kalerkantho

শুক্রবার । ৩ বৈশাখ ১৪২৮। ১৬ এপ্রিল ২০২১। ৩ রমজান ১৪৪২

[ তোমাদের লেখা তোমাদের আঁকা ]

রিজুর বায়না

দেবশ্রী দেবী প্রমা, ষষ্ঠ শ্রেণি, প্রীতম কিন্ডারগার্টেন অ্যান্ড মডেল হাই স্কুল

১ মার্চ, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রিজুর বায়না

মানহার চোখে নাসার মঙ্গল অভিযান , মানহা উমামা হাসান মানারাত ঢাকা ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজে কেজি ওয়ানে পড়ে

রিজু এ বছর প্রথম থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উঠল। বছরের দ্বিতীয় দিন সে তার মায়ের হাত ধরে স্কুলে গিয়ে নতুন শ্রেণির বই নিল। নতুন বইয়ের সুগন্ধ নিতে নিতে খুশি মনে বাড়ি ফিরল। কিন্তু বইগুলো এনে টেবিলের ওপর রাখল, আর খুলতে চাইল না। মাসহ পরিবারের সবাই তাকে বই পড়ার কথা বললে নানা অজুহাত দেখিয়ে পড়তে চায় না। এক দিন তার মা বলল, ‘সামনে পরীক্ষা। একটু হলেও পড়ো।’ উত্তরে রিজু বলল, ‘পরীক্ষা ছাড়াই তো প্রথম থেকে দ্বিতীয় শ্রেণিতে উঠলাম। তৃতীয় শ্রেণিতে উঠতে গিয়ে আবার পরীক্ষা লাগবে কেন?’ তখন তার মা হেসে হেসে বলল, ‘করোনার জন্য গত বছর পরীক্ষা হয়নি। এবার তো হবেই।’ এটা শোনার পর রিজু চিৎকার করে বলতে থাকল ‘হে ভগবান, তুমি করোনাকে পৃথিবীর মানুষের জন্য চিরস্থায়ীভাবে দিয়ে দাও, যেন আর কোনো দিন পরীক্ষা দিতে না হয়।’

রিজুর মা তাকে বলল, ‘ভগবান এত নির্দয় নন। তাই তোমার কথা শুনবেন না।’ রিজু আর কথা না বাড়িয়ে মাকে বলল, ‘তুমি যদি আমাকে একটি গল্প শোনাও, তবেই আমি পড়তে বসব।’ এতে মা রাজি হয়ে একটি গল্প বলতে লাগল : ‘এক দিন গভীর রাতে রাজপথে কতগুলো কুকুর ঘুমিয়ে ছিল। ওই দিন রাতে দুজন চোর চুরি করে ঘুমন্ত কুকুরগুলোর পাশ দিয়ে যাচ্ছিল। কুকুরের ঘুম খুবই পাতলা বিধায় ঘুম ভেঙে গেল। সব কুকুরের ঘেউঘেউ আওয়াজে টহলরত পুলিশ চোর দুটিকে ঘেরাও করে ধরে ফেলল। থানায় নিয়ে চোরকে মারতে মারতে অবস্থা কাহিল করে দিল।’ এই বলে রিজুর মা গল্পটি শেষ করল। গল্প শুনতে শুনতে রিজু যে কখন ঘুমিয়ে পড়ল টেরই পেল না। যখন ঘুম ভাঙল তখন দেখল সূর্য উঠে গেছে।

মন্তব্য