kalerkantho

বুধবার । ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৩ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ১ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

অস্ত্রোপচারে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি

আল সানি   

১৪ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অস্ত্রোপচারে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে জোড়া মাথার দুই শিশুর অস্ত্রোপচার সফলভাবে সম্পন্ন করেছে ব্রাজিলের একটি হাসপাতাল। বার্নার্দো ও আর্থার নামের এই দুই শিশু ২০১৮ সালে ব্রাজিলের প্রত্যন্ত অঞ্চল রোরাইমাতে জন্মগ্রহণ করে। জন্মের সময় থেকেই তাদের মাথা দুটি সংযুক্ত অবস্থায় ছিল। রোরাইমার স্থানীয় অনেক ডাক্তার শিশু দুটি স্বাভাবিক হতে পারে—এ রকম আশা একপ্রকার ছেড়েই দিয়েছিলেন।

বিজ্ঞাপন

পরবর্তী সময়ে শিশু দুটির মা-বাবা আসেন রাজধানী রিও ডি জেনেইরোতে। ওখানকার ইনস্টিটিউট অ্যাস্টাডুয়াল ডো সেরেব্রো পাওলো নিমেয়ারের পেডিয়াট্রিক সার্জারির প্রধান ডা. গ্যাব্রিয়েল মুফারেজের অধীনে শুরু হয় নতুন করে চিকিৎসা। গ্যাব্রিয়েল মুফারেজ অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন। তবে প্রায় অসম্ভব এই অস্ত্রোপচার নিয়ে তিনি যোগাযোগ করেন ছয় হাজার মাইল দূরের আরেক দেশ যুক্তরাজ্যের লন্ডনের গ্রেট অরমন্ড স্ট্রিট হাসপাতালের প্রতিষ্ঠাতা ডা. নূর উল উয়াসি জিলানির সঙ্গে। ডা. জিলানি পাকিস্তান, সুদান, ইসরায়েল ও তুরস্কে যমজ বাচ্চাদের অস্ত্রোপচার নিয়ে কাজ করেছেন। দুই ডাক্তারের মিলিত আলোচনার পর ডা. গ্যাব্রিয়েল মুফারেজের সঙ্গে ডা. জিলানি পুরো অস্ত্রোপচারপ্রক্রিয়াটি পরিচালনা করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেন। দুজন সার্জন যে দুই দেশে থেকেও একসঙ্গে কাজ করতে পেরেছেন তা কিন্তু কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা আর ভার্চুয়াল রিয়ালিটির বদৌলতে।

প্রাথমিক অবস্থায় সিটি স্ক্যান এবং এমআরআই স্ক্যানের মাধ্যমে বার্নার্দো ও আর্থারের মস্তিষ্কের থ্রিডি ইমেজ ও ভার্চুয়াল রিয়ালিটি মডেল তৈরি করে পুরো ডাটা পাঠানো হয় লন্ডনে ডা. জিলানির কাছে, যেন তিনি শিশু দুটির শরীর ও মস্তিষ্ক নিয়ে বিস্তারিতভাবে অধ্যয়ন করতে পারেন।

প্রতি ৬০ হাজার জন্ম নেওয়া জীবিত শিশুর মধ্যে এক জোড়া যমজ সন্তান হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং এই যমজ সন্তানের মধ্যে শতকরা ৫ ভাগ থাকে শারীরিকভাবে একজন অন্যজনের সঙ্গে যুক্ত। ডাক্তারি পরিভাষায় এটিকে বলে ‘ক্র্যানিওপাগাস’। ক্র্যানিওপাগাস শিশু জন্মের ছয় মাস থেকে এক বছরের মধ্যে অস্ত্রোপচার করলে সফলতা পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। বার্নার্দো ও আর্থারের বয়স তিন বছরের বেশি হওয়ার কারণে অস্ত্রোপচারটি বেশ জটিল আকার ধারণ করে। তবে ডা. গ্যাব্রিয়েল মুফারেজ ও ডা. জিলানির দলের একান্ত প্রচেষ্টায় টানা ২৭ ঘণ্টার পরিশ্রমের পর সফলতার দেখা মেলে। প্রথমবারের মতো দুটি দেশে অবস্থান করে সার্জনরা হেডসেট পরে একই ‘ভার্চুয়াল রিয়ালিটি রুমে’ থেকে একসঙ্গে অস্ত্রোপচারটি করেন।

ব্রাজিলে সংযুক্ত দুই বাচ্চার অস্ত্রোপচারের আগে এ রকম অস্ত্রোপচার আরো পাঁচবার করেছেন ডা. জিলানি। এই অস্ত্রোপচারে যুক্ত ছিলেন ১০০ জন স্বাস্থ্যকর্মী ও ডাক্তার।

আড়াই বছর ধরে বার্নার্দো ও আর্থারের মা-বাবা ইনস্টিটিউট অ্যাস্টাডুয়াল ডো সেরেব্রো পাওলো নিমেয়ারেই আছেন। এটাই এখন তাঁদের পরিবার হয়ে উঠেছে। তবে বার্নার্দো ও আর্থারকে পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার জন্য আরো কয়েক মাস অপেক্ষা করতে হবে। ডাক্তারদের আশা, নিজেদের চতুর্থ জন্মদিনেই দুই ভাই পাশাপাশি দাঁড়িয়ে কেক কাটতে পারবে।



সাতদিনের সেরা