kalerkantho


বিকাশের মাধ্যমে প্রতারণা: বাগাতিপাড়ায় খোয়া গেল ওষুধ ব্যবসায়ীর অর্থ

বাগাতিপাড়া (নাটোর) প্রতিনিধি   

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ১৬:৩০



বিকাশের মাধ্যমে প্রতারণা: বাগাতিপাড়ায় খোয়া গেল ওষুধ ব্যবসায়ীর অর্থ

নাটোরের বাগাতিপাড়ায় বিকাশের মাধ্যমে এক অভিনব কায়দায় প্রতারণায় এক ওষুধ ব্যবসায়ীর অর্থ খোয়া গেছে। শনিবার বিকালে উপজেলার তমালতলা বাজারের রাফিন ফার্মেসির মালিক কামরুজ্জামান সান্টুর ওই প্রতারণায় ২৫ হাজার টাকা খোয়া যায়। তিনি উপজেলার চকহরিরামপুর গ্রামের মৃত আসমত মোল্লার ছেলে। 

আরো পড়ুন: নড়াইলে ইউপি চেয়ারম্যান হত্যা: মেম্বারসহ ৪ জনকে আদালতে প্রেরণ

কামরুজ্জামান সান্টু জানান, শনিবার সকালে তার ছোটভাই নূর আসাদ ঢাকা থেকে তার ব্যাক্তিগত বিকাশ নম্বরে দশ হাজার টাকা পাঠান। এরপর বিকাল ৪টায় বিকাশ লেখা আরো একটি এসএমএস আসে তার একই নম্বরে। এর পর পরই ০১৮৫৫০১৬০১৪ নম্বর থেকে একটি কল করা হয়। এতে প্রতারক জানান যে তিনি বিকাশের  কাস্টমার কেয়ার সার্ভিস থেকে বলছেন। সেখান থেকে বলা হয় যে, সান্টুর নম্বরে ভুলক্রমে অতিরিক্ত ৯ হাজার ৯৫০ টাকা এসেছে। তাই ওই টাকা ০১৮৫৮৮৬০৪৮৯ নম্বরে ফেরত দেওয়ার অনুরোধ করেন। এসএমএস দেখে সরল মনে সান্টু ওই টাকা দ্রুত সেন্ড মানি করেন নম্বরটিতে। 

এরপর আবারো সান্টুকে ফোন করে প্রতারক জানায়, এবার সান্টুর ব্যাক্তিগত বিকাশ নম্বরটি থেকে অতিরিক্ত ৯ হাজার ৯৫০টাকা সেন্ড মানি হয়েছে। ওই টাকা ফেরত পেতে সান্টুকে আরও ১৫ হাজার টাকা দ্রুত বিকাশ করে একটি পিন নম্বর নেওয়ার অনুরোধ করে প্রতারক। পিন নম্বর দিয়ে ডায়াল করলে তবেই আগের টাকাসহ সব টাকা ফেরত পাবে সান্টু এমন কথা জানানো হয়। সান্টু প্রতারকের ফাঁদে পা দিয়ে প্রতারকের দেওয়া ০১৮৩০৯৮৯০০৬ নম্বরে আবারো দ্রুত ১৫ হাজার টাকা পাঠিয়ে দেন। এরপর প্রতারকের নম্বরগুলো বন্ধ পাওয়া যায়। 

আরো পড়ুন: ঢাকায় বসে নীলফামারীতে টিচার্স ট্রেনিং কলেজ চালান অধ্যক্ষ!

তখন সান্টু বুঝতে পারেন তিনি প্রতারণার শিকার হয়েছেন। এরপর তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে বিষয়টি বাগাতিপাড়া মডেল থানাকে অবহিত করেন তিনি। 



মন্তব্য