kalerkantho

সোমবার । ২৮ নভেম্বর ২০২২ । ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ ।  ৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিজ্ঞাপন যখন থ্রিডি

বিজ্ঞাপনের নতুন দিগন্ত খুলতে যাচ্ছে রোব্লক্স। নিজেদের আয় বাড়াতে গেমের মধ্যে বিজ্ঞাপন বসাচ্ছে তারা। কিন্তু সেটা কোনো ব্যানার বা ভিডিও নয়, একেবারে থ্রিডি বিজ্ঞাপন। ‘ইমারসিভ অ্যাডস’ নামের এই থ্রিডি বিজ্ঞাপন সম্পর্কে জানাচ্ছেন এস এম তাহমিদ

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিজ্ঞাপন যখন থ্রিডি

অত্যন্ত জনপ্রিয় অনলাইন মাল্টিপ্লেয়ার গেমটি প্রতিদিন পাঁচ কোটি ৮৬ লাখেরও বেশি গেমার খেলে থাকে। গেমটিকে স্যান্ডবক্স ঘরানার ধরা হয়ে থাকে। এক বিশাল দুনিয়ায় বন্ধুদের সঙ্গে ইচ্ছামতো জিনিসপত্র তৈরি করে সেগুলো নিয়ে খেলায় মেতে ওঠে গেমাররা। রোব্লক্স খেলা শুরু করতে কোনো টাকা প্রয়োজন না হলেও গেমে থাকা কারেন্সি বা ‘রোব্লক্স’ না কিনলে বেশির ভাগ কনটেন্টই পাওয়া যায় না।

বিজ্ঞাপন

আপাতত রোব্লক্স এভাবেই গেমটি থেকে আয় করে আসছে। তবে গেমাররা রোব্লক্স কিনতে কিনতে হতাশ, তাই তাদের আর নতুন করে টাকা ঢালার জন্য চাপ দেওয়ার উপায় নেই। সে জন্যই ইনকাম বাড়াতে গেমের মধ্যে বিজ্ঞাপন বসাচ্ছে রোব্লক্স। কিন্তু সেটা কোনো ব্যানার বা ভিডিও নয়, বরং থ্রিডি অভিজ্ঞতা।

রোব্লক্সের মূল গেম ওয়ার্ল্ডের মধ্যেই স্পন্সররা তাদের পণ্য ও সেবা দেখানোর জন্য একটি অংশ যুক্ত করতে পারবে, যেখানে গেমাররা গিয়ে ভার্চুয়ালি তাদের পণ্য ব্যবহার করতে পারবে, সেবা কেমন হতে পারে সেটার ডেমো দেখবে বা চাইলে সরাসরি সেখান থেকেই অর্ডারও করতে পারবে।

রোব্লক্সে প্রথম বিজ্ঞাপন দিতে যাচ্ছে হুন্দাই। তাদের গাড়িগুলো টেস্ট ট্র্যাকে চালানো যাবে রোব্লক্সের মধ্যেই। বিষয়টির একটি ডেমোনস্ট্রেশন এরই মধ্যে ইউটিউবে আপলোড করা হয়েছে। তাদের নেক্সো মডেলের হাইড্রোজেনচালিত ক্রসওভার এবং আয়নিক ৫ ইলেকট্রিক এসইউভিকে নতুন প্রজন্মের ভবিষ্যৎ ক্রেতাদের কাছে পরিচয় করিয়ে দেওয়াই এর লক্ষ্য। আগামী অক্টোবর থেকে এই স্পেস রোব্লক্সে যুক্ত করা হবে।

এ ছাড়া স্কেটবোর্ড নির্মাতা ভ্যানসও একটি ভার্চুয়াল স্কেটপার্ক চালু করতে যাচ্ছে শিগগিরই। সুসজ্জিত এই পার্কে ভ্যানসের তৈরি সব সরঞ্জাম দিয়ে স্টান্ট করতে পারবে রোব্লক্স খেলোয়াড়রা। এ ছাড়া ভ্যানসের নতুন অ্যাকসেসরিজ দিয়ে নিজেদের অ্যাভাটার সাজাতেও পারবে।

এভাবে বিজ্ঞাপন দিলে নতুন ক্রেতাদের মধ্যে ব্র্যান্ড সম্পর্কে সুন্দর ধারণা তৈরি হবে বলেই বড় কম্পানিগুলোর বিশ্বাস। যে কিশোররা আজ রোব্লক্স খেলছে, তারা আগামী দিনে গাড়ি কেনার সময় হুন্দাইয়ের কথা মনে রাখবে বলেই ধারণা মার্কেটিং বিশেষজ্ঞদের। সরাসরি পণ্য কিনুন—এমন মেসেজ দেওয়ার চেয়ে বিজ্ঞাপনটি যদি শুধু ব্র্যান্ডটি কী পণ্য ও সেবা প্রদান করছে, সেটা তুলে ধরে, তাহলে ভবিষ্যতে সেটা কেনার প্রতি মানুষ আগ্রহী হয়ে থাকে আরো বেশি।

রোব্লক্সের পর এমন থ্রিডি এক্সপিরিয়েন্স জোন মেটাভার্সেও চালু করা হবে বলে জানা গেছে। এতে নতুন পণ্য ও সেবা ডেমোনস্ট্রেশনের খরচ যেমন কমবে, ব্র্যান্ডগুলোর জন্য নতুন ক্রেতাদের কাছে পৌঁছানোও হবে সহজ। আর বিরক্তিকর বিজ্ঞাপন না দেখিয়েও রোব্লক্স বা মেটাভার্সের মতো প্রতিষ্ঠান টাকা আয় করতে পারবে ব্যবহারকারীদের ওপর চাপ না দিয়েই। ভার্চুয়াল এক্সপিরিয়েন্স জোনই বলা যায় বিজ্ঞাপনের ভবিষ্যৎ।



সাতদিনের সেরা