kalerkantho

রবিবার । ১০ মাঘ ১৪২৭। ২৪ জানুয়ারি ২০২১। ১০ জমাদিউস সানি ১৪৪২

[ লি ট ল মা স্টা র ]

১৩ বছরের বালিকার ১৩ লাখ ভক্ত

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১৩ বছরের বালিকার ১৩ লাখ ভক্ত

মেক্সিকোর মেয়ে জেসিকা। লোকে চেনে জেসি নামে। ২০০৭ সালের ১৩ নভেম্বর জন্ম তার। মেক্সিকোর একজন ইউটিউব সুপারস্টার সে। তার চ্যানেলের নাম সয় জেসি। মানে আমি জেসি। ২০১৫ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ইউটিউবে নিজের চ্যানেলটি চালু করে সে। পরদিনই ‘শপিং অব দ্য ডে’ নামে প্রথম ভিডিও আপলোড করে। এর পর থেকে ধীরে ধীরে ইউটিউবে তার জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে। গান, ঘোরাঘুরি, মজার খেলাসহ শিশুদের নিয়ে ওদের জন্য দারুণ সব ভিডিও বানায় সে। এ কাজে তার বড় ভাই পেপে তাকে সাহায্য করেন। এখন তার চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার প্রায় ১৩ লাখ। ১৭৭টি ভিডিও আছে চ্যানেলে। এর মধ্যে কমপক্ষে ১০ লক্ষাধিকবার দেখা হয়েছে এমন ভিডিও আছে ২০টির বেশি। যেমন ‘রোস্ট ইওরসেলফ চ্যালেঞ্জ’ শিরোনামের ভিডিওটির ভিউ তো কোটির ঘর ছাড়িয়েছে। তার সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিও ‘বিদায়... মা’। এ পর্যন্ত এক কোটি ১৫ লাখেরও বেশিবার দেখা হয়েছে সেটি। অবশ্য এই ভিডিওটি তৈরির পেছনে একটি করুণ ঘটনা আছে। যে ঘটনার কারণে ২০১৮ সালে ইউটিউবে ভিডিও পোস্ট করা বন্ধ করে দিয়েছিল। সে বছর জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে হারায় জেসি। একদিন জেসির মা অ্যালিসিয়ার শরীর খারাপ হয়। প্রচণ্ড ব্যথা। তিনি সহ্য করতে পারছিলেন না। একসময় তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়। জেসির মায়ের ক্যান্সার ধরা পড়ে। কিছুদিন পর তিনি মারা যান।

তার মা চেয়েছিলেন যেন কেউ তাঁকে ভুলে না যায়। সে জন্যই মাকে নিয়ে একটা ভিডিও তৈরি করে জেসি। স্প্যানিশ ভাষায় ভিডিওটির শিরোনাম ‘হাস্তা সিয়ামপ্রে ...মামা (Hasta siempre... Mamá) মানে বিদায়... মা। জেসির যমজ খালা এখানে মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। ভিডিওটি দেখে অসংখ্য লোক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে। জেসির জন্য এটা সুখবর। কারণ তার চ্যানেলটি আবার হিট হয়েছে।

মজার ব্যাপার হলো, জেসির কোনো স্ক্রিপ্টের প্রয়োজন হয় না। ক্যামেরার সামনে সে স্বতঃস্ফূর্তভাবে কথা বলতে পারে।

অল্প বয়সে শুরু করার কারণে সে খুব সহজেই তার ফ্যানদের সঙ্গে মিশতে পারে। জেসি বলছিল, বিখ্যাত হতে আমার ভালো লাগে। যখন দেখি লোকে আমার ভিডিও দেখে খুশি হচ্ছে, তখন আমার ভালো লাগে।

দর্শকসংখ্যা কমে গেলে তুমি কি চিন্তিত হও? এমন প্রশ্নের জবাবে জেসি জানাল, ‘হ্যাঁ, কখনো কখনো। কারণ মানুষ আমার কনটেন্ট দেখলে খুশি হই।’

‘আগে লাখ লাখ লোক তোমার ভিডিও দেখত। কিন্তু এখন?’

এখন অত লোকে দেখে না। কারণ আমি মাঝখানে ইউটিউব ছেড়ে দিয়েছিলাম। আমার মা মারা গিয়েছিলেন। আমার ভালো লাগত না। তাই সরে গিয়েছিলাম। জেসির ভাই পেপে বললেন, ‘আমরা সবাই ওর খুব যত্ন নিই। ওকে আগলে রাখি।’ সূত্র : বিবিসি, ফেমাসবার্থডেজডটকম

পিন্টু রঞ্জন অর্ক

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা