kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

যোগীন্দ্রনাথ সরকার

২১ জুন, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



যোগীন্দ্রনাথ সরকার

‘অ—অজগর আসছে তেড়ে

আ—আমটি আমি খাবো পেড়ে

 ই—ইঁদুরছানা ভয়ে মরে

ঈ—ঈগল পাখি পাছে ধরে।’

 

তুমি তো তুমি, বর্ণ পরিচয় শেখার সময় তোমার বাবা-মা, চাই কী তোমার দাদা-নানারাও মহানন্দে এই ছড়া পড়ে পড়ে বড় হয়েছে। ছড়াকারের নাম জানো? উঁহু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর নয়, যোগীন্দ্রনাথ সরকার। তাঁর ‘হাসিখুশি’ বইয়ে পুরো ছড়াটিই আছে। খুঁজে পেতে পড়তে পারো। যোগীন্দ্রনাথ বাবুর জন্ম ১৮৬৬ সালে ২৮ অক্টোবর চব্বিশ পরগনার জয়নগরে। আদি নিবাস ছিল বাংলাদেশের যশোরে। বাবা নন্দলাল দেব সরকার ও মা থাকমণি দেবী। ছোটবেলায় খুব দুরন্ত ছিলেন। ‘দুষ্টু তিনু’, ‘পেটুক দামু’, ‘সাধে বাদ’—এসব পড়লে সেটা বেশ টের পাওয়া যায়। আর্থিক অনটনের জন্য লেখাপড়া শেষ না করেই স্কুলে শিক্ষকতা শুরু করতে হয় তাঁকে। ভালোই হয়েছে। স্কুলের বইয়ে শিশুসাহিত্যের দুরবস্থা দেখেই সম্ভবত শিশুসাহিত্য রচনায় মন দেন তিনি। রচনা করেছেন চমৎকার সব ছড়া। ‘হারাধনের দশটি ছেলে’র এক এক করে হারিয়ে যাওয়ার মধ্য দিয়ে বিয়োগের অঙ্ক শেখানোটা খুবই আকর্ষণীয় করে তুলেছেন। পড়ার বইয়ের বাইরেও ছোটদের জন্য বই লেখা যেতে পারে, ছাপা যেতে পারে, একসময় তা ভাবাই হতো না। ১৮৯১ সালে তাঁর সংকলিত ‘হাসি ও খেলা’ বাংলায় প্রকাশিত প্রথম সচিত্র শিশুপাঠ্য বই। তাঁর কালজয়ী বই ‘হাসিখুশি’। সত্তরের বেশি বই লিখেছেন, সম্পাদনাও করেছিলেন। আগামী ২৬ জুন তাঁর মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৩৭ সালের এই দিনে কলকাতায় শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।