kalerkantho


গ্রামে বাড়ি করতেও অনুমোদন লাগবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গ্রামে বাড়ি করতেও অনুমোদন লাগবে

দেশের যেকোনো প্রান্তে ভূমির ওপর ঘরবাড়ি বা স্থায়ী কোনো স্থাপনা করলেই সরকার মনোনীত কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নিতে হবে। যেখানে কর্তৃপক্ষ নেই সেখানে কর্তৃপক্ষ নির্ধারণ করা হবে। এ আইন অমান্য করলে পাঁচ বছরের জেল এবং ৫০ লাখ টাকা জরিমানা দিতে হবে। এ ধরনের বিধান রেখে ‘নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা আইন, ২০১৭’-এর খসড়া নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সোমবার সচিবালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম বলেছেন, অত্যন্ত কঠোর এ আইনটি করা হচ্ছে দেশের কৃষিজমিসহ ভূমির সঠিক ব্যবহারের জন্য। বর্তমানে বাড়িঘর নির্মাণের জন্য ইউনিয়ন পরিষদ বা জেলা পর্যায় থেকে অনুমোদন নেওয়ার নিয়ম রয়েছে। তবে সে নিয়ম পালন করা হয় না। এ কারণেই বিষয়টি আইনে পরিণত করা হচ্ছে। এর ফলে ভূমি ব্যবস্থাপনায় শৃঙ্খলা আসবে এবং পরিকল্পিতভাবে ভূমি ব্যবহার সম্ভব হবে।

মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে আয়োজিত ব্রিফিংয়ে একজন সাংবাদিক জানতে চান, তাঁর গ্রামের বাড়িতে তিনি ঘর বানাতে চান; এ অবস্থায় তিনি কার অনুমোদন নেবেন? জবাবে মন্ত্রিপরিষদসচিব বলেন, গ্রাম এলাকায়ও কোনো উন্নয়নমূলক কাজ করতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের ছাড়পত্র নিতে হবে। দেশের যেকোনো জমি ব্যবহার করতে হলেই কর্তৃপক্ষের অনুমোদন লাগবে।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শুধু কৃষিজমিই যে নষ্ট হচ্ছে তা নয়। ভূমি নানাভাবে নষ্ট হচ্ছে। ইটভাটায় সবচেয়ে উর্বর মাটি ব্যবহার করা হচ্ছে। এই আইন হলে এ সবকিছুই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। ’

বিশিষ্ট নগর বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক নজরুল ইসলামের মন্তব্য জানতে চাইলে কালের কণ্ঠকে তিনি বলেন, ‘এই আইনটি কার্যকর হলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি বাড়বে। কারণ প্রয়োজনীয় জনবল নেই। ঢাকাতেই সেবা পাওয়া যায় না, সেখানে গ্রামে সেবা কে দেবে? তবু আইনটি দরকার। কারণ প্রতিবছর কৃষিজমি কমছে। এখনই ব্যবস্থা না নিলে সামনের দিনগুলোতে পরিস্থিতি খারাপ হবে। তাই আইনটি কার্যকর করার আগে প্রশিক্ষিত জনবল নিয়োগ দিতে হবে। ’

তবে পূর্তসচিব শহিদ উল্লা খন্দকার বলেন, ‘সারা দেশের মাত্র ৫ শতাংশ ভূমির মাস্টারপ্ল্যান আছে। এসব ভূমি বিভিন্ন উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বা স্থানীয় কর্তৃপক্ষের অধীনে রয়েছে। অবশিষ্ট ৯৫ শতাংশ জমির কোনো মাস্টারপ্ল্যান নেই। এ কারণে আমরা একটা মাস্টারপ্ল্যান করে ভূমির পরিকল্পিত ব্যবহার নিশ্চিত করতে চাই। কৃষিজমিতে ঘরবাড়ি করা হলে কৃষিজমি কমবে—এটাই স্বাভাবিক। নালা বা জলাশয় ভড়াট করলে পরিবেশের বিপর্যয় হবে। সব কিছু মিলে ভূমির পরিকল্পিত ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। আইনটি পাস হলে আমরা সব জমির শ্রেণিবিভাজন করব। দুই ফসলি বা তিন ফসলি জমিতে বাড়ি করা যাবে না। বাড়ি করার অনুমোদনের জন্য সংশ্লিষ্টদের ঢাকা বা কোনো বিভাগীয় শহরে যেতে হবে না। তাঁরা বাড়ির পাশের ইউনিয়ন পরিষদ থেকে সে অনুমোন পাবেন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে এসব বিষয় তদারক করা হবে। কারো কোনো ভোগান্তি হবে না। ’

খসড়া আইনে বলা হয়েছে, ভূমির সার্বিক বিষয় তদারক করার জন্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রীর নেতৃত্বে ২৭ সদস্যের একটি নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা উপদেষ্টা পরিষদ গঠন করা হবে। আইন কার্যকর হলে সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিকে কোনো জমি ব্যবহার বা উন্নয়ন করার জন্য এই উপদেষ্টা পরিষদের কাছ থেকে ছাড়পত্র নিতে হবে। তবে উপদেষ্টা পরিষদ ছাড়পত্র দেওয়ার জন্য অন্য কোনো কর্তৃপক্ষকে ক্ষমতা দিতে পারবে। উপদেষ্টা পরিষদের কর্মপরিধি নির্ধারণ করে দিয়ে খসড়া আইনে বলা হয়েছে, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা এবং ভূমি ব্যবহার ব্যবস্থাপনার সঙ্গে সম্পর্কিত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নিবন্ধন দেবে এই পরিষদ। প্রচলিত অন্য কোনো আইন বা বিধিতে যাই থাকুক না কেন বিভিন্ন সংস্থা, প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি এই পরিষদের সুপারিশ অনুসরণ করবে। পরিষদের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ কাজের মধ্যে থাকবে—নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা এবং ভূমি ব্যবহার ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত প্রস্তাব অনুমোদন করা; সরকারি সংস্থার নেওয়া উন্নয়নকাজ এ আইনের আওতায় প্রণীত পরিকল্পনার সঙ্গে সমন্বয় করা; সব অধিদপ্তর, সংস্থা বা কর্তৃপক্ষের পরিকল্পনা ও ভূমি ব্যবহার সংক্রান্ত কাজের বিষয়ে দিকনির্দেশনা দেওয়া।

এ ছাড়া দৈনন্দিন কাজ করার জন্য থাকবে একটি নির্বাহী পরিষদ। এ পরিষদের চেয়ারম্যান হবেন গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিব। অন্যান্য সদস্য মিলে এটা হবে ২৫ জনের কমিটি। এখানে বিশেষজ্ঞসহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা থাকবেন। উপদেষ্টা পরিষদের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করবে এ পরিষদ।

প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড : গতকালের বৈঠকে নারী অভিবাসী কর্মীদের কল্যাণের বিশেষ দায়িত্ব দিয়ে ‘প্রবাসী কল্যাণ বোর্ড আইন, ২০১৭’ নামে নতুন একটি আইনের খসড়ারও নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

নতুন এ আইন কার্যকরের সঙ্গে সঙ্গে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ তহবিল বিধিমালা কার্যকারিতা হারাবে। অভিবাসী কর্মী, তাদের পরিবারের সদস্যদের অধিকার সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং কল্যাণের জন্যই এ আইন করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

এই বোর্ড অভিবাসীদের পরিবারের সদস্যদের কল্যাণার্থে প্রকল্প গ্রহণ ও পরিচালনা করবে; প্রবাসী কর্মী ও তাদের পরিবারের কল্যাণার্থে তহবিল থেকে অর্থ বরাদ্দ দেবে; বিদেশে বাংলাদেশ মিশনগুলোর মাধ্যমে প্রবাসীদের কল্যাণে কার্যক্রম পরিচালনা ও তত্ত্বাবধান করবে; অভিবাসী মৃত কর্মীর লাশ স্বদেশে ফেরত আনা এবং সৎকারে সহায়তা প্রদান করবে; অসুস্থ, আহত, পঙ্গু, অক্ষম প্রবাসীদের দেশে আনা এবং চিকিৎসায় সহায়তা দেবে; বিদেশে মৃত্যবরণকারীর পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেবে; প্রবাসীদের মৃত্যুজনিত ক্ষতিপূরণ, বকেয়া বেতন, ইন্স্যুরেন্সের অর্থ এবং সার্ভিস বেনিফিট আদায়ে সহায়তা করবে; প্রবাসী কর্মীদের মেধাবী সন্তানদের বৃত্তি প্রদান এবং তাদের আইনি সহায়তা দেবে; প্রবাসী কর্মীদের জন্য তথ্যকেন্দ্র, হাসপাতাল ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন ও পরিচালনা করবে।

এ ছাড়া বিদেশে কর্মরত কোনো নারী অভিবাসী বিপদগ্রস্ত বা দুর্ঘটনার শিকার হলে তাকে উদ্ধার করে দেশে ফেরত আনা, চিকিৎসা দান ও আইনি সহায়তা প্রদান করা; দেশে প্রত্যাগত নারী অভিবাসী কর্মীদের সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে পুনর্বাসন করা এবং নারী অভিবাসীদের নিরাপত্তার জন্য দেশে কিংবা বিদেশে সেফ হোম প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা করা হবে প্রবাসী কল্যাণ বোর্ডের কাজ।

এ ছাড়া গতকালের বৈঠকে বস্ত্র আইন-২০১৭, বালাইনাশক আইন-২০১৭, ভারতের সঙ্গে স্বাক্ষরের জন্য দুটি চুক্তির খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিসভা। এ ছাড়া তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি খাতে গবেষণার জন্য ফেলোশিপ এবং উদ্ভাবনীমূলক কাজের জন্য অনুদান প্রদান সম্পর্কিত নীতিমালা (সংশোধিত)-২০১৬-এর খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের প্রস্তাব অনুমোদন মন্ত্রিসভা বৈঠকে ২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস ঘোষণা এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিকভাবে দিবসটি পালনের জন্য মন্ত্রিপরিষদের জারি করা পরিপত্র ‘ক’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্তকরণের প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে। ‘ক’ ক্রমিকে অন্তর্ভুক্ত করার অর্থ হলো, দিবসটি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে পালন করা হবে। গত ১১ মার্চ জাতীয় সংসদে সর্বসম্মতভাবে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস পালনের প্রস্তাবে অনুমোদন দেওয়া হয়।

ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন 

শততম টেস্ট ম্যাচে শ্রীলঙ্কাকে হারানোর জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে অভিনন্দন জানিয়েছে মন্ত্রিসভা।

 


মন্তব্য