kalerkantho

বুধবার । ১ বৈশাখ ১৪২৮। ১৪ এপ্রিল ২০২১। ১ রমজান ১৪৪২

বটীয় ডেট!

প্রেম-ভালোবাসা কি শুধুই প্রাণীদের জন্য? সেটির উত্তর খুঁজতে কয়েক দিন আগে আয়োজন করা হয়েছিল একটি প্রতিযোগিতা। এতে দুটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার চ্যাটবট—বেল্ডারবট ও কুকি প্রথমবারের মতো ডেট করল। কেমন হলো তাদের ডেট? জানাচ্ছেন এস এম তাহমিদ

২৮ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



বটীয় ডেট!

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন চ্যাটবট বা কথোপকথন চালানো সফটওয়্যার নিয়ে কাজ চলছে কয়েক যুগ ধরেই। কিছু প্রতিষ্ঠান ইদানীং ব্যবহারকারীদের সাধারণ সমস্যার জন্য হেল্পলাইনেও সেগুলো ব্যবহার করছে। চেষ্টা চলছে শুধু গল্প করে সময় কাটানো যাবে এমন মানবিক গুণাবলির চ্যাটবট সৃষ্টির। আর সে লক্ষ্যেই দুটি চ্যাটবট নির্মাতা তাঁদের বটগুলো পাঠিয়েছেন এক দীর্ঘ ‘ডেট’-এ। তবে এই ডেট রোমান্সের জন্য নয়, বরং জানার জন্য যে দুটি চ্যাটবট কতক্ষণ কথোপকথন চালিয়ে যেতে পারে আর কোন প্রতিষ্ঠানের বট সবচেয়ে বেশি মানবিক ও সাবলীলভাবে কথা বলতে সক্ষম।

এমন অভিনব ডেটে অংশ নিয়েছিল ফেসবুকের এআই ডিভিশনের তৈরি ‘ব্লেন্ডারবট’ এবং প্যান্ডোরাবটসের তৈরি ‘কুকি’। ফেসবুকের তৈরি বটের চেহারায় সেটির সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের ছাপ প্রকট, তবে কুকির চেহারা বলা যায় একেবারেই আনকোরা। অবশ্য চ্যাটবটগুলো আগাগোড়াই সফটওয়্যার, তাদের রূপগুলোও মনিটরে দেখা থ্রিডি মডেল মাত্র। তবে চেহারা নয়, বট দুটি কী নিয়ে কথাবার্তা চালিয়েছে, সেটিই ছিল সবার মূল আকর্ষণ। সে লক্ষ্যেই তাদের ডেট সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছিল স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্ম ‘টুইচ’-এ। গত বছরের ২০ অক্টোবর থেকে ৩ নভেম্বর পর্যন্ত টানা ১৫ দিন কথা চালিয়ে গেছে বট দুটি।

যেহেতু নির্মাতারা বটগুলোকে কোনো বিষয় বা কথার চলন প্রগ্রাম করে দেননি, তাই সবার আগ্রহ ছিল তারা কী নিয়ে কথা বলে। সাধারণ বিষয়ের বাইরেও দেখা গেছে বট দুটি তাদের পছন্দের ফুটবল দল, মুদ্রা জমানোর শখ বা অদ্ভুত সব অবাস্তব ঘটনা নিয়ে কথা চালিয়ে গেছে। মজার বিষয়, ফেসবুকের মতো বিশাল প্রতিষ্ঠান থেকে ব্লেন্ডারবটের জন্ম হলেও শৌখিন প্রগ্রামারের প্রজেক্ট হিসেবে জন্ম নেওয়া কুকি বিশ্বাসযোগ্যতার দিক থেকে তো বটেই, বুদ্ধিমত্তার দিকেও ব্লেন্ডারবটকে ছাড়িয়ে গেছে বহুগুণ।

কোন বট সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য লেগেছে, তা ভোটের মাধ্যমে দর্শকদের জানাতে বলা হয়। সেখানে ৭৯ শতাংশ ভোট পড়ে কুকির পক্ষে। কুকি শুধু প্রচলিত ভাষায় কথা চালিয়ে গেছে তা-ই নয়, উদ্ভট কোনো প্রসঙ্গ সে টানেনি বা তার জ্ঞানে কোনো দৃষ্টিকটু সীমাবদ্ধতাও চোখে পড়েনি। ব্লেন্ডারবট সেখানে কারণ ছাড়াই বারবার লুসি নামের একটি চরিত্রের কথা তুলে ধরেছে, সে মানুষ মারতে পছন্দ করে আর মার্ক জাকারবার্গকে নেটফ্লিক্সের টিভি ধারাবাহিক ‘স্ট্রেঞ্জার থিংস’-এর জনক বলে আখ্যায়িত করেছে। তার বাচনভঙ্গিও সাধারণ মানুষের মতো নয় বলেই মতামত দিয়েছে টুইচ স্ট্রিমের দর্শকরা।

এই ‘ডেট’কে অনেকেই ‘টুরিং টেস্ট’ বলে আখ্যায়িত করেছে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জনক অ্যালান টুরিং বলেছিলেন, ‘যেদিন সত্যিকার মানুষের মতো কম্পিউটারের সঙ্গে কথা চালিয়ে যাওয়া যাবে, সেদিনই তাকে সত্যিকারের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা বলা যাবে।’

সে হিসেবে কুকি যে অনেকখানি এগিয়ে গেছে, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। এরূপ চ্যাটবটের প্রয়োজনীয়তা দিন দিনই বাড়ছে, বিশেষ করে কভিডের প্রভাবে কাস্টমার সার্ভিস সেন্টার চালু রাখা দিন দিনই কঠিন হয়ে পড়ছে। বেশির ভাগ ক্রেতার সমস্যা বা প্রশ্ন খুব কাছাকাছি, সেগুলোর সমাধান একটি বিশ্বাসযোগ্য কথোপকথন চালাতে সক্ষম বটই করতে পারবে। এর মধ্যেই আইবিএম, মাইক্রোসফট, গুগল চ্যাটবটের মাধ্যমে গ্রাহক সেবা দিয়ে আসছে। দেশে কিছু প্রতিষ্ঠান চ্যাটবট ব্যবহার করছে। ভবিষ্যতে এটির ব্যবহারের হার বাড়তেই থাকবে।

তবে চ্যাটবট এখনো গল্পের সঙ্গী হওয়ার অবস্থানের কাছেও আসেনি। একজন সঙ্গীর মূল গুণাবলিই হচ্ছে মানবিকতা, যে কথার মূল অর্থের পাশাপাশি ভাবার্থও বুঝতে পারবে, ধীরে ধীরে একটি মানুষকে বুঝে নিতে পারবে। এসবের কিছুই ব্লেন্ডারবট বা কুকি করতে সক্ষম নয়। তারা শুধু জিজ্ঞাসার উত্তরই দিতে পারে, নিজ থেকে সেগুলোর ভাবার্থও বুঝতে পারে না বা কথামালার বিষয়বস্তুর ওপর ভিত্তি করে একটি মানুষকে চিনেও নিতে পারে না। মানবসঙ্গ মানুষই দিতে পারে, যন্ত্র নয়। তবে ভবিষ্যতের কথা কে বলতে পারে?

মন্তব্য