kalerkantho

মঙ্গলবার  । ২০ শ্রাবণ ১৪২৭। ৪ আগস্ট  ২০২০। ১৩ জিলহজ ১৪৪১

পোশাক কিনুন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অ্যাপে

দোকানে না গিয়েও গায়ের মাপে ঠিকঠাকমতো পোশাক কেনার সুবিধা আছে ‘জিকিট’ অ্যাপে। এই অ্যাপের বিশেষত্ব হচ্ছে, এটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ও ডিপ লার্নিংয়ের সমন্বয়ে কাজ করে থাকে। বিস্তারিত জানাচ্ছেন তামজীদ রহমান লিও

১২ জুলাই, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পোশাক কিনুন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার অ্যাপে

অনলাইনে জামাকাপড় কেনার মূল সমস্যা হলো, অনেক সময় শরীরের মাপ অনুযায়ী পোশাক পাওয়াই যায় না। একটু উনিশ-বিশ হয়েই যায়। একই সঙ্গে পোশাকটি গায়ে ধরে নিজেকে কেমন লাগবে, সেটিও বোঝার কোনো উপায় থাকে না। সেই ঝামেলা দূর করতে যুক্তরাজ্যে চালু হয়েছে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং ডিপ লার্নিংয়ের সমন্বয়ে তৈরি অ্যাপ ‘জিকিট’। এটি দিয়ে বাস্তবিক জীবনে পোশাক কেনার সুবিধা ঘরে বসেই পাওয়া যাবে।

ইসরায়েলের তৈরি এই অ্যাপ্লিকেশনটি কম্পিউটার ভিশন প্রযুক্তি ব্যবহার করে অনলাইন কেনাকাটাকে এক অন্য পর্যায়ে নিয়ে গেছে। এই প্রযুক্তি আসলে ইসরায়েল বিমানবাহিনীর রাডার মিশনে ব্যবহৃত হয়, যার মাধ্যমে যেকোনো সমতলে অবস্থান করা ব্যক্তি বা বস্তুর দ্বিমাত্রিক আকৃতিকে ত্রিমাত্রিক আকৃতিতে প্রদর্শন করতে পারে। এই জিকিট অ্যাপ্লিকেশনেও একই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে। এই প্রযুক্তিতে ব্যবহৃত পদ্ধতিতে প্রথমে যেকোনো জুতা বা কাপড়ের ছবি তোলা হয়, এরপর সেই ছবিটিকে ৮০ হাজার অংশে বিভক্ত করা হয়। সেই অংশগুলোকে ম্যাপিং করে যেকোনো মানুষের শরীরে বসানো হয়। এতে ব্যক্তিটি সরাসরি বুঝতে পারে যে তার দৈহিক আকৃতিতে ওই জুতা বা পোশাকটি পরলে তার শরীরে কেমন ফিট হবে কিংবা তাকে দেখতেই বা কেমন হবে।

এই অ্যাপের মাধ্যমে ছবি তুলতে হলে অপেক্ষাকৃত ফিট কাপড় যেমন—টাইট ফিটিং গেঞ্জি, হাফপ্যান্ট পরে ছবি তুলতে হবে। এতে অ্যাপটির জন্য শরীরের সঠিক আকৃতি নির্ণয় করা সহজ হয়। ছবি তোলা হয়ে গেলেই ছবিটি প্রসেসিংয়ে যায়। এরপর পোশাক বা জুতা নির্ধারণ করলে ছবির মডেলটি বদলে ব্যবহারকারী নিজে অ্যাপ্লিকেশনটিতে মডেল হিসেবে প্রদর্শিত হয়। শুধু তাই নয়, অ্যাপটি ব্যবহারকারীকে তার শারীরিক গঠন ও রঙের সঙ্গে কোন ধরনের পোশাক মানাবে সেটিও প্রস্তাবনা হিসেবে দেখায়।

অ্যাডিডাস, টপশপ, ফরএভার টোয়েন্টিওয়ানসহ শত শত ব্র্যান্ডের পণ্য জিকিট অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ঘরে বসেই ট্রায়াল দিয়ে কেনা যাবে। এই অ্যাপটিতে এসব ব্র্যান্ডের পণ্য সিস্টেম অনুযায়ী আপডেট হয়ে যায়। কোনো পণ্য শেষ হয়ে গেলে, নতুন কোনো পণ্য এলে এবং কোনো পণ্যের ওপর মূল্যছাড় থাকলে সেটিও সরাসরি তৎক্ষণাৎ মূল ওয়েবসাইট থেকে আপডেট নিয়ে নেয়। পাশাপাশি ব্যবহারকারী কোনো পণ্য কিনতে চাইলে অ্যাপটি সরাসরি সেই পণ্যের মূল ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট পেজে নিয়ে যায়। আপাতত এই অ্যাপ দিয়ে ব্যবহারকারী পছন্দের পণ্যের শুধু সম্মুখভাগ দেখতে পায়, পাশের বা পেছনের অংশ ঘুরিয়ে দেখা যায় না। বাড়তি ফিচার হিসেবে আছে অ্যাপ থেকে পছন্দ করা পোশাকগুলো নিজস্ব কার্ডে রাখা এবং নিজের পছন্দের কোনো কাস্টম ডিজাইন থাকলে সেটি শেয়ার করার সুবিধাও। তার চেয়েও মজাদার ব্যাপার হলো, ব্যবহারকারী এই অ্যাপের মাধ্যমে তার বন্ধু-বান্ধব কী কিনছে, কেমন ফ্যাশন তারা ফলো করছে এই তথ্যগুলোও পাবে, বিশেষ করে নারী ক্রেতারা এই ফিচারের জন্যই জিকিট অ্যাপটি বেশি পছন্দ করছে এবং হালফ্যাশনের সঙ্গে নিজেরা তাল মিলিয়ে চলতে পারছে।

অ্যাপটির পরবর্তী সংস্করণে যেকোনো ড্রেসের ছবি আপলোড দিয়ে ট্রায়াল করার ব্যবস্থা থেকে শুরু করে লিঙ্গ নির্ধারণে পুরুষ, নারীর পাশাপাশি ইউনিসেক্স (যেকোনো লিঙ্গের সঙ্গে যায়) অপশন থাকবে।

অ্যাপটি অ্যানড্রয়েড ও আইওএস ব্যবহারকারীরা প্লেস্টোর বা অ্যাপস্টোর থেকে বিনা মূল্যে নামিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন।

মন্তব্য