kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ । ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০। ১১ সফর ১৪৪২

পেজটি আবহাওয়ার খবর জানায়

৯ আগস্ট, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



পেজটি আবহাওয়ার খবর জানায়

বাংলাদেশ-ভারতের ১৯ জন অপেশাদার আবহাওয়াবিদের সংগঠন ‘বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা যশোর’। এর উদ্দেশ্য সাধারণ মানুষের কাছে দ্রুত সহজভাবে আবহাওয়ার বার্তা পৌঁছে দেওয়া। কাজের সুবিধার্থে ২০১৫ সালে চালু করা হয় ফেসবুক পেজ ‘আবহাওয়ার খবর—Weather News’। গেল ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে এই পেজে প্রায় প্রতিমুহূর্তের খবর জানানো হয়েছিল। জানাচ্ছেন ফিরোজ গাজী

 

তাঁদের কেউই পেশাদার আবহাওয়াবিদ নন। এক দেশের মানুষও নন। ১৯ জনের ১৪ জন বাংলাদেশি আর বাকি পাঁচজন ভারতের। একত্র হয়েছেন জনমানুষের কাছে দ্রুত আর সহজভাবে আবহাওয়ার বার্তা পৌঁছে দিতে, যেন ঝড়ঝঞ্ঝায় প্রাণহানি রোধ করা যায়। রক্ষা করা যায় সহায়-সম্বল। ‘বেসরকারি আবহাওয়া সংস্থা যশোর’ নাম দিয়েছেন তাঁরা সংগঠনের। আর ২০১৫ সালে ‘আবহাওয়ার খবর—ডবধঃযবৎ ঘবংি’ নামে একটা ফেসবুক পেজও চালু করেন।

গেল ঘূর্ণিঝড় আম্ফানে তাঁদের চেষ্টা ছিল প্রায় প্রতিমুহূর্তের খবর জানানোর।

 

পেজের কার্যক্রম

পেজটির অ্যাডমিন পারভেজ আহমেদ পলাশ নিজেদের কার্যক্রম সম্পর্কে বলেন, ‘মানুষ বাঁচাতে, মানুষের সম্পদ বাঁচাতে এই কাজ করি। আবহাওয়া নিয়ে আমরা কেউ কোনো প্রতিষ্ঠানে আলাদা পড়াশোনা করিনি। তবে আবহাওয়া সম্পর্কে আগ্রহের ফলে বইপত্রসহ বিভিন্ন উৎস থেকে আবহাওয়ার জ্ঞান সংগ্রহ করে থাকি। দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে তথ্য সংগ্রহ করি। আবহাওয়াসংক্রান্ত কিছু যন্ত্রপাতিও আছে আমাদের। সেগুলোর মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ করে সহজবোধ্য ভাষায় পূর্বাভাস তৈরি করি। কম্পিউটার, স্মার্টফোনের সাহায্যে আমাদের ফেসবুক পেজের মাধ্যমে যত দ্রুত সম্ভব মানুষকে জানাই।’

 

পারভেজ আরো বলেন, ‘আমাদের পেজে আবহাওয়া বিষয়ক হাজার হাজার প্রশ্ন আসে। তবে সময় ও জনবল সংকটের কারণে আমরা সবার প্রশ্নের উত্তর সব সময় দিতে পারি না। এ জন্য খারাপও লাগে।’

 

যাঁরা উপকার পেয়েছেন

জেলে, চাষি, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার অনেক মানুষ তাঁদের আবহাওয়াবার্তায় উপকৃত হচ্ছেন। বেশি উপকৃত হন উপকূলীয় এলাকাবাসী। এখন তাঁদের পেজে লাইকদাতার সংখ্যা প্রায় দুই লাখ। ‘আবহাওয়ার খবর’ থেকে উপকার পাওয়া চাঁদপুর জেলার শাহরাস্তি উপজেলার ইটভাটার মালিক রাশেদ ইসলাম বলেন, ‘এখানকার পূর্বাভাস অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে অতীতে অনেক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেয়েছি। সর্বশেষ এপ্রিল মাসের ১৪-১৫ তারিখের দিকে তারা আগেই জানায় ঝড়বৃষ্টির কথা। এ সময় আমার ইটের ভাটায় অনেক কাঁচা ইট ছিল। আর শ্রমিকরা কাঁচা ইট তৈরিও করছিল। তাদের বার্তা দেখে শ্রমিকদের নতুন ইট তৈরি বন্ধ করতে বলি। পাশাপাশি তৈরি করা সব কাঁচা ইট ভালোভাবে ঢেকে রাখি।’

উপকার পেয়েছেন পটুয়াখালীর মির্জাগঞ্জের গাজী প্রিন্সও। তিনি বলেন, ‘ওনাদের পূর্বাভাস অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়ে অতীতে আমাদের এলাকার অনেকের ফসল রক্ষা পেয়েছে। তা ছাড়া কিছুদিন আগে ঘূর্ণিঝড় ফণীর খবর প্রথম জানতে পারি তাদের মাধ্যমে। তখন আশ্রয়কেন্দ্রে যাওয়া ছাড়াও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিই। আম্ফানের প্রতিমুহূর্তের খবর দেখেছি তাদের পেজের মাধ্যমে।’

 

তাঁরা যাঁরা

‘আবহাওয়ার খবর’ ফেসবুক পেজের অ্যাডমিন পারভেজ আহমেদ পলাশের বাড়ি নড়াইল জেলার বড়দিয়ায়। ২০১৭ সালে গোপালগঞ্জ সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজ থেকে এমএসএস শেষ করেছেন। বৈদ্যুতিক কাজের ঠিকাদারি করেন এখন। তাঁর কাছ থেকে জানা গেল সংস্থার অন্য সদস্যদের নামধাম। বাংলাদেশের সদস্যরা হলেন নড়াইলের লক্ষ্মীপাশার শামিম রহমান, গাজীপুর জেলার হোমিও ডাক্তার আশিক ইসলাম, একই জেলার ছাত্র ঐশ্বর্য কোড়াইয়া, নোয়াখালীর ছাত্র আমিনুর রসুল সোহাগ, চট্টগ্রামের ছাত্র মোহাম্মদ সবুজ, ঢাকার ছাত্র ওমর খৈয়াম, কুড়িগ্রামের ছাত্র সাগর ইসলাম, কুমিল্লার ছাত্র মোহাম্মদ রাসেল, যশোরের ছাত্র আশরাফুল ইসলাম, ঝিনাইদহের ছাত্র মশিয়ার রহমান জনি, ঢাকার চাকরিজীবী গাজী মাসুম বিল্লাহ, নড়াইলের ছাত্র মোহাম্মদ হামিম মোল্লা এবং খুলনার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী নূরনবী ইসলাম।

ভারতের পাঁচজন হলেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার ছাত্র প্রিতম সাহা, বারাসাতের চাকরিজীবী জয়দীপ পায়েল চ্যাটার্জি, আলিপুরের ছাত্র দেবশ্রী ব্যানার্জি, বনগাঁওয়ের ছাত্র আঁখি চ্যাটার্জি এবং কৃষ্ণনগরের ছাত্র প্রতাপ আদিত্য।

দায়িত্ব অনুযায়ী সদস্যদের বিভিন্ন পদবিও আছে; যেমন—প্রধান আবহাওয়া গবেষক, সহকারী আবহাওয়া গবেষক, আবহাওয়া তথ্যদাতা ইত্যাদি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা