kalerkantho


গৌরবের শততম টেস্ট আজ শুরু

১৫ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গৌরবের শততম টেস্ট আজ শুরু

আরেকটা টেস্ট ম্যাচ। তবে শততম বলে কথা। বাংলাদেশের ১০০তম টেস্ট ম্যাচ আজ শুরু হচ্ছে শ্রীলঙ্কার পি সারা স্টেডিয়ামে। গতকাল তাই ক্যামেরার সামনে দাঁড়ানোর আগে অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম তুলে নিলেন লাল-সবুজ পতাকা। ছবি : মীর ফরিদ

মাঠে ঢুকলেই পুরনো পুরনো একটা গন্ধ পাওয়া যায়। এক পাশে বহুদিন বার্নিশ না করানো সারি সারি কাঠের বেঞ্চ পাতা তো আরেক পাশে সেই পুরনো দিনের ম্যানুয়াল স্কোরবোর্ড।

পি সারা ওভাল নামের তামিল ইউনিয়ন ক্রিকেট অ্যান্ড অ্যাথলেটিক ক্লাবের এই মাঠে যদিও আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া টেস্ট উপলক্ষে গতকাল একটি অস্থায়ী জায়ান্ট স্ক্রিন বসানোর কাজ চলছিল। কিন্তু কী করে যেন পুরনো ভাবটাই বড্ড মনে ধরে গেছে বাংলাদেশ দলের অনেকের। তাঁদের অন্যতম ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ, ‘এই মাঠে এলেই অন্য রকম ভালোলাগায় মনটা ভরে যায়। পুরনো পুরনো ব্যাপারটাই খুব ভালো লাগে। ’

পুরনো দিন ধরে রাখা মাঠে এসেই বাংলাদেশের শততম টেস্টে সদ্য পুরনো এক দায়িত্ব ফিরে পাচ্ছেন মুশফিকুর রহিমও। ব্যাটিং আর অধিনায়কত্বের সঙ্গে তিনি সব সময় প্রাণপণে উইকেটকিপিংটাও আঁকড়ে থাকতে চেয়েছেন। কিন্তু ভারতের বিপক্ষে হায়দরাবাদ টেস্টে উইকেটের পেছনে তাঁর পারফরম্যান্স আরো প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ার পর থেকেই এই দায়িত্ব থেকে তাঁকে অব্যাহতি দেওয়ার একটি আলোচনা ছিল। শ্রীলঙ্কায় প্রস্তুতি ম্যাচের আগে অনিচ্ছায় হলেও উইকেটকিপিং তাঁকে ছাড়তে হয়েছে। কিন্তু এক টেস্ট না যেতেই আবার তাঁকে এই দায়িত্ব ফিরিয়ে দিল লিটন কুমার দাশের চোট।

গত পরশু নেটে ব্যাটিংয়ের সময় বাঁ পাঁজরে বল লেগেছিল গল টেস্টে উইকেটকিপিং করা লিটনের। পরীক্ষায় চিড় ধরা পড়ায় অন্তত তিন সপ্তাহ লিটনের মাঠের বাইরে ছিটকে পড়ার খবর জানিয়ে ম্যানেজার মাহমুদ বলেছেন, ‘এই টেস্টে মুশফিকই উইকেটকিপিং করবে। ’ অবশ্য লিটনের চোটে একাদশ গঠনের ভাবনাও কিছুটা দিক পাল্টে থাকতে পারে। এমনিতে মাহমুদ উল্লাহর জায়গায় মোসাদ্দেক হোসেনকে টেস্ট অভিষেক করিয়ে দেওয়ার আলোচনা ছিল। আলোচনা ছিল মমিনুল হকের জায়গায় ইমরুল কায়েসকে নামানোরও। কিন্তু লিটনের চোটে একাদশ চূড়ান্তের বিষয়টি বিলম্বিত হচ্ছে বলেই মনে হলো মাহমুদের কথায়, ‘একাদশ ম্যাচের দিন সকালে ঠিক করা হবে। ’

তবে এর আগেই মাহমুদ উল্লাহ ইস্যুতে দলের মধ্যে ছড়িয়ে পড়া অস্বস্তি সামাল দেওয়ার চেষ্টাও শুরু হয়ে গিয়েছিল। তা ছাড়া দল যখন শ্রীলঙ্কার মাটিতে তাদের হারানোর সেরা সুযোগ মনে করে এসে গল টেস্টে হেরে বসে আছে, তখন সব মনোযোগ ম্যাচের দিকেই কেন্দ্রীভূত করা জরুরি বলেও মনে হচ্ছে মুশফিকুর রহিমের, ‘সবচেয়ে বড় কথা হলো আমরা ১-০ তে সিরিজে পিছিয়ে আছি। এখন যে-ই খেলুক, আমি খেলি বা না খেলি, ফলাফল আমাদের পক্ষেই আনতে হবে। এখানেই আমাদের সবার মনোযোগ। ’ শততম টেস্ট বলে প্রত্যাশাও বেশি।

অবশ্য স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের স্মৃতিধন্য মাঠ লঙ্কানদের জন্যও কম অনুপ্রেরণার নয়। এই মাঠে স্বাগতিকরা খেলেছে তাদের অভিষেক টেস্ট, পেয়েছে ইতিহাসের প্রথম টেস্ট জয়ও। তুলনায় বরং এই মাঠে বাংলাদেশের অভিজ্ঞতাই প্রীতিকর নয়। বাংলাদেশের সর্বনিম্ন ৬২ রানের টেস্ট ইনিংসটি যে এই পি সারা ওভালেই। সংবাদ সম্মেলনে সে প্রসঙ্গও উঠল। কিন্তু তাতে মুশফিককে খুব বিচলিত করা গেল না। পাল্টা বক্তব্যও যে তৈরি ছিল তাঁর, ‘রেকর্ড তো ভালো-মন্দ সবই থাকে। যেখানে শেষ টেস্টটা হারলাম, সেখানে কিন্তু একটা টেস্ট ড্র করার স্মৃতি ছিল। তার পরও এত বাজেভাবে হারব, এটা কখনো চিন্তা করিনি। ’

তবে চিন্তা আছে নতুনভাবে শুরুর। আগের টেস্টে বড় ব্যবধানে জেতার স্মৃতি ভুলে নতুন করে শুরু করতে চান লঙ্কান অধিনায়ক রঙ্গনা হেরাথও, ‘শততম টেস্ট খেলার জন্য বাংলাদেশকে অভিনন্দন। তবে আমাদের জন্য এটি আরেকটি ম্যাচ মাত্র। গলে আমরা জিতলেও এখানে কিন্তু আবার সেই শূন্য থেকেই শুরু করতে হবে। ’ শূন্য থেকে শুরু করতে পারছেন বলেই ঠিকঠাক খেলে ভালো কিছুর আশার বেলুন নতুন করে ফোলাতে পারছেন মুশফিকও, ‘আমাদের নতুন করে শুরু করতে হবে। এখানে শেষবার যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলে গিয়েছি, সেই দলের হেরাথ ছাড়া কেউ নেই। এখন ওদের বোলিং লাইন সম্পর্কেও একটা ধারণা হয়ে গেছে আমাদের। আমরা যদি মৌলিক ব্যাপারগুলো ঠিকঠাক করতে পারি, তাহলে ফলাফল আশা করি আমাদের পক্ষেই থাকবে। ’

নিজের হোম গ্রাউন্ডে একই প্রত্যাশা বাংলাদেশ দলের হেড কোচ চন্দিকা হাতুরাসিংহেরও, ‘সন্দেহ নেই পুরো জাতি আশা নিয়ে এই ম্যাচটির দিকে তাকিয়ে আছে। নিজের হোম গ্রাউন্ডে এমন উপলক্ষের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকতে পেরে আমি গর্বিত। আশা করি আমরা ভালো কিছুই করব। ’ সেই ‘ভালো কিছু’টা আরো স্পষ্ট মুশফিকের কথায়, ‘অবশ্যই শততম টেস্টে আমরা জয় নিয়ে ফেরার সর্বাত্মক চেষ্টা করব। ’ অনিচ্ছায় ছাড়া সদ্য পুরনো দায়িত্ব ফিরে পাওয়ার আনন্দও নিশ্চয়ই সর্বস্ব উজাড় করে দিতে অনুপ্রাণিত করবে মুশফিককে!


মন্তব্য