kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০২২ । ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

আন্তর্জাতিক খেলা নিয়ে বিপাকে বাস্কেটবল

যে কারণে মালয়েশিয়ায় হতে যাওয়া অনূর্ধ্ব-১৭ থ্রি অন থ্রি এশিয়া কাপেও দল পাঠাতে চায়নি ফেডারেশন। পরে খেলোয়াড়রাই নিজস্ব অনুশীলন ও অর্থ সংস্থানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এই টুর্নামেন্টে যাচ্ছেন।

২ অক্টোবর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : মালদ্বীপে মাত্রই শেষ হলো মেয়েদের দক্ষিণ এশীয় বাস্কেটবল চ্যাম্পিয়নশিপ। নেপাল, ভুটান ও স্বাগতিক মালদ্বীপকে পেছনে ফেলে যে আসরে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে শ্রীলঙ্কা। দক্ষিণ এশীয় বাস্কেটবল অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে দ্বিতীয়বারের মতো হলো এ আসর। ২০১৬ সালে প্রথমবার অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশের মেয়েরাও।

বিজ্ঞাপন

কিন্তু এবার দলই গঠন করেনি বাংলাদেশ বাস্কেটবল ফেডারেশন।

‘কিভাবে করব! আমাদের অনুশীলনেরই তো জায়গা নেই। প্রথমবার অংশ নিয়ে আমাদের মেয়েরা খুব একটা ভালো করতে পারেনি। এবার ওদের পুরোপুরি প্রস্তুতি ছাড়া পাঠাতে চাইনি। কিন্তু সেই প্রস্তুতিটা ওরা নেবে কোথায়। মিরপুর ইনডোরে এনএসসির অনুমতি নিয়ে আমরা টুর্নামেন্ট করতে পারছি। কিন্তু টানা এক-দেড় মাস সেখানে অনুশীলনের সুযোগ পাওয়া তো কঠিন। কারণ আরো অনেকগুলো খেলা দখল করে আছে এই ইনডোর’—বলছিলেন বাস্কেটবল ফেডারেশনের কার্যনির্বাহী সদস্য রঞ্জিত দাস। যে কারণে আগামী ১১ থেকে ১৮ অক্টোবর মালয়েশিয়ায় হতে যাওয়া অনূর্ধ্ব-১৭ থ্রি অন থ্রি এশিয়া কাপেও দল পাঠাতে চায়নি ফেডারেশন। পরে খেলোয়াড়রাই নিজস্ব অনুশীলন ও অর্থ সংস্থানের প্রতিশ্রুতি দিয়ে এই টুর্নামেন্টে যাচ্ছেন। দলের সদস্য নূর-ই-শাহরিয়ার যেমন বলছিলেন, ‘ফেডারেশন শুরুতে বলেছিল তারা এই টুর্নামেন্টের খরচ দিতে পারবে না, যেহেতু দলটাকে প্রস্তুত করতে পারছে না। পরে আমরাই অনুরোধ করে অনুমোদনটা নিয়েছি। তারা বলেছিল, ভালো রেজাল্ট করে আসতে পারলে খরচের বিষয়টা সমন্বয় করা হতে পারে। শেষ পর্যন্ত অবশ্য একটা স্পন্সর পাওয়ায় তারা আগেই খরচটা দিতে রাজি হয়েছে। ’

শাহরিয়ার ধানমণ্ডির উডেন ফ্লোর জিমনেসিয়ামে খেলেই বড় হয়েছেন। সেই কোর্ট ভেঙে ফেলায় বাস্কেটবল ফেডারেশন যেমন নিজস্ব ভেন্যু হারিয়েছে, তেমনি খেলোয়াড়রাও হারিয়েছেন যখন-তখন অনুশীলনের সুযোগ। শাহরিয়ার জানান, এই টুর্নামেন্টের জন্য সেন্ট যোসেফ স্কুলের কোর্টে তাঁরা অনুশীলন করছেন। দলের অন্য তিন সদস্য হলেন কাজী ফাইয়াজ রেজা, সওগাত রশীদ ও ফারহান ইসলাম। ম্যানেজার হিসেবে যাচ্ছেন তারেক আজিজ।



সাতদিনের সেরা