kalerkantho

শনিবার । ৯ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৭ জমাদিউস সানি ১৪৪১

সাক্ষাৎকার

আফিফ জামান, সহপ্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও

২৬ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



সাক্ষাৎকার

বাঁ থেকে : আতাউর রহিম চৌধুরী, সিফাত সারোয়ার এবং আফিফ জামান

প্রশ্ন : পর্যন্ত কতজন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান শপআপের সেবা নিয়েছে?

উত্তর : ফেসবুক, অনলাইন ও অফলাইন মিলিয়ে প্রায় তিন লাখ ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান আমাদের সেবা নিয়েছে। প্রত্যন্ত অঞ্চলের অনেক দোকানদার, যাঁরা একসময় কাপড় বা পণ্য কেনার জন্য ঢাকায় আসতেন, তাঁরা এখন আমাদের প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করেই নিয়মিত পণ্য কিনছেন।

প্রশ্ন : শপআপের উন্নয়নে বিনিয়োগ পেয়েছেন কী?

উত্তর : শপআপ চালুর কিছুদিন পর ‘স্টার্টআপ বাংলাদেশ’ এবং কিছু ব্যক্তি আমাদের প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগ করে। এ ছাড়া দেশের বাইরে থেকে   ই-বের প্রতিষ্ঠাতা পিয়েরে ওমেইডারের ওমেইডার নেটওয়ার্ক এবং সেকুয়া অ্যাসেটের কাছ থেকেও বিনিয়োগ পেয়েছি।

প্রশ্ন : বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুত বাড়ছে। সে তুলনায় আমাদের দেশে স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে উঠছে না। আপনার দৃষ্টিতে চ্যালেঞ্জ কী?

উত্তর : ইন্টারনেট এখন যেকোনো দেশের বড় শক্তি। ইন্টারনেট কাজে লাগিয়ে অনেক বড় বড় সমস্যার সমাধান হতে পারে। এ জন্য দেশীয় স্টার্টআপগুলোকে আন্তর্জাতিক বিনিয়োগকারীদের সামনে তুলে ধরার পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানগুলোকে স্টার্টআপে বিনিয়োগে আগ্রহী করে তুলতে হবে।

প্রশ্ন : শপআপের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী?

উত্তর : আমরা উদ্যোক্তাদের ব্যবসা করার জন্য লজিস্টিকস সার্ভিস, বিনিয়োগ ও সোর্সিংয়ের কাজ করে থাকি। আমরা আমাদের উদ্যোগের মাধ্যমে আগামী দিনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে থাকা সব ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীর কাছে পৌঁছাতে চাই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা