাখী টিভির কর্মীরা বেতন ভাতা না পেয়ে  নিদারুণ সংকটে আছেন। কর্মীরা নিজেদের সহযোগিতা দিয়ে প্রতিষ্ঠান দুটি চালিয়ে রেখেছেন। তাই শিগগির রফিকুল আমীনের মুক্তি দাবি করছি। তিনি আরো বলেন, রফিকুল আমীন আইনগত মোকাবিলা করেই জামিন পেয়েছেন। তিনি মুক্তি পেলে বৈশাখী এবং ডেসটিনি কর্মীদের সংকটও কেটে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। 

পরিবেশকরা বলেন, চার বছর ধরে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) অনুসন্ধান, তদন্ত ও মামলাজনিত জটিলতায় ডেসটিনির স্থাবর-অস্থাবর অর্থসম্পদ ধ্বংস ও লুট হয়ে গেছে। এসব সম্পদ রক্ষণাবেক্ষণের কোনো কর্তৃপক্ষ নেই। ৪৫ লাখ পরিবেশকের রুটি-রোজগারের প্রতিষ্ঠান ডেসটিনির ব্যবসায়িক কার্যক্রম বন্ধ করে দেওয়ার কথা উল্লেখ করে তাঁরা বলেন, এর ফলে কর্ম হারিয়ে প্রায় দুই কোটি মানুষ মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অন্যদিকে প্রায় ৪০ মাস ধরে কারাগারে বিনা বিচারে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অসুস্থ রফিকুল আমীন ও মোহাম্মদ হোসাইন।

ডেসটিনি গ্রুপের বেহাত হওয়া সম্পদের বর্ণনা তুলে ধরে পরিবেশকরা বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি এবং দাবি করছি, ডেসটিনির সব প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি আছে বলেই আজ পর্যন্ত আমাদের কোনো বিনিয়োগকারী, শেয়ারহোল্ডার, ক্রেতা-পরিবেশকের পক্ষ থেকে প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে বা এর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি।’



মন্তব্য