kalerkantho

সোমবার। ১৫ জুলাই ২০১৯। ৩১ আষাঢ় ১৪২৬। ১১ জিলকদ ১৪৪০

অ্যাপগুলো নিত্য ব্যবহারের

১৫ ডিসেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৯ মিনিটে



অ্যাপগুলো নিত্য ব্যবহারের

ইন্টারনেট দুনিয়ায় স্মার্টফোনে ব্যবহারের উপযোগী অর্ধ কোটিরও বেশি মোবাইল অ্যাপ রয়েছে। হাজারো ধরনের কাজের অ্যাপগুলোকে ভাগ করা হয়েছে মূলত ছয় ভাগে। এর প্রধান ভাগই হচ্ছে আমাদের দৈনন্দিন জীবনযাপনের সঙ্গী বা ‘লাইফস্টাইল অ্যাপস’। এ ধরনের প্রয়োজনীয় ও জনপ্রিয় কিছু অ্যাপ নিয়ে পূর্ণ পৃষ্ঠার আয়োজন। লিখেছেন তুসিন আহম্মেদ। মডেল : প্রিয়ন্তী। ছবি তুলেছেন মোহাম্মদ আসাদ

 

পথের সঙ্গী

রেলের খবর জানতে

দূরের যাত্রায় রেলপথ পছন্দ অনেকেরই। তবে টিকিট কাটার দীর্ঘ লাইন আর সময়সূচির হেরফেরে অনেকে ইচ্ছা থাকলেও রেলের বদলে ধরে অন্য পথ। দেশি প্রতিষ্ঠান ডিকোডের তৈরি অ্যাপ ‘আমাদের রেল’ এ ঝামেলা অনেকটাই কমিয়ে এনেছে।

অ্যাপটিতে রয়েছে ট্রেনের বিস্তারিত শিডিউল। ট্রেনের অবস্থানের পাশাপাশি জানাবে রুট অনুযায়ী টিকিটের খরচ। রেলের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তার টেলিফোন ও মোবাইল নম্বরের পাশাপাশি আছে রেলের বিভিন্ন খবরাখবর নিয়ে নোটিশ বোর্ড। অফলাইনেও ব্যবহার করা যাবে।

গুগল প্লেস্টোরে ৪.৫ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ডাউনলোড হয়েছে এক লাখেরও বেশিবার।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2ygw8HA

 

ফ্লাইট অ্যাওয়ার

বিমানযাত্রীদের জন্য কাজের অ্যাপ ‘ফ্লাইট অ্যাওয়ার’। ফ্লাইটের গন্তব্য, সময়সূচি, দেরি হলে তার কারণ—সব তথ্যই রয়েছে অ্যাপটিতে। সার্চ করার সুবিধাও আছে।

গুগল প্লেস্টোরে ৪.০ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ডাউনলোড হয়েছে ৫০ লাখেরও বেশিবার।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2CJVrpl

 

ঢাকা সিটি বাস রুট

বাসে চলাচলে রাজধানীতে এত রুট যে মনে রাখা প্রায় অসম্ভব। তাই নিয়মিত রুটের বাইরে যেতে চাইলেই পড়তে হয় ধাঁধায়। মোবাইলে ‘ঢাকা সিটি বাস রুট’ থাকলে এই ঝামেলা কমবে।

অ্যাপটিতে আছে ঢাকার সব বাসের নাম ও রুটের বিবরণ। শহরের দুই স্থানের দূরত্ব, কোন বাস কোথায় থামে, কোন পথ ধরে যায়—এমন অনেক তথ্যই রয়েছে। আছে স্থানগুলো বুকমার্ক করে রাখার সুবিধা।

দেশি প্রতিষ্ঠান নার্ডক্যাটসের তৈরি অ্যাপটি অফলাইনেও কাজ করে।

গুগল প্লেস্টোরে ৪.০ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ১০ হাজারের বেশিবার ডাউনলোড হয়েছে।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2OVYIaR

 

বাসের টিকিট

বাসের টিকিট কিনতে এখন কাউন্টারে না গেলেও চলে। ‘সহজ’ অ্যাপ দিয়ে ঘরে বসেই বাসের টিকিট কেনা যায়। পছন্দমতো সিট নির্বাচন করার সুবিধাও আছে। টাকাও পরিশোধ করা যায় অনলাইনে।

৪.১ রেটিং পাওয়া দেশি অ্যাপটি ডাউনলোড হয়েছে এক লাখেরও বেশিবার।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2RQtQq‰

 

অ্যাপ দেখে বেড়াই

 

বাংলাদেশের দর্শনীয়

ভ্রমণবিষয়ক অ্যাপ ‘বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানসমূহ’। দেশের বিভিন্ন দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে বর্ণনাসহ কোন স্থানে যেতে কতক্ষণ লাগবে—সব তথ্যই রয়েছে অ্যাপটিতে। বাংলা ভাষার অ্যাপটি থেকে চলতি পথে ভ্রমণসংক্রান্ত অনেক সমস্যার সমাধানও মিলবে। অ্যাপ থেকে তথ্য (টেক্সট) কপি করার সুবিধাও আছে।

সার্চ সুবিধার অ্যাপটি অফলাইনেও কাজ করে।

গুগল প্লেস্টোর থেকে ১০ হাজারের বেশিবার ডাউনলোড হওয়া অ্যাপটির রেটিং ৪.৩।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2ElcyiP

 

স্থির ছবিকে চলমান করবে যে অ্যাপ

বেড়াতে গিয়ে ছবি তুলেছেন, কিন্তু ভিডিও করতে ভুলে গেছেন। ফিরে আসার পর মনে হলো—এমন সুন্দর জায়গায় একটা ভিডিও থাকলে ভালো হতো! বিষয়টা পুরোপুরি না হলেও আংশিক বাস্তবায়ন সম্ভব। ‘স্টোরিজ ফটো মোশন’ অ্যাপ দিয়ে একাধিক স্থির ছবিকে চলমান ভিডিওতে রূপান্তর করা যায়।

অ্যাপটিতে ছবি সম্পাদন করার পর ভিডিওর পাশাপাশি জিআইএফ ফরম্যাটে ফোনে ইন্টারনাল মেমোরিতে সংরক্ষণ করা যায়। অনেক ছবির মধ্য থেকে কাঙ্ক্ষিতটি খুঁজে পাওয়ার জন্য রয়েছে সার্চ সুবিধা।

এক লাখের বেশিবার ডাউনলোড হওয়া অ্যাপটির রেটিং ৫।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2pSFghe

 

পিকনিক

ডিএসএলআর বা ডিজিটাল ক্যামেরার তুলনায় স্মার্টফোনে ছবি তোলার পরিমাণ বাড়ছে। তবে স্মার্টফোনে ডিএসএলআর বা ডিজিটাল ক্যামেরার মতো ভালো ছবি ওঠে না। বিশেষ করে কম আলোতে ছবি ফ্যাকাসে দেখায়। ‘পিকনিক’ অ্যাপ দিয়ে এই সমস্যার সমাধান সম্ভব।

অ্যাপটির ফিল্টারগুলো মূল অবজেক্ট ঠিক রেখে ব্যাকগ্রাউন্ডের রং পরিবর্তন করে ছবি আরো সুন্দর করে তুলতে পারে। সম্পাদনার পর ফোনের ইন্টারনাল মেমোরিতে সেই ছবি সংরক্ষণের সুবিধাও দেয় অ্যাপটি। চাইলে মোবাইলের ক্যামেরা অ্যাপের বদলে অ্যাপটির ক্যামেরা অ্যাপ ব্যবহার করেও ছবি তোলা যায়। ৭০ মেগাবাইটের অ্যাপটি এক লাখেরও বেশিবার ডাউনলোড হয়েছে। প্লেস্টোরে অ্যাপটির রেটিং ৪.৫।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2PDlW2M

 

ভিডিও এডিটের অ্যাপ

ফোনে ভিডিও করার পর এডিট করে আকর্ষণীয় করা যায়। ‘অ্যাডোবি প্রিমিয়ার ক্লিপ’ অ্যাপ দিয়ে ফোনেই কাজটি করা যায়। ফোনের মেমোরির পাশাপাশি গুগল ড্রাইভ কিংবা ক্লাউড স্টোরেজ থেকে ভিডিও নিয়েও এডিট করা যাবে। স্বয়ংক্রিয়ভাবে ভিডিও এডিট করার সুবিধাও আছে। সে ক্ষেত্রে ভিডিওগুলো নির্বাচন করে Automatic বাটনে ক্লিক করতে হবে।

যুক্ত করা যাবে নানা কালার ফিল্টার। ব্যাকগ্রাউন্ডে যুক্ত করা যাবে মিউজিক। ভিডিও তৈরি হয়ে গেলে অ্যাপের ওপরে থাকা শেয়ার বাটনে ক্লিক করে রেন্ডার করা যাবে।

গুগল প্লেস্টোর থেকে ৩.৯ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ডাউনলোড করা হয়েছে ৫০ লাখেরও বেশিবার।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2OUisf8 (অ্যানড্রয়েড)

https://itunes.apple. com/us/app/adobe-premiere-clip/id919399401?mt=8 (আইওএস)

 

 

চলবে শুধুই আইওএসে

ডার্করুম ফটো এডিটর

স্মার্টফোনে ছবি তুলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেন অনেকেই। শেয়ারের আগে ‘ডার্করুম ফটো এডিটর’ অ্যাপে এডিট করে ছবির মান ভালো করা যায়। অ্যাপটি শুধু আইওএস অপারেটিং সিস্টেমে চলবে। ছবি সম্পাদনার জন্য অ্যাপটিতে রয়েছে কয়েক ধরনের ফিল্টার। ছবি জুম করে নির্দিষ্ট অংশ কাটাও যাবে অ্যাপটি দিয়ে। রয়েছে ফ্রেম যুক্ত করার সুবিধা। চাইলে ছবি ও ফ্রেমের রং পরিবর্তন করা যাবে।

৪.১ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ৪১ মেগাবাইটের।

ডাউনলোড লিংক : https://apple.co/2P1voQ4

 

স্কাই গাইড

মহাকাশের গ্যালাক্সি, গ্রহ, নক্ষত্র ইত্যাদি সম্পর্কে জানা যাবে অ্যাপ্লিকেশন ‘স্কাই গাইড’-এর সাহায্যে। কৃত্রিম উপগ্রহের তথ্যও রয়েছে এতে। দেখা যাবে মহাকাশের ত্রিমাত্রিক ছবিও। জিপিএসের সাহায্যে অবস্থান নির্ধারণ করে এসব তথ্য জানায় অ্যাপটি। তাই কাজ করে শুধু ইন্টারনেট সংযোগ থাকা অবস্থায়।

আইওএসে ব্যবহার উপযোগী ২৪১ মেগাবাইটের অ্যাপটির রেটিং ৪.৯।

ডাউনলোড লিংক : https://apple.co/2Aaghvv

 

বিয়ার অ্যাপ

আইওএস অপারেটিং সিস্টেমে চলা ডিভাইসে ছোটখাটো নোট লিখতে বা হঠাৎ করে মাথায় আসা আইডিয়া টুকে রাখতে সহায়তা করে বিয়ার অ্যাপ। এতে এডিট করার পাশাপাশি ফন্ট বদলের সুবিধা আছে। গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বিশেষ নজরে আনার জন্য ইটালিক, বোল্ড, আন্ডারলাইন ইত্যাদি যুক্ত করা যাবে। টাইপের পাশাপাশি টার্চ স্ক্রিন ডিভাইসে আঙুলের সাহায্যে নোট লিখে রাখা যাবে। নোটের সঙ্গে যুক্ত করা যাবে ছবি। লেখা নোটগুলো অন্য ব্যবহারকারীদের সঙ্গে শেয়ার করা যাবে। ১৩ মেগাবাইটের অ্যাপটির রেটিং ৩.৮।

ডাউনলোড লিংক : https://apple.co/2yhHBqC

 

ট্রিপনারি

নিত্যনতুন স্পট সম্পর্কে খোঁজ পেলে খুশি হয় ভ্রমণপিপাসুরা। যাওয়া-আসাসহ আনুষঙ্গিক খরচের খবর জানতে পারাটা তাদের কাছে ‘বোনাস’। এমন সব তথ্যই রয়েছে মোবাইল অ্যাপ ‘ট্রিপনারি’তে। কোনো জায়গার হোটেল খরচসহ ভ্রমণব্যয় কমে এলে ব্যবহারকারীকে তা নোটিফিকেশন দিয়ে জানিয়ে দেয় অ্যাপটি। রয়েছে স্থান নির্ধারণ করে ভ্রমণ বাজেট বানানোর সুবিধাও।

৪৫ মেগাবাইটের অ্যাপটির রেটিং ৪.২। ব্যবহার করা যাবে শুধু আইওএস ডিভাইসে।

ডাউনলোড লিংক : https://apple.co/2pT1HCH

 

স্বাস্থ্য আর খাবার নিয়ে

হেলথ এইড

প্রতিদিন নানা কাজের চাপে অনেকেই শরীরের যত্ন নিতে ভুলে যান। শরীরের যত্ন নেওয়ার কথা মনে করিয়ে দিতে নানা অ্যাপ রয়েছে। তেমনি একটি ‘হেলথ এইড’।

অ্যাপটিতে রয়েছে ব্লাডপ্রেশার, শরীরের তাপমাত্রা, ওজন ইত্যাদি তথ্য সংরক্ষণের সুবিধা। পুরনো ডাক্তারের পরামর্শ বা প্রেসক্রিপশন অনেক সময় হারিয়ে যায়। এতে রোগীকে বিপাকে পড়তে হয়। অ্যাপটিতে ব্যবহারকারীরা মেডিক্যাল রেকর্ড সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন। ‘মাই ডক্টর’ বিভাগে ডাক্তারের নাম, ফোন নম্বর, চেম্বারের ঠিকানা সংরক্ষণ করা যাবে। স্বাস্থ্য ভালো রাখার নানা টিপস ও কৌশল জানা যাবে অ্যাপটিতে। রয়েছে লক্ষণ অনুযায়ী রোগ নিশ্চিত করার সুবিধা।

১০ মেগাবাইটের অ্যাপটির রেটিং ৪.৮। ডাউনলোড হয়েছে ১০ হাজারের বেশিবার।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2CfT7oT

 

গর্ভবতীর অ্যাপ

গর্ভকালীন অবস্থায় নারীরা নানা সমস্যায় পড়েন। সমস্যা সমাধানে প্রাথমিক উপায়গুলো জানা থাকলে রক্ষা পাওয়া যায়। গর্ভকালীন জরুরি বিভিন্ন পরামর্শ পাওয়া যাবে ‘মা’ অ্যাপ থেকে। এটি তৈরি করেছে দেশি প্রতিষ্ঠান আগামী ল্যাবস।

গর্ভবতী কোন ত্রৈমাসে কেমন আছেন স্কেলের মাধ্যমে জানতে পারবেন। প্রতিদিনের শারীরিক পরিবর্তন ও অস্বস্তিকর লক্ষণসমূহ নোট আকারে সংরক্ষণ করা যাবে।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2C‰hv48

 

ব্যায়ামের অ্যাপ

ব্যায়ামের উপায় বলে দেবে স্মার্টফোন। দরকার শুধু ‘নাইকি ট্রেইনিং ক্লাব’। বিভিন্ন ধরনের ব্যায়ামের নিয়ম ভিডিও আকারে দেওয়া আছে অ্যাপটিতে। প্রতিদিনের ব্যায়ামের তালিকা নির্ধারণ করা যাবে। প্রফাইল খুলে প্রতিদিনকার ব্যায়াম সম্পর্কে তথ্য, কী কী ব্যায়াম করা হয়েছে ইত্যাদি টুকে রাখা যাবে।

৪.৬ রেটিং পাওয়া অ্যাপটি ১০ লাখের বেশিবার ডাউনলোড হয়েছে।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2NCU5xP (অ্যানড্রয়েড)

https://apple.co/2IU6LzA (আইওএস)

 

অ্যাপগুলো বিনোদনের

 

এইচকিউ মিউজিক

যেকোনো স্মার্টফোনেই ডিফল্ট মিউজিক প্লেয়ার থাকে। এই মিউজিক প্লেয়ার বেশির ভাগ ব্যবহারকারীরই পছন্দ নয়। প্লেস্টোরে গিয়ে তাই বিকল্প প্লেয়ার হিসেবে ডাউনলোড করে নিন ‘এইচকিউ মিউজিক’। স্ক্রিনে হাত না ছুঁইয়েও (জেসচারের সাহায্যে) অ্যাপটি নিয়ন্ত্রণ করা যায়। আছে হোম বাটন চেপেই গান বন্ধ ও চালু করার সুবিধা। আছে সার্চ করে গান খুঁজে বের করার সুবিধা। গান, অ্যালবাম ও শিল্পী—এ তিন ক্যাটাগরিতে গান খোঁজা যায়।

এক লাখেরও বেশিবার ডাউনলোড হওয়া অ্যাপটির রেটিং ৪.৪।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2ygi4xQ

 

বায়োস্কোপ

ভিডিও স্ট্রিমিং অ্যাপ ‘বায়োস্কোপ’-এ খেলা, সিনেমা, নাটক ও টিভি শো দেখার সুবিধা আছে। দেখা যায় ৩৫টির মতো বাংলাদেশি ও ভারতীয় টিভি চ্যানেলও ।

ইন্টারনেট গতি ভালো হলে অনুষ্ঠান উপভোগ করা যায় নির্বিঘ্নে। ইন্টারনেট গতি কম থাকলে রেজল্যুশন কমানোর সুবিধা আছে। ভিডিওর নিচে থাকা সেটিং আইকন থেকে রেজল্যুশন নির্ধারণ করা যাবে। পছন্দের অনুষ্ঠান ‘প্রিয়’ বিভাগে রেখে পরে দেখা যাবে।

১০ লাখের বেশিবার ডাউনলোড হওয়া অ্যাপটির রেটিং ৪.৩।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2A8NB66 (অ্যানড্রয়েড)

https://apple.co/2QNu8NP (আইওএস)

 

অ্যাপ খুঁজে দেবে অজানা মিউজিক

গান খুঁজতে সময় বাঁচাবে ‘শাহজ্যাম’। অ্যাপটির সাহায্যে অ্যামাজন বা গুগল প্লে থেকে মিউজিক শোনা ও কেনা যায়। দেখা যায় গানের লিরিকও। পছন্দের গান শেয়ার করা যায় ফেইসবুক, টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

গুগল প্লেস্টোর থেকে এক কোটি বারেরও বেশি ডাউনলোড হয়েছে অ্যাপটি।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2yDb0Lb (অ্যানড্রয়েড)

https://apple.co/2ROajHq (আইওএস)

 

স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হবে গান

রাতে স্মার্টফোনে গান শুনতে শুনতে ঘুমিয়ে গেলেন। সারা রাত গান চলার পর চার্জ শেষে ফোন বন্ধ হয়ে গেল। অ্যালার্ম না বাজায় অফিসে পৌঁছাতে দেরি হয়ে গেল। সংগীতপ্রেমীদের এমন ঝামেলায় প্রায়ই পড়তে হয়। তবে স্মার্টফোনে ‘ফোনোগ্রাফ মিউজিক প্লেয়ার’ অ্যাপ্লিকেশনটি ইনস্টল করা থাকলে এমন ঝামেলায় আর পড়তে হবে না। নির্দিষ্ট সময় পর স্বয়ংক্রিয়ভাবে গান বন্ধ হয়ে যাবে।

অ্যাপটি মিউজিক প্লেয়ার হিসেবেও কাজ করবে।

ডাউনলোড লিংক : http://bit.ly/2yDb0Lb

মন্তব্য