kalerkantho

বুধবার । ১৮ ফাল্গুন ১৪২৭। ৩ মার্চ ২০২১। ১৮ রজব ১৪৪২

উনসত্তরের অগ্নিঝরা দিনের স্মৃতি

তোফায়েল আহমেদ

২৪ জানুয়ারি, ২০২১ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



উনসত্তরের অগ্নিঝরা দিনের স্মৃতি

প্রত্যেক মানুষের জীবনে উজ্জ্বল কিছু দিন আছে। আমার জীবনেও কিছু ঐতিহাসিক ঘটনা আছে। ‘উনসত্তর’ আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ কালপর্ব। এই কালপর্বে আইয়ুবের লৌহ শাসনের ভিত কাঁপিয়ে বাংলার ছাত্রসমাজ ১৯৬৯ সালের ২৪ জানুয়ারি গণ-অভ্যুত্থান সংঘটিত করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিল।

মনে পড়ে ডাকসুসহ চারটি ছাত্রসংগঠনের সমন্বয়ে ঐতিহাসিক ১১ দফার ভিত্তিতে ১৯৬৯ সালের ৪ জানুয়ারি সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ গড়ে ওঠার কথা। ১১ দফা আন্দোলনের প্রণেতা ছাত্রলীগ সভাপতি প্রয়াত আব্দুর রউফ ও সাধারণ সম্পাদক খালেদ মোহাম্মদ আলী; ছাত্র ইউনিয়ন (মতিয়া গ্রুপ) সভাপতি প্রয়াত সাইফউদ্দিন আহমেদ মানিক ও সাধারণ সম্পাদক সামসুদ্দোহা; ছাত্র ইউনিয়ন (মেনন গ্রুপ) সভাপতি মোস্তফা জামাল হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল্লাহ এবং এনএসএফের একাংশের সভাপতি প্রয়াত ইব্রাহিম খলিল ও সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম মুন্সীর কথা। এই ছাত্রনেতাদের প্রত্যেকেই ছিলেন খ্যাতিমান। আমি ডাকসুর ভিপি হিসেবে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের সমন্বয়ক ও মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করি। আমার সঙ্গে ছিলেন ডাকসুর সাধারণ সম্পাদক নাজিম কামরান চৌধুরী। ২০ জানুয়ারি উনসত্তরের গণ-আন্দোলনের মাইলফলক।

২৪ জানুয়ারি গণ-আন্দোলন-গণবিস্ফোরণের মধ্য দিয়ে সংঘটিত হয় গণ-অভ্যুত্থান। কারফিউর মধ্যে এক দিনও থেমে থাকেনি আমাদের সংগ্রাম। দেশের মানুষ সম্পূর্ণভাবে পাকিস্তানি প্রশাসন বর্জন করেছে। কলকারখানা, অফিস-আদালত, সচিবালয় সর্বত্র প্রশাসন ভেঙে পড়েছে। সরকারি কর্মকর্তারা জনগুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন সিদ্ধান্তের জন্য ধরনা দিতেন ইকবাল হলে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতাদের কাছে। কিছুদিনের জন্য রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে ওঠে ইকবাল হল। ২৪ জানুয়ারি গণ-অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে আমরা ১১ দফার প্রতি ছাত্র, শ্রমিক, কৃষক, পেশাজীবী, বুদ্ধিজীবীসহ বাংলার সর্বস্তরের মানুষের সমর্থন আদায় করতে পেরেছিলাম। ১৫ ফেব্রুয়ারি আগরতলা মামলার অন্যতম আসামি সার্জেন্ট জহুরুল হক ও ১৮ ফেব্রুয়ারি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. শামসুজ্জোহার হত্যাকাণ্ডের পর পরিস্থিতি অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। সংগ্রামী ছাত্র-জনতা আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা প্রত্যাহার ও প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের মুক্তির দাবিতে উত্তাল হয়ে ওঠে।

অনেক সময় চিন্তা করি যদি বঙ্গবন্ধু ছয় দফা কর্মসূচি না দিতেন, তবে আগরতলা মামলা তথা ‘রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিব ও অন্যান্য’ মামলা হতো না; আগরতলা মামলা না হলে প্রিয় নেতা বঙ্গবন্ধু মুজিবসহ সব রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে ১১ দফাভিত্তিক গণ-আন্দোলন-গণ-অভ্যুত্থান সংঘটিত হতো না; আর ’৬৯-এর গণ-অভ্যুত্থান না হলে এক মাথা এক ভোটের ভিত্তিতে ’৭০-এর ঐতিহাসিক নির্বাচন হতো না এবং সেই নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন না পেলে আন্তর্জাতিক বিশ্বে জাতীয় মুক্তি সংগ্রাম চিহ্নিত হতো ‘বিচ্ছিন্নতাবাদী’ আন্দোলন হিসেবে। ফলত, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের ডাকে ধর্ম-বর্ণ-শ্রেণি-গোষ্ঠী-নির্বিশেষে সবার জাতীয় ঐক্য যে নিশ্চিত হয়েছিল, তার ভিত্তি হিসেবে কাজ করেছিল ছয় দফা ও ’৭০-এর নির্বাচনী ফলাফল। সুতরাং ছয় দফা থেকে ১১ দফা হয়ে এক দফা তথা স্বাধীনতার কর্মসূচিতে পৌঁছানোর এই নিরবচ্ছিন্ন প্রক্রিয়া এক সূত্রে গাঁথা। সেদিন ছাত্রসমাজ সুনির্দিষ্ট আদর্শ ও লক্ষ্য নিয়ে সংগ্রাম করেছে। সোনালি সেই দিনগুলোর কথা ভাবলে গর্বে বুক ভরে ওঠে। তখনকার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছিল রাজনৈতিক নেতা তৈরির কারখানা। সহনশীল ও পরমতসহিষ্ণু থেকে সামাজিক সম্পর্ক অটুট রেখে আমরা রাজনীতি করেছি। মানুষের সুবিপুল আস্থা আর বিশ্বাস আমাদের ওপর ছিল বলেই দেশব্যাপী তুমুল গণ-আন্দোলন সংঘটিত করতে পেরেছিলাম। আমরা মানুষের বিশ্বাসের মর্যাদা দিয়েছি। শহীদ মতিউরের মা ক্রন্দনরত অবস্থায় বলেছিলেন, ‘আমার সন্তানের রক্ত যেন বৃথা না যায়।’ শহীদ মতিউরের রক্ত আমরা বৃথা যেতে দিইনি। ২০ জানুয়ারি আসাদের রক্তের মধ্য দিয়ে যে আন্দোলন রক্তে রঞ্জিত হয়েছিল, সেই আন্দোলনের সফল পরিণতি বঙ্গবন্ধুসহ সব রাজবন্দির নিঃশর্ত মুক্তি, প্রাপ্তবয়স্কদের ভোটাধিকার প্রাপ্তি, ’৭০-এর নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ এবং পরিশেষে ’৭১-এর মহান মুক্তিযুদ্ধে একসাগর রক্তের বিনিময়ে মহত্তর বিজয় অর্জন। আর এসব অর্জনের ড্রেস রিহার্সাল ছিল ’৬৯-এর অগ্নিঝরা দিনগুলো, যা ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে এবং থাকবে চিরদিন।

 

লেখক : আওয়ামী লীগ নেতা; সংসদ সদস্য; সভাপতি, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি

[email protected]

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা