kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১ শ্রাবণ ১৪২৭। ১৬ জুলাই ২০২০। ২৪ জিলকদ ১৪৪১

কেমন করে ঈদ কাটাব

২২ মে, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



 কেমন করে ঈদ কাটাব

প্রতিবছর ঈদ নিয়ে তোমাদের কত শত পরিকল্পনা। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে নেই সেই আমেজ। তবে ঘরে বসে ঈদ কাটানোর পরিকল্পনা করছ হয়তো। মুঠোফোনে তোমাদের কয়েকজন বন্ধুর ঈদের দিনের পরিকল্পনা শুনেছেন জুবায়ের আহম্মেদ

ভার্চুয়াল আড্ডার আয়োজন করব

স্বর্ণময়ী ইসলাম

প্রতিবার ঈদ করতে গ্রামের বাড়িতে যাওয়া হতো। এবার যেহেতু যেতে পারছি না তাই দলবেঁধে বন্ধুদের সঙ্গে ঈদগাহে যাওয়াটা খুব মনে পড়বে। এবার ঈদের সালামিটাও কমে গেল। ঈদের দিন সকালে সবাই মিলে খাওয়াদাওয়া করব। তারপর পাশের বাসার বান্ধবীর সঙ্গে জানালা দিয়ে শুভেচ্ছা বিনিময় করব। আমার স্কুলের বান্ধবীদের অনেক মিস করি, ওদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলব। ভার্চুয়াল আড্ডার আয়োজন করব ঈদের দিন। আমি পুডিং খেতে খুব পছন্দ করি। আপুকে বলব আমার জন্য পুডিং বানাতে। আমার আপু আবার পুডিং বানাতে খুব দক্ষ। আর এ কাজে আমি ওকে সাহায্য করব। তারপর বিকেলে সবার সঙ্গে ছাদে গিয়ে ঘুড়ি ওড়াব।

সেমাই খেয়ে কম্পিউটারে গেমস খেলতে বসব

মুয়াজ বিন জসিম

ঈদের নামাজ পড়তে যেতে পারব কি না জানি না। তবে ঈদের দিন নতুন পাঞ্জাবি, জুতা পরব। এগুলো কিন্তু এসময় মার্কেটে গিয়ে কেনা নয়। আগের কেনা ছিল, কখনো পড়া হয়নি। ঈদের দিন সেমাই খেয়ে কম্পিউটারে গেমস খেলতে বসব। কী আর করা, করোনার কারণে তো কারো বাসায় বেড়াতে যেতে পারব না। তবে বন্ধুদের ভিডিও কল দেব। মোবাইলের স্ক্রিনে তাদের সঙ্গে সেলফি তুলব। আড্ডা দেব। তখনো তাদের বলব হ্যান্ডওয়াশ দিয়ে বারবার হাত ধোও। দুপুরের টিভিতে কার্টুন দেখব। আর বিকেলে মামার সঙ্গে ক্রিকেট খেলব। আমাদের বাসার একটি রুমকে ক্রিকেট মাঠ বানিয়ে ফেলেছি আমি আর মামা।

লুডু খেলব দাদা-দাদির সঙ্গে

মাইমুনা হক মিতা

এবারের ঈদে আমার নতুন জামা পরা হবে না। তবে এ জন্য একদম মন খারাপ করি না। সবাই নিরাপদে থাকলে আগামী ঈদে অনেক শপিং করতে পারব। ঈদের দিনের পরিকল্পনা তো করেছি একটা। সকালে সবাইকে সালাম করে ঈদ সালামি নেব। আগেরবারের তুলনায় সালামির ওজনটা কমে যাবে। কারণ আমার ভ্যানিটি ব্যাগটি আত্মীয়দের বাসায় তো আর যেতে পারছে না। তবে সবার সঙ্গেই ভিডিও কলে কথা বলব। আর ডিজিটালি সালামি আদায় করব। ছোট চাচ্চুর বিকাশ নম্বর দিয়ে দেব। বাইরে যাওয়া তো বারণ। তাই দাদা-দাদির সঙ্গে বাসায় বসেই লুডু খেলব। এর ফাঁকে  আম্মুকে বলব পছন্দের বিরিয়ানি রান্না করতে। সবাইকে ঘরবন্দি ঈদের শুভেচ্ছা।

ছাদে উঠে পাশের বাসার বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেব

ইসতিয়াক আহমেদ তাসিন

ঈদুল ফিতর আমার সবচেয়ে পছন্দের একটা দিন। কিন্তু করোনার কারণে এবারে ঈদটা একটু আলাদা হবে। সকালে আম্মুর হাতের রান্না করা সেমাই খেয়ে বাবা ও চাচ্চুদের সঙ্গে বাসায় ঈদের নামাজ পড়ব। নামাজ শেষে কোলাকুলিটা সেরে নেব। তারপর সালামি নেওয়ার পালা। আম্মু, আব্বু , চাচ্চু, বোনের কাছ থেকে ঈদ সালামি নেব। আমরা আর চাচ্চুরা এক বাসায় থাকি। তাই খাওয়াদাওয়া করে চাচাতো ভাই-বোন সবাই মিলে গল্প করতে বসব। সবাই মিলে সেলফি তুলব। বিকেলে বাসার ছাদে উঠে পাশের বাসার বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেব। আর সন্ধ্যায় কম্পিউটারে গেমস খেলতে বসব। তবে সারা দিন সবার হাত ধোওয়ার তদারকিটা আমিই করব।   

সালামির কথা ভেবে আগে থেকেই খারাপ লাগছে

মো. নাকিবুল আলম

এবার ঈদে গ্রামের বাড়ি যেতে পারছি না। ঈদগাহ মাঠেও নামাজ পড়তে যাওয়া হবে না এবার। তাই বাবা ও বড় ভাইয়ের সঙ্গেই মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়ে আসব। নামাজ পড়ে বাসায় ফিরেই মায়ের হাতে রান্না করা মজার সেমাই খাব। এবার সালামির কথা ভেবে আগে থেকেই খারাপ লাগছে। পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে এবার দেখা হবে না। সালামিও মিলবে না। তবে বাবাকে আগে থেকেই বলে রেখেছি এবার যেন বেশি সালামি দেয়। আম্মু বলেছেন, ঈদের দিন আমার জন্য চকলেট কেক বানিয়ে দেবেন। ঈদের দিনটা ঘরে বসেই টিভিতে বিভিন্ন প্রগ্রাম দেখেই কাটাব। আর বিকেলে আম্মুর সঙ্গে ছাদের বাগানে যাব। স্কুলের বন্ধুদের সঙ্গে মোবাইলেই শুভেচ্ছা বিনিময় করব।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা