kalerkantho

মঙ্গলবার । ৪ কার্তিক ১৪২৭। ২০ অক্টোবর ২০২০। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

[ খে লা খে লা ]

অ্যাংরি বার্ডস

হয়তো, গেম অ্যাংরি বার্ডস তোমরা সবাই খেলেছ। তবে মনে হয় না খেলে ফেলে দিয়েছ। প্রায়ই নতুন চেহারায় হাজির হয় রাগী পাখিগুলো। সর্বকালের সেরা গেমগুলোর একটি অ্যাংরি বার্ডস। লিখেছেন জান্নাতুল ফেরদৌস মীম

১৯ অক্টোবর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অ্যাংরি বার্ডস

২০০৯ সালে গেমটা প্রথম বাজারে আসে। ওই যে নানা রঙের অনেক পাখি, যাদের ডিম চুরি করে নিয়ে যায় একদল সবুজ রঙের শূকর। ডিম উদ্ধারের জন্য পাখিগুলো গুলতি মেরে শূকরদের আস্তানা ভেঙে তাড়িয়ে দেয়। এখন তো বলবে, হ্যাঁ হ্যাঁ, মনে পড়েছে।

আচ্ছা, গেমটায় কয়টা রঙের পাখি আছে খেয়াল করেছ? তোমরা মনে করতে থাকো। এই ফাঁকে বলে নিই, রোভিও এন্টারটেইনমেন্ট এই গেম তৈরি করেছে। ফিনল্যান্ডের একটি গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠান রোভিও।  ২০১১ সালে রোভিও অ্যাংরি বার্ডস রিও আনে বাজারে। সেবারই ৫০০ মিলিয়ন মানে ৫০ কোটি বার ডাউনলোড হয়ে যায় অ্যাংরি বার্ডস। পরের বছরের ফেব্রুয়ারিতে আসে অ্যাংরি বার্ডস ফ্রেন্ডস। মার্চে অ্যাংরি বার্ডস স্পেস। নভেম্বরে অ্যাংরি বার্ডস স্টার ওয়ারস। ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে আসে অ্যাংরি বার্ডস স্টার ওয়ারস ২। ডিসেম্বরে অ্যাংরি বার্ডস গো। পরের বছরের জুনে আসে অ্যাংরি বার্ডস এপিক। ২০১৪ সালের জানুয়ারিতেই গেমটি ২০০ কোটি বার ডাউনলোড হয়ে যায়। পরের এক বছরের মাথায় সংখ্যাটি ৩০০ কোটিতে দাঁড়ায়।   ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে রোভিও রাগী পাখিগুলোর ১৮তম খেলাটি এনেছে, যার নাম আংরি বার্ডস : আইল অব পিগস।

কী, মনে পড়েছে রংগুলোর কথা? আচ্ছা, আমিই বলে দিই—লাল, হলুদ, নীল, কালো, সাদা, গোলাপি আর সবুজ। মোটমাট সাত রঙের পাখি আছে গেমটায়। লাল রঙের পাখি প্রতিটি লেভেলের শুরুতে থাকে। হলুদ রঙের পাখিগুলোকে বলা হয় চাক, যাদের কাজ গতি বাড়ানো। নীল রঙের পাখিগুলোকে বলা হয় দ্য ব্লুজ। ওদের কাজ বোমা নিক্ষেপ করা। সাদা রঙের পাখিগুলোর কাজ হচ্ছে ডিম আকৃতির অস্ত্র ছোড়া। এদের নাম হলো মাতিলদা। গোলাপি রঙের পাখির নাম স্টেলা। এদের কাজ হলো কমলা রঙের পাখির কাছে অস্ত্র পাঠানো। সবুজ রঙের পাখিটাকে বলা হয় হেল। আরেকটা যে বড় লাল রঙের পাখি আছে, সেটাকে বলা হয় ট্যারেন্স। এর কাজ হচ্ছে শূকরদের আস্তানা ভাঙার জন্য দ্রুত সহায়তা করা।

শূকরদেরও ভাগ আছে। তাদের শক্তি বা টিকে থাকার ক্ষমতা নির্ভর করে তাদের আকৃতির ওপর। ছোটগুলো সাধারণত দুর্বল হয় আর এদের ধ্বংস করে ফেলাও সহজ। কিছু শূকর দেখেছ, যেগুলোর মাথায় টুপি আর গায়ে বর্ম—তাদের ধ্বংস করতেও বেশি পাখির দরকার হয়। গেমের প্রথম লেভেল সহজ হলেও ধীরে ধীরে কঠিন ও সৃজনশীল হতে থাকে। একপর্যায়ে রোভিও অ্যাংরি বার্ডের কমিক বুক, মুভি, এনিমেশন সিরিজ বাজারে আনে। এগুলোর মধ্যে অ্যাংরি বার্ডস : দ্য বিগ গ্রিন ডুডল বুক, দ্য বিগ রেড ডুডল বুক বেশ জনপ্রিয় হয়। ২০১৬ সালে প্রথম দ্য অ্যাংরি বার্ডস মুভি হয়।

এবার একটা মজার খবর দিয়ে শেষ করি, কলম্বিয়ার পপ শিল্পী শাকিরাকেও অনেকে চেনো। ২০১০ সালের ফুটবল বিশ্বকাপে তিনি গেয়েছিলেন ওয়াকা ওয়াকা দিস টাইম ফর আফ্রিকা। এবার বলো যদি শাকিরাকে এই গেমটিতে দেখা যায় তাহলে কেমন হয়? সত্যি শাকিরা নয়, তবে শাকিরার চেহারা নিয়ে একটি পাখি তৈরি করে নতুন অ্যাংরি বার্ডস আনার কথা ভাবছেন নির্মাতারা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা