kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

করোনাকালে ঈদ যাত্রা ও ইসলামের শিক্ষা

মো. জাকির হোসেন

২০ জুলাই, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৭ মিনিটে



করোনাকালে ঈদ যাত্রা ও ইসলামের শিক্ষা

ঈদুল আজহা সমাগত। অন্যদিকে অতিমারি করোনা এখনো তার ভয়ংকর রূপ নিয়ে তাণ্ডব অব্যাহত রেখেছে। ব্যাপক টিকাকরণের পর যেসব দেশ নিজেদের নিরাপদ ভেবেছিল, সেসব দেশেও করোনার আরেক দফা হানায় নতুন করে বিধি-নিষেধ আরোপ করা হয়েছে। মুসলিমপ্রধান দেশ ইন্দোনেশিয়ায় কভিড বিপর্যয় চরমে, বাড়িঘরে পড়ে আছে মৃতদেহ। মুসলিমপ্রধান, হিন্দুপ্রধান, খ্রিস্টানপ্রধান, বৌদ্ধপ্রধান—কোনো ‘প্রধান’কেই ছাড় দিচ্ছে না করোনা। বাংলাদেশেও রুদ্ররূপ ধারণ করেছে নৃশংস করোনা। আক্রান্ত ও মৃত্যুর নতুন রেকর্ড সৃষ্টি হচ্ছে। বাংলার জমিনে মৃত্যুদূতের ব্যস্ততা যেমন বেড়েছে, তেমনি স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রতিযোগিতাও পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। শহরের সড়কে সেই চিরচেনা যানজট। ফুটপাত, অলিগলি থেকে অভিজাত শপিং মল, হোটেল, রেস্তোরাঁ—সর্বত্রই মানুষের সরব উপস্থিতি। পশুর হাটগুলোতেও উপচে পড়া ভিড়। গ্রামমুখী গাড়ির চাপে মহাসড়কে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট। কোথাও শারীরিক দূরত্ব মানা হচ্ছে না। স্বাস্থ্য সুরক্ষার অংশ হিসেবে ন্যূনতম মাস্কও পরছে না বেশির ভাগ মানুষ। ঈদ উৎসবে স্বাস্থ্যবিধি না মানার উৎসবও শুরু হয়েছে, বিশেষ করে গাদাগাদি, ঠাসাঠাসি করে স্বজনের সঙ্গে মিলিত হতে ঈদ যাত্রায় ছুটছে মানুষ। একটি পরিসংখ্যান বলছে, গ্রামের বাড়িতে ঈদ করতে গত ১৫ ও ১৬ জুলাই দুই দিনে ঢাকা ছেড়েছে ১৬ লাখ ৯৩ হাজার ৬৮৭ সিম ব্যবহারকারী। এর সঙ্গে সিম ব্যবহারকারী নয়, এমন সদস্যদের হিসাব করলে সারা দেশে কয়েক কোটি মানুষ স্বজনের পানে ছুটছে। স্বাস্থ্য বিভাগ, জাতীয় পরামর্শক কমিটি, জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ—সবাই বর্তমান পরিস্থিতিকে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বলে অভিহিত করেছেন। অনেক জেলা-উপজেলায় শনাক্তের হার ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ পর্যন্ত পৌঁছেছে। ঈদের পরপরই সংক্রমণ পরিস্থিতি আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করা হচ্ছে। ধর্মীয় উৎসব পালনে এমন ঝুঁকিপূর্ণ যাত্রা কি আবশ্যিক? ইসলাম কি এর অনুমোদন দেয়?

শারীরিক সুস্থতা মহান আল্লাহর এক অপার নিয়ামত। ইসলাম স্বাস্থ্যসচেতনতার প্রতি গুরুত্বারোপ করেছে। স্বাস্থ্য রক্ষা করা শরিয়তের তাগিদ। ওয়াহাব ইবনে আবদুল্লাহ (রা.) থেকে বর্ণিত এক হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘নিশ্চয় তোমার ওপর তোমার শরীরের হক আছে।’ (বুখারি, ৫৭০৩; তিরমিজি, ২৩৫০) কোরআন-সুন্নাহ ও শরিয়ত স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য যেমন গুরুত্ব দিয়েছে, তেমনি তা কার্যকরের ফলপ্রসূ উপায়ও বাতলে দিয়েছে। অসুস্থ হয়ে চিকিৎসা গ্রহণের চেয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে সুস্থ থাকাকে ইসলাম অধিক উৎসাহিত করেছে। এ জন্য আমরা দেখতে পাই, যে বিষয়গুলোর কারণে মানুষের রোগ হয়, ইসলাম সেগুলোকে নিষিদ্ধ করে দিয়েছে। স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে অবহেলা করা বা স্বেচ্ছায় শরীরের কোনো অঙ্গ-প্রত্যঙ্গের ক্ষতি করা ইসলামে নিষিদ্ধ। তাই ইসলামে এ বিষয়ের প্রতি বিশেষ গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। রাসুল (সা.) বলেন, ‘কিয়ামতের দিন বান্দাকে নিয়ামত সম্পর্কে সর্বপ্রথম যে প্রশ্নটি করা হবে তা হলো তার সুস্থতা সম্পর্কে। তাকে বলা হবে, আমি কি তোমাকে শারীরিক সুস্থতা দিইনি?’ (সুনানে তিরমিজি, ৩৩৫৮) সুস্থ শরীর আমাদের হাতে আল্লাহর দেওয়া আমানতও বটে। এই আমানতের যথার্থ রক্ষণাবেক্ষণ করা আমাদের কর্তব্য। কাজেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য সচেষ্ট হওয়া প্রত্যেক মুসলমানের ঈমান ও বিশ্বাসের দাবি।

ইসলাম মানবতার ধর্ম। মানুষের সহজাত স্বভাবের বিরুদ্ধ কোনো বিষয় ইসলাম কখনো সমর্থন করে না। তাই মানুষের জান-মাল সংরক্ষণের ওপর ইসলাম বারবার তাগিদ প্রদান করেছে। কাজেই মহামারির উদ্ভব হলে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। হাদিসে মহামারির ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বনের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। সংক্রামক রোগ থেকে সাবধানতার বিষয়ে হাদিসে বলা হয়েছে, ‘কুষ্ঠ রোগী থেকে এমনভাবে পলায়ন করো, যেমন তুমি বাঘ থেকে পলায়ন করে থাকো।’ (বুখারি, ১৭৬৭) সংক্রামক রোগের ক্ষেত্রে শারীরিক দূরত্বের সচেতনতা বিষয়ে হাদিসে বর্ণিত আছে, ‘তোমরা কুষ্ঠ রোগীদের বারবার দেখতে যেয়ো না আর তাদের সঙ্গে যখন কথা বলবে, তখন তাদের এবং তোমাদের মাঝখানে একটি বর্শার পরিমাণ দূরত্ব থাকা উচিত।’ (মুসনাদে আহমাদ, ৫৮১) আবু সালমা (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘কেউ যেন কখনো রোগাক্রান্ত উট সুস্থ উটের সঙ্গে না রাখে।’ (বুখারি, ৫৭৭১; মুসলিম, ১৭৪৩) শুধু করোনাভাইরাস থেকে সাবধানে থাকব তা-ই নয়, বরং সব কিছু থেকে সাবধানতা অবলম্বন করতে আমাদের রব আল্লাহ তাআলাই নির্দেশ দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে ঈমানদারগণ! তোমরা সাবধানতা অবলম্বন করো।’ (সুরা নিসা : ৭১) আল্লাহর হুকুম না হলে কোনো কিছুই সম্ভব নয়, এ বিশ্বাস একজন মুমিন হিসেবে আমাদের থাকতে হবে। সুতরাং আল্লাহর ওপর ভরসা রাখা মুমিনের কাজ। আর সাবধানতা যেহেতু আল্লাহর নির্দেশ, তাই সাবধানতাও অবলম্বন করতে হবে। সুতরাং দুটির সমন্বয়েই আল্লাহর রহমত আসবে; আল্লাহ রক্ষা করবেন। আনাস ইবনে মালিক (রা.) বর্ণনা করেছেন, এক ব্যক্তি রাসুল (সা.)-কে জিজ্ঞেস করল, ‘ইয়া রাসুলুল্লাহ! আমি কিভাবে আল্লাহর ওপর ভরসা (তাওয়াক্কুল) করব? আমার উষ্ট্রীটি ছেড়ে দিয়ে, না বেঁধে রেখে?’ রাসুল (সা.) বললেন, ‘প্রথমে তোমার উষ্ট্রী বাঁধো, এরপর আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করো।’ (তিরমিজি, ২৫১৭)

ক্ষতি প্রতিহত করা ইসলামের মূলনীতি। শরিয়ত নিজের ও অন্যের ক্ষতি করতে নিষেধ করেছে। পবিত্র কোরআনে বর্ণিত হয়েছে, ‘তোমরা নিজ হাতে নিজেদের ধ্বংসের মধ্যে ঠেলে দিয়ো না।’ (সুরা : বাকারা, আয়াত : ১৯৫) উবাদা বিন সামিত (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ফায়সালা দেন অনুমোদিত নয় নিজেকে ক্ষতিগ্রস্ত করা এবং অন্যকেও। (ইবনে মাজাহ, ২৩৪০) নাগরিকের দায়িত্ব হলো, ভালো কাজে রাষ্ট্রকে সহযোগিতা করা এবং মন্দ কাজে বাধা দেওয়া। আল্লাহ বলেন, ‘তোমরা শুভ কাজ ও খোদাভীরুতার ক্ষেত্রে একে অন্যকে সহযোগিতা করো আর পাপ ও খোদাদ্রোহী কাজে সহযোগিতা করবে না।’ (সুরা : মায়েদা, আয়াত : ২) অন্য আয়াতে বর্ণিত হয়েছে, ‘তোমরা নির্দেশ পালন করো আল্লাহ, রাসুল ও তোমাদের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাবানদের।’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ৪৯) হাদিসে বর্ণিত হয়েছে, রাসুল (সা.) বলেন, ‘রাষ্ট্রপ্রধানের আনুগত্য ততক্ষণ পর্যন্ত অপরিহার্য, যতক্ষণ সে আল্লাহর অবাধ্যতার আদেশ না করে।’ (বুখারি, ২৯৫৫) অতিমারি করোনা নিয়ন্ত্রণে রাষ্ট্রের বিধি-নিষেধ আল্লাহর অবাধ্যতার নির্দেশ নয়, বরং ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রের জন্য কল্যাণকর। মাস্ক পরার নির্দেশ, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলাসহ অন্যান্য বিধি-নিষেধ তাহলে কেন মানব না?

সা’দ (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যখন তোমরা কোনো এলাকায় প্লেগ (মহামারি) রোগের সংবাদ শোনো, তখন সেই এলাকায় প্রবেশ কোরো না। আর তোমরা যেখানে অবস্থান করো, তথায় প্লেগের প্রাদুর্ভাব ঘটলে সেখান থেকে বেরিয়ে যেয়ো না।’ (বুখারি, ৫৭২৮; মুসলিম, ২২১৮) ঈদ যাত্রাসহ নানাভাবে আমরা যে অতিমারি করোনার বিস্তারে প্রভাবকের কাজ করছি, তা কি ইসলাম অনুমোদন দেয়? আল্লাহর আদেশ পালন করতে মুসলিম মিল্লাতের পিতা ইবরাহিম (আ.) তাঁর প্রিয় পুত্র ইসমাঈল (আ.)-কে কোরবানি দেওয়ার জন্য গলদেশে ছুরি চালাতে কুণ্ঠিত হননি। সেই স্মৃতি স্মরণ করে মুসলমানরা ঈদুল আজহার উৎসব পালন করে। আর এই উৎসব পালন করতে ঈদ যাত্রায় কোরআন, হাদিসের বিধান লঙ্ঘন করছি। অতিমারিকালের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় রাষ্ট্রের আদেশ-নির্দেশ পালনে অবিমৃশ্যকারিতার মাধ্যমে নিজের ও অন্যের জীবনকে বিপন্ন করে তুলছি। প্রবৃত্তির অনুসরণ করতে গিয়ে ধর্মীয় উৎসব পালনের নামে ধর্মের বিধান লঙ্ঘন করছি।

 লেখক : অধ্যাপক, আইন বিভাগ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

[email protected]