kalerkantho

শনিবার । ১০ ফাল্গুন ১৪২৬ । ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২৮ জমাদিউস সানি ১৪৪১

গেম

মরণপণ লড়াই

এস এম তাহমিদ   

১৯ জানুয়ারি, ২০২০ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মরণপণ লড়াই

ফাইটিং গেমের দুনিয়ায় সবচেয়ে জনপ্রিয় সিরিজগুলোর মধ্যে একটি ‘টেকেন’। এটির সর্বশেষ সংস্করণ টেকেন ৭ প্রকাশের শুরু থেকেই গেমারদের মন জয় করে আসছে। শুধু টেকেন সিরিজের পুরনো ভক্তদেরই নয়, নতুন গেমারদেরও টেকেনের প্রতি আগ্রহী করেছে এটি। বেশ কিছু নতুন গেম মেকানিক এবং কাস্টমাইজেশন ফিচার টেকেনকে ‘মর্টাল কম্ব্যাট’ বা ‘স্ট্রিট ফাইটার’-এর থেকে করেছে একেবারেই আলাদা।

‘টেকেন ৬’-এর শেষে আজাজিলকে শেষ করে দিয়েছিল জিন কাজামা। কিন্তু মিশিমা জাইবাত্সু আর জি করপোরেশনের মধ্যকার যুদ্ধ থামেনি। পুরো গেমটির কাহিনি এক রিপোর্টারের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখানো হয়েছে। কিভাবে মিশিমা পরিবার জি করপোরেশনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে তাদের পরাস্ত করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে—সেটাই গেমের মূল ঘটনা। যদিও টেকেন সিরিজের গেম কেউ আসলে কাহিনির জন্য খেলে কি না সন্দেহ। সবার চাওয়া একটাই, ফাইটিং মেকানিকের কী অবস্থা।

পুরনো সব মুভ ও চরিত্র এবারের গেমেও দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে যোগ হয়েছে তিনটি নতুন মুভ। সেসবের প্রথমটি ‘রেজ আর্ট’। ক্রিটিক্যাল মিটার ফুল না করেও গেমাররা ক্রিটিক্যাল হিট করতে পারবেন এই সিস্টেমে, তবে ড্যামেজ বা ক্ষতি হবে মাত্র ৩০ শতাংশ। আরেকটি নতুন মুভ ‘পাওয়ার ক্রাশ’, গেমার প্রতিপক্ষের আঘাতের মাঝখানেও পাল্টা আঘাত করতে পারবেন এটি ব্যবহার করে। তবে হেলথ কমা বন্ধ হবে না, চাইলে প্রতিপক্ষের আল্টিমেট অ্যাটাকও এতে কিছুটা রোখা যাবে। আর শেষ নতুন মুভ ‘স্ক্রু অ্যাটাক’, পুরনো বাউন্ড বাদ দিয়ে এই মুভটি যুক্ত করা হয়েছে। প্রতিপক্ষকে পরাস্ত করার জন্য অ্যাটাক করে তাকে স্তব্ধ করে দেওয়ার এই অ্যাটাকটি কাজে লাগিয়ে শক্তিশালী শক্রকেও সহজেই পরাস্ত করা যাবে।

সর্বমোট ৫২টি চরিত্র গেমটিতে দেওয়া হয়েছে। নতুন চরিত্রগুলো শুরুতেই গেমে দেওয়া হয়নি, ধীরে ধীরে গত দুই বছরে একে একে গেমে আপডেট হিসেবে যুক্ত করা হয়েছে। তাদের একেকজনের ক্ষমতা একেক ধরনের, তবে পুরনো গেমারদের মধ্যে তারা তেমন জনপ্রিয় হয়নি।

আর্কেড মোডও গেমটিতে যুক্ত করা হয়েছে। যাঁরা ছোটবেলায় ভিডিও গেইমের দোকানে স্ট্রিট ফাইটার খেলেছেন তাঁদের খুবই ভালো লাগবে এই মোডটি। প্রথমবারের মতো আর্কেড মোডেও প্র্যাকটিস মোড যুক্ত করা হয়েছে, নতুন খেলোয়াড়দের জন্য যা  বেশ কাজের। বোলিং মিনি গেমও যুক্ত করা হয়েছে গেমটিতে, যদিও সেটি ফাইটিং থেকে একেবারেই আলাদা।

গেমটির গ্রাফিকস আর ফিজিকস চমৎকার। নতুন আনরিয়াল ইঞ্জিন ৪ পুরনো সব টেকেন সংস্করণ থেকে এটিকে করেছে একেবারেই আলাদা, বিশেষ করে গেমটির স্পিড আগের মতোই রেখে ডিটেইল বেশ বাড়ানো হয়েছে, মুভগুলো করা হয়েছে আরো অনেক বাস্তবসম্মত। যেসব টেকেনভক্ত ‘মর্টাল কম্ব্যাট ১০’-এর গ্রাফিকস দেখে কষ্ট পেয়েছিলেন তাঁদের মন এবার অবশ্যই ভালো হবে।

 

খেলতে যা যা লাগবে

অন্তত ৬৪ বিট উইন্ডোজ ৭ অপারেটিং সিস্টেম

তৃতীয় প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই৩ বা এএমডি এফএক্স ৬৩০০ প্রসেসর, ৬ গিগাবাইট র‌্যাম

এনভিডিয়া জিটিএক্স ৬৬০ টিআই বা ৭৫০ টিআই অথবা এএমডি রেডিওন আর৭ ২৬০এক্স জিপিউ ৬০ গিগাবাইট জায়গা।

 

বয়স

গেমটি শিশুদের জন্য নয়।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা