kalerkantho

বুধবার । ৫ কার্তিক ১৪২৭। ২১ অক্টোবর ২০২০। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

কী এলো অ্যাপলের এবারের ইভেন্টে?

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



কী এলো অ্যাপলের এবারের ইভেন্টে?

প্রতিবছর সেপ্টেম্বর মাসে অ্যাপলের ইভেন্টে নতুন আইফোন হাজির থাকলেও এবারের ইভেন্টে দেখা মেলেনি। এবারের আয়োজনে নজর ছিল অ্যাপল ওয়াচে। প্রতিষ্ঠানটি ওয়াচ ৬ এবং ওয়াচ এসইর ঘোষণা দিয়েছে। সেই সঙ্গে চতুর্থ প্রজন্মের আইপ্যাড এয়ার ও অষ্টম প্রজন্মের এন্ট্রি লেভেলের আইপ্যাডও আনা হয়েছে। জানাচ্ছেন তুসিন আহম্মেদ

 

অ্যাপল ওয়াচ ৬

নতুন ‘অ্যাপল ওয়াচ ৬’-এর ডিজাইনে খুব বেশি পরিবর্তন আসেনি আগের সংস্করণের তুলনায়। রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে মাপতে পারবে অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ ৬। দাম পড়বে ৩৯৯ ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৩৩ হাজার ৫১৬ টাকা)। বেশি দামের কারণে যাঁরা অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ ৬ কিনতে আগ্রহী নন, তাঁদের জন্য সাশ্রয়ী মূল্যের অ্যাপল ওয়াচও এনেছে অ্যাপল। সাশ্রয়ী সংস্করণ ‘অ্যাপল ওয়াচ এসই’-তে রয়েছে বিল্ট-ইন অ্যাক্সেলেরোমিটার, জিরোস্কোপ। এতে ব্যবহৃত এস৫ চিপ গত বছরের অ্যাপল ওয়াচ সিরিজ ৫-এও দেখা গিয়েছিল।

অ্যাপল ওয়াচ এসই চাইলে শিশুরাও ব্যবহার করতে পারবে। অ্যাপল ওয়াচ ফ্যামিলি সেটআপ নামে একটি ফিচার এনেছে অ্যাপল। এটি ব্যবহারে প্রতিটি অ্যাপল ওয়াচ একটি আইফোনের সঙ্গে সংযুক্ত থাকবে। ফলে স্বাস্থ্যগত তথ্য দেখার জন্য বাচ্চাদের আইফোন কিনে দেওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। আর অ্যাপল ওয়াচ এসইর দাম পড়বে ২৭৯ ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ২৩ হাজার ৪৩৬ টাকা)।

 

আছে আইপ্যাডও

চতুর্থ প্রজন্মের আইপ্যাড এয়ার ও অষ্টম প্রজন্মের এন্ট্রি লেভেলের আইপ্যাড এনেছে অ্যাপল। আইপ্যাড এয়ারের সঙ্গে আইপ্যাড প্রোর ডিজাইনের বেশ মিল রয়েছে। সরু বেজেলের ডিভাইসটিতে আছে ১০.৯ ইঞ্চির লিকুইড রেটিনা ডিসপ্লে, যার রেজল্যুশন ২৩৬০ বাই ১৬৪০ পিক্সেল। এতে ফ্ল্যাগশিপ প্রসেসরে ১৪ বায়োনিক চিপসেট দিতে কার্পণ্য করেনি অ্যাপল। একই চিপসেট দেখা যাবে আইফোন ১২ সিরিজে। চিপসেটটি ৫ ন্যানোমিটার প্রসেসে তৈরি। এর আগে কোনো ফোন কম্পানি ৫ ন্যানোমিটার প্রসেসে তৈরি চিপসেট আনেনি।

এর পেছনের ক্যামেরায় আছে ১২ মেগাপিক্সেল। সেলফির জন্য আছে ৭ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। আইপ্যাড এয়ার দিয়ে ফোরকে ভিডিও ধারণ করা যাবে। শুধু ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক সমর্থন করা ৬৪ গিগাবাইট স্টোরেজ সংস্করণের দাম পড়বে ৫৯৯ ডলার। ওয়াই-ফাই ও সেলুলার নেটওয়ার্ক ব্যবহারের সুবিধা চাইলে খরচ করতে হবে ৭২৯ ডলার। বিক্রি শুরু হবে অক্টোবর থেকে।

এন্ট্রি লেভেলের অষ্টম প্রজন্ম আইপ্যাড এসেছে দুই বছর আগের প্রসেসর এ১২ বায়োনিক চিপসেট নিয়ে। বড় বেজেলসহ এতে রয়েছে ১০.২ ইঞ্চির ডিসপ্লে। ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্ক সমর্থন করা ৩২ গিগাবাইট স্টোরেজ সংস্করণের দাম পড়বে ৩২৯ ডলার। ওয়াই-ফাই ও সেলুলার নেটওয়ার্ক সুবিধাসহ আইপ্যাডের দাম পড়বে ৪৫৯ ডলার।

১২৮ গিগাবাইট স্টোরেজ সংস্করণের দাম শুরু হবে ৪২৯ ডলার থেকে। আইপ্যাডগুলো বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ১৮ সেপ্টেম্বর থেকে।

 

ফিটনেস প্ল্যাটফর্ম

করোনার কারণে অনেকেই এখন ব্যায়াম করছে প্রতিনিয়ত। তাই অ্যাপল ‘ফিটনেস প্লাস’ নামে নতুন একটি প্ল্যাটফর্ম উন্মোচন করেছে। স্মার্টওয়াচ থেকে ডাটা সংগ্রহ করে এবং সেটি বড় ডিসপ্লেতে হিসাব অনুযায়ী ভিডিও হিসেবে প্রদর্শন করে।

ফিটনেস প্লাস সাবস্ক্রিপশনে ইয়োগা, ডান্সসহ আরো কিছু ওয়ার্কআউট শেখাবে অ্যাপল। চলতি বছর শেষ হওয়ার আগে বিশ্বের মাত্র ছয়টি দেশে ফিটনেস প্লাস উন্মোচন করবে অ্যাপল। এর মধ্যে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য।

ফিটনেস প্লাসের সেবা নিতে মাসিক ১০ পাউন্ড আর বার্ষিক হিসাবে চার্জ করা হবে ৮০ পাউন্ড।

পুরো পরিবারই ফিটনেস সেবাটি ব্যবহার করতে পারবে বলে জানিয়েছে অ্যাপল। এ ছাড়া আইক্লাউড, আর্কেডিয়া গেম, মিউজিকসহ এটির মাসিক সাবস্ক্রিপশন ফি হবে ৩০ পাউন্ড। এতে কোনো যন্ত্রাংশ বা উপকরণ ছাড়াই ১০টি ওয়ার্কআউট করার সুবিধা দেবে অ্যাপল।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা