kalerkantho

শনিবার । ০৭ ডিসেম্বর ২০১৯। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ৯ রবিউস সানি ১৪৪১     

গুগল ম্যাপ খুঁজে পেল নিখোঁজ ব্যক্তিকে

১৯৯৭ সালের এক রাতে ঘরে ফেরার পথে নিখোঁজ হন ফ্লোরিডার ব্যক্তি উইলিয়াম মোল্ট। পুলিশও হাল ছেড়ে দেয় একসময়। অবশেষে এ বছরের ২৮ আগস্ট খুঁজে পাওয়া যায় তাঁর গাড়ি, যা কি না পানিতে ডুবে ছিল। আর সেটা পাওয়া যায় গুগল ম্যাপের কল্যাণে। বিস্তারিত কাজী ফারহান হোসেন পূর্বের কাছে

১২ অক্টোবর, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গুগল ম্যাপ খুঁজে পেল নিখোঁজ ব্যক্তিকে

ফ্লোরিডার লান্টানায় পরিবারের সঙ্গে বাস করতেন উইলিয়াম মোল্ট। লোকটি ছিল শান্তশিষ্ট আর মুখচোরা। ১৯৯৭ সালের ৭ নভেম্বরের রাতে নাইট ক্লাব থেকে বাসার পথে রওনা দেন। তার আগে রাত সাড়ে ৯টায় বান্ধবীকে ফোন করে শিগগিরই বাড়ি ফিরবেন বলেও জানান। কিন্তু সেটাই হয় তাঁর শেষ ফোন এবং শেষ কথা! কেননা মানুষটির আর কখনো ঘরে ফেরা হয়নি! তাঁর খোঁজে শুরু হয় চিরুনি অভিযান। কিন্তু উইলিয়াম মোল্টের অন্তর্ধান রহস্যের কোনো কূলকিনারাই শেষ পর্যন্ত করতে পারে না পুলিশ।

 

খোঁজ মিলল গুগল ম্যাপে

সেই রহস্যময় ঘটনার প্রায় দুই দশক পর এই আগস্টে ওয়েলিংটনের মুন বে সার্কেলের একটি পুকুরে অদ্ভুত কিছু আবিষ্কৃত হয়। আবিষ্কারটি ওখানকার এক পুরনো বাসিন্দার গুগল সার্চের ফসল। তিনি গুগল ম্যাপে পুকুরে একটি গাড়ির মতো কিছু ডুবন্ত অবস্থায় দেখতে পান এবং মুন বে সার্কেলের এক বাসিন্দার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। নতুন বাসিন্দা তাঁর ব্যক্তিগত ড্রোন ব্যবহার করে গাড়ির অবস্থান নিশ্চিত করে ২৮ আগস্ট পুলিশকে খবর দেন। পুলিশের অভিযানে পুকুর থেকে উঠানো হয় পুরনো সেই গাড়ি। সেখানে কঙ্কালের যতটুকু অবশিষ্ট ছিল তা পরীক্ষা করে এক সপ্তাহ পর সেগুলো মোল্টের বলেই প্রমাণিত হয়।

 

পুলিশ কী বলছে?

যুক্তরাষ্ট্রের নিষ্পত্তি না হওয়া বিভিন্ন তদন্তের অনলাইন ডাটাবেইস ‘চার্লি প্রজেক্ট’-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, গাড়িটি ২০০৭ সাল থেকে গুগল আর্থ স্যাটেলাইট ছবিতে পরিষ্কারভাবেই দেখা গেছে। কিন্তু ২০১৯ অবধি কেউই ওটা লক্ষই করেনি। গাড়ি পুকুরে পড়ার কারণ হিসেবে পাম বিচ কাউন্টি শেরিফের অফিস বিবিসিকে জানায়, উইলিয়াম মোল্ট তাঁর গাড়ির নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পুকুরে পড়ে যান। সেই সময় প্রাথমিক পর্যায়ের তদন্তে এই দুর্ঘটনার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

‘ন্যাশনাল মিসিং অ্যান্ড আনআইডেন্টিফাইড পার্সন্স সিস্টেম’-এর রিপোর্ট অনুযায়ী মোল্ট রাত ১১টায় নাইট ক্লাব থেকে বের হন। বেরোনোর সময় তিনি একাই তাঁর গাড়ি চালিয়ে বাড়ির পথে রওনা হন। সচরাচর মদ্যপান না করলেও সেদিন পানশালায় একটু বেশি মাত্রায়ই পান করেছিলেন মোল্ট। আর মদ্যপ অবস্থায় মোল্টের বাড়ির পথে যাত্রাই ছিল তাঁর অন্তিম যাত্রা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা