kalerkantho

সিনেমাখোরদের আড্ডাখানা

বাংলাদেশে চলচ্চিত্রভক্তদের অন্যতম বড় ফেইসবুক গ্রুপ ‘সিনেমাখোরদের আড্ডা’। এখানে মূলত দেশি-বিদেশি চলচ্চিত্র নিয়ে আলোচনা করে থাকেন চলচ্চিত্রপ্রেমীরা। জানাচ্ছেন সৈয়দ নাজমুস সাকিব

১০ আগস্ট, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



সিনেমাখোরদের আড্ডাখানা

কোন সিনেমা দেখব? কোন সিনেমা দেখলে পয়সা, সময় বা মেগাবাইট—কোনোটাই অপচয় হবে না; বরং দারুণ একটা সময় কাটাতে পারব? আসছে এমন কোনো সিনেমা বা সিরিজ, যা নিয়ে আশাবাদী হওয়া যায়, হোক না সেটা দেশি কিংবা বিদেশি—এমন সব প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্য সিনেমাপ্রেমিকদের জন্য রয়েছে ফেইসবুকভিত্তিক সিনেমার গ্রুপ ‘সিনেমাখোরদের আড্ডা’ [https://www.facebook.com/groups/somewhereinblog.cinemakhor/]।

সিনেমাখোরদের আড্ডা শুরু নিয়ে গ্রুপের অ্যাডমিন কাউসার রুশো বলেন, ‘সিনেমাখোরদের আড্ডা যাত্রা শুরু করে ২০১১ সালের নভেম্বরে। মূলত সামহোয়ারইনব্লগে সিনেমা নিয়ে যাঁরা লেখালেখি করতেন, তাঁরাই একদিন সবাই মিলে সামনাসামনি আড্ডা দিতে চাইলেন। যোগাযোগের সুবিধার জন্য ব্লগার পুশকিন ফেইসবুকে গ্রুপটি খোলেন। তাঁর সঙ্গে যোগ দিই আমিও। এর পরপরই ব্লগের অনেক জনপ্রিয় সিনেলেখক যোগ দেন, যাঁদের মধ্যে অনেকেই এই গ্রুপের অ্যাডমিন হিসেবে বিভিন্ন সময় দায়িত্ব পালন করেছেন এবং করছেন।’

গ্রুপের বর্তমান অ্যাডমিন প্যানেলে আছেন সুদীপ মজুমদার, স্নিগ্ধ রহমান, ইউসুফ খান নূর ও কাউসার রুশো।

গ্রুপের আরেক অ্যাডমিন সুদীপ মজুমদার বলেন, ‘সিনেমাখোরদের আড্ডা বরাবরই বাংলা চলচ্চিত্রকে প্রচার-প্রসারের ক্ষেত্রে কাজ করে। স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র যাঁরা বানাচ্ছেন, তাঁদের প্রচার করে। একই সঙ্গে বাংলা সাবটাইটেল আন্দোলনকে সমর্থন করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। এমনকি বাংলা চলচ্চিত্রকে সমর্থন জানিয়ে কোনো চলচ্চিত্র মুক্তির আগে গ্রুপের কাভার ফটোও পরিবর্তন করা হয়ে থাকে।’

“শুধু এখানেই থেমে থাকেনি আমাদের এই গ্রুপ। ২০১৪ সালে এই গ্রুপ থেকে বের হয় আমাদের প্রথম অনলাইনভিত্তিক সিনেমার ম্যাগাজিন, যার নাম দেওয়া হয় এ দেশে নির্মিত প্রথম সিনেমার নাম অনুসারে ‘মুখ ও মুখোশ’। সিনেমা নিয়ে দারুণ সব লেখা পাই এই ম্যাগাজিনের জন্য আর বিজয়ী লেখকদের মধ্যে পুরস্কার হিসেবে সিনেমার বই বিতরণও করা হয়। তবে সঠিক পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে ‘মুখ ও মুখোশ’-এর এই নিয়মিত আয়োজনটি ধরে রাখতে পারিনি। তবে আশা ছেড়ে দিইনি। প্রতিবার ঈদের সময় এলে আমরা এখনো মুখ ও মুখোশের জন্য লেখা আহ্বান করি আর সিনেমাবিষয়ক লেখকরা প্রতিবারই বিপুলভাবে আমাদের আহ্বানে সাড়া দেন। আশা করি, সামনে সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা পেলে মুখ ও মুখোশ ম্যাগাজিনটি আমরা অনেক বড় জায়গায় পৌঁছে দিতে পারব এবং দেশের সিনেমাবিষয়ক অন্যতম সেরা একটি ম্যাগাজিনে পরিণত করতে পারব।” বলছিলেন গ্রুপটির আরেক অ্যাডমিন স্নিগ্ধ রহমান।

ফুলের মাঝেও কিছু কাঁটা থাকে, সেটাও দেখেছেন এই গ্রুপের অ্যাডমিন প্যানেলের সদস্যরা। বেশ কিছু মাস আগে ফেইসবুকের নতুন এক নীতির কারণে পুরো গ্রুপটি গায়েব হয়ে গিয়েছিল! শুধু তা-ই নয়, অ্যাডমিনদের আইডিও ডিজেবল হয়ে গিয়েছিল! নিজেদের আইডি পরে অনেক কষ্টে ফেরত পেলেও গ্রুপটি কিছুতেই ফেরত পাওয়া যাচ্ছিল না! এত লাখ সদস্য, এত লেখা, ডক ফাইল আকারে সেভ করে রাখা এত জরুরি লেখা—সব এক নিমেষে হারিয়ে যাবে, এটা তাঁরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না! ভাগ্য ভালো যে গ্রুপের একজন মডারেটর গ্রুপটি শেষ মুহূর্তে আর্কাইভ করতে পেরেছিলেন, ফলে পরে গ্রুপটি আবারও ফিরে পাওয়া যায়। বেশ কয়েক দিন গ্রুপটি ফেইসবুক থেকে উধাও হয়ে গেলেও গ্রুপটির প্রতি তাঁদের ভালোবাসা আর অনুভূতি যে কোন পর্যায়ের ছিল—সেটা তাঁরা এই ঘটনায় বেশ ভালোভাবেই উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন।

হাঁটি হাঁটি পা পা করে শুরু হওয়া এই গ্রুপের সদস্যসংখ্যা এখন সাড়ে তিন লাখের বেশি। প্রতিদিন অনেক অনেক পোস্টে ভরে যায় গ্রুপ। যেন পোস্ট না, আড্ডা দিচ্ছেন একেকজন। তর্কে-বিতর্কে সব সময় জমজমাট থাকে সিনেমাখোরদের আড্ডা।

মন্তব্য