kalerkantho

রবিবার । ৯ মাঘ ১৪২৮। ২৩ জানুয়ারি ২০২২। ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

♦ গ্রুপ-১
♦ অস্ট্রেলিয়া ♦ ইংল্যান্ড ♦ ওয়েস্ট ইন্ডিজ ♦ এ-১ ♦ বি-২

দক্ষিণ আফ্রিকা

টি-টোয়েন্টি র‌্যাংকিং : ৫

১৭ অক্টোবর, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দক্ষিণ আফ্রিকা

র‌্যাংকিংয়ে খানিকটা ওপরের দিকে থাকলেও শিরোপা জয়ে প্রোটিয়ারা বাজির কালো ঘোড়া নয়! যদিও ক্রিকেট গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা, কথাটা আরো বেশি করে প্রযোজ্য টি-টোয়েন্টিতে। তবু প্রোটিয়াদের শিরোপা জয়ের পক্ষে বাজি ধরার লোক হয়তো কমই পাওয়া যাবে। সাদা বলের বৈশ্বিক আসরে তাদের অতীত যে মোটেও গৌরবের নয়। ১৯৯৮ সালে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জেতা ছাড়া বৈশ্বিক কোনো আসরের ফাইনালেও উঠতে পারেনি প্রোটিয়ারা।

বিজ্ঞাপন

সেখানে আবার টেস্ট, ওয়ানডে এবং টি-টোয়েন্টি—ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই তারা একটা ক্রান্তিকাল পার করছে।

সুপার টুয়েলভের দুই প্রতিপক্ষ অস্ট্রেলিয়া ও ইংল্যান্ডের কাছে সর্বশেষ সিরিজে হেরেছে। এত হতাশার মধ্যে আশাপ্রদ হওয়ার তথ্যও অবশ্য আছে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তাদের রেকর্ড রীতিমতো ঈর্ষণীয়। এ বছরও ক্যারিবীয়দের তাদের মাটিতেই হারিয়ে এসেছে। দুবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে চমক জাগানিয়া ওই সাফল্য আমিরাতের আসরেও ভালো করতে তারুণ্যে ভরপুর প্রোটিয়াদের জোগাচ্ছে আত্মবিশ্বাসের জ্বালানি।  

 

সেরা তারকা

কুইন্টন ডি কক

তারুণ্যনির্ভর দক্ষিণ আফ্রিকা দলের অন্যতম ভরসার নাম কুইন্টন ডি কক। ২০১৬ সালে ভারতে অংশ নেওয়া প্রোটিয়াদের যে তিনজন আমিরাতেও আছেন তাঁদের একজন অভিজ্ঞ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটার। এ নিয়ে তৃতীয়বার খেলছেন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে। সাম্প্রতিক সময়ে তুখোড় ছন্দেও আছেন ডি কক। আর এই ছন্দটাকে কাজে লাগিয়ে বিশ্বকাপের আক্ষেপও ঘুচাতে চান, ‘আমার ক্ষুধাটা বিশ্বকাপ জেতা। বিশেষ করে এই দলটা নিয়েই। আমরা সঠিক পথেই আছি। ’ ডি ককের ব্যাট কতটা হাসবে তার ওপরই হয়তো নির্ভর করবে প্রোটিয়াদের ভাগ্যও! 

 

কোচ

মার্ক বাউচার

ক্রিকেটকে সঠিক কক্ষপথে ফিরিয়ে আনতে একঝাঁক সাবেকের শরণাপন্ন দক্ষিণ আফ্রিকা। এই দায়িত্বে প্রধান কোচের ভূমিকায় মার্ক বাউচার। সর্বকালের অন্যতম সেরা এই উইকেটরক্ষক ব্যাটারের কোচিংয়ে বিশ্বকাপের অতৃপ্তি কি ঘুচবে প্রোটিয়াদের!

 

স্কোয়াড

টেম্বা বাভুমা (অধিনায়ক), কুইন্টন ডি কক, বিয়র্ন ফুরটুইন, রিজা হেন্ডরিকস, হেইনরিচ ক্লাসেন, কেশব মহারাজ, এইডেন মারক্রাম, ডেভিড মিলার, উইয়ান মুলডার, লুঙ্গি এনগিডি, এনরিচ নোরজে, ডোয়াইন প্রিটোরিয়াস, কাগিসো রাবাদা, তাবারাইজ শামসি এবং রসি ফন ডার ডুসেন।

 

পারফরম্যান্স

২০০৭ :    সুপার এইট

২০০৯ :    সেমিফাইনাল

২০১০ :    সুপার এইট ২০১২    :    সুপার এইট

২০১৪ :    সেমিফাইনাল

২০১৬ :    সুপার টেন

 

পরিসংখ্যান

♦ ৩০ ম্যাচে জয় ১৮ হার ১২। সাফল্যের হার ৬০ শতাংশ।

♦ সর্বোচ্চ ৭১৭ রান এবি ডি ভিলিয়ার্সের। সর্বোচ্চ ৩০ উইকেট ডেল স্টেইনের।



সাতদিনের সেরা