kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

নতুন ব্যাটল রয়্যাল!

মোস্তফা তাহমিদ   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



নতুন ব্যাটল রয়্যাল!

যেখানে পাবজি বা ফর্টনাইট ব্যাটল রয়্যালই দখল করে রেখেছে সব গেইমারের মন, সেখানে নতুন কোনো ব্যাটল রয়্যাল বাজারে এসে নিজের অবস্থান করে নেওয়ারই কথা ছিল না। অথচ সে কাজটিই করেছে রিস্পন এন্টারটেইনমেন্টের নতুন গেইম, ‘অ্যাপেক্স লেজেন্ডস ব্যাটল রয়্যাল’। প্রকাশের মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে গেইমটি খেলেছে আড়াই লাখেরও বেশি গেইমার। অথচ প্রকাশক ও নির্মাতারাই বলছেন, ‘গেইমটি এখনো পূর্ণাঙ্গ রূপই পায়নি।’

ব্যাটল রয়্যাল ঘরানা নিয়ে নতুন কিছু করা বেশ কঠিন অন্তত গেইমপ্লের দিক থেকে। অ্যাপেক্স লেজেন্ডসে আপাতত আছে একটিই ম্যাপ—কিংস ক্যানিয়ন। আছে বেশ কয়েক প্রকার অস্ত্রশস্ত্র, গ্রেনেড ও অন্যান্য আইটেম। তবে এসবে তেমন একটা নতুনত্ব নেই বলেই চলে। খেলার লক্ষ্য সহজ-সরল তিনজন মিলে একটা দল তৈরি করে হবে। আর মোট ২০টি দলের মধ্যে নিজেদের দলকে শেষ পর্যন্ত টিকিয়ে রাখবে। তবে এখানেই অন্তত পাবজির সঙ্গে অ্যাপেক্সের মিল শেষ।

যারা ‘ওভারওয়াচ’, ‘ডটা’ বা ‘লিগ অব লেজেন্ডস’ খেলেছেন তাঁরা ক্যারেক্টার ক্লাসের সঙ্গে খুবই পরিচিত। অ্যাপেক্স লেজেন্ডসেও দেওয়া হয়েছে বিভিন্ন ক্লাসের চরিত্র নিয়ে খেলার সুবিধা। চরিত্রগুলোকে একত্রভাবে নাম দেওয়া হয়েছে ‘লেজেন্ডস’। প্রতিটি দলে আলাদা আলাদা ক্লাসের লেজেন্ড নিয়ে খেলতে হবে। প্রতিটি ম্যাচেই নতুন চরিত্র নিয়ে খেলার মাধ্যমে গেইমে প্রতিবারই পাওয়া যাবে নতুন অভিজ্ঞতা। প্রতিটি চরিত্রের দেওয়া হয়েছে বেশ কিছু দক্ষতা আর একটি করে বিশেষ স্কিল। দলের মধ্যে একে অপরের সঙ্গে দ্রুত যোগাযোগের জন্য দেওয়া হয়েছে পিং সিস্টেম। এটির মাধ্যমে শত্রুর বা প্রয়োজনীয় অস্ত্রপাতির অবস্থান অন্যদের সঙ্গে একটি বাটন চেপেই শেয়ার করার সুবিধা পাওয়া যাবে।

অন্যান্য ব্যাটল রয়্যালের থেকে অ্যাপেক্স লেজেন্ডসের ম্যাপ বেশ আলাদা। উঁচু দেয়াল, পাহাড় বা টাওয়ারে উঠে নিতে হবে প্রয়োজনীয় অস্ত্রশস্ত্র। এ ছাড়া গেইমে দলের কেউ মারা গেলে তার ডাটা নিয়ে রিস্পন সেন্টারে প্রবেশ করালে তাকে ফিরিয়েও আনা যাবে। এ ছাড়া হিলার (উপশমকারী) ঘরানার চরিত্ররা দলের অন্যদের সারিয়ে তুলতে পারবে। ফলে গেইমটি অন্যান্য ব্যাটল রয়্যালের মতো শুধু আক্রমণাত্মই নয়, বরং দলবদ্ধভাবে পরিকল্পনা ঠিক করে খেলার ওপর বেশি করে জোর দিয়েছে।

গেইমটি এখনো বলা যেতে পারে পরীক্ষাধীন অবস্থায় আছে। ফলে ভবিষ্যতে নতুন অনেক কিছুই যুক্ত হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এই যেমন একা বা দুজন মিলে খেলার সুবিধা, নতুন ম্যাপ বা নতুন ধরনের ম্যাচও সংযোজন হতে পারে। বিশেষ করে সাপ্তাহিক চ্যালেঞ্জ খুব দ্রুতই গেইমটিতে যুক্ত করা হতে পারে। আপাতত মাত্র আটটি লেজেন্ড চরিত্র নিয়ে গেইমটি খেলা যাবে, পরবর্তীতে তা ৪০টি পর্যন্ত হওয়ার কথা রয়েছে।

অ্যাপেক্স লেজেন্ডস খেলা যাবে বিনা মূল্যে, তবে নতুন লেজেন্ড আনলক করার জন্য প্রয়োজন হবে প্রচুর ইন-গেইম অর্থ। শুধু খেলেই তা কামানো সম্ভব হলেও বেশির ভাগ ক্ষেত্রে প্রয়োজন হবে ইন-অ্যাপ পারচেজ বা ইন-অ্যাপ কেনাকাটা। তবে রিস্পন সরাসরি জানিয়ে দিয়েছে, গেইমটি খেলে জিততে পারলে টাকা ব্যয় করার প্রয়োজন হবে না। এ ছাড়া থাকছে লুটবক্স ও অন্যান্য আইটেম কেনার সুযোগ।

গেইমটি পিসি ছাড়াও প্লেস্টেশন ৪, এক্সবক্স ওয়ানেও খেলা যাবে।

 

খেলতে যা যা লাগবে

অন্তত ৬৪ বিট উইন্ডোজ ৭

ইন্টেল কোর আই৩-৬৩০০ বা এএমডি এফএক্স-৪৩৫০ প্রসেসর

৬ গিগাবাইট র‌্যাম

এনভিডিয়া জিটি ৬৪০ বা এএমডি এইচডি ৭৭৩০ জিপিউ

হার্ডডিস্কে অন্তত ২২ গিগাবাইট খালি জায়গা

 

বয়স ১৫+

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা