kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০২২ । ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ । ১২ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

এবার সহজ জয়ের তীরে

ছন্দে ছিলেন ম্যাচসেরা মেহেদী হাসান মিরাজ। এক ম্যাচ আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপে ওপেন করতে নেমে করেছিলেন নিজের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৩৮ রান। এবার নিজেকে ছাড়িয়ে গিয়ে করলেন ৪৬ রান

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



এবার সহজ জয়ের তীরে

লিটন-মিরাজের ৪১ রানের জুটি

ক্রীড়া প্রতিবেদক : প্রথম টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে রীতিমতো কাঁপিয়ে দিয়েছিল সংযুক্ত আরব আমিরাত। জিততে জিততেও সাত রানে হেরে যাওয়া দলটি অবশ্য শেষ ম্যাচে তেমন কোনো রোমাঞ্চই তৈরি করতে পারল না। দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে গত রাতে ১৭০ রানের লক্ষ্য তাড়ায় নামা আমিরাত পাওয়ার প্লে শেষ হতে না হতেই পথ হারায়। সপ্তম ওভারে আক্রমণে আসা মোসাদ্দেক হোসেন টানা দুই বলে জোড়া শিকার ধরতেই ২৯ রানে চার উইকেট হারানো দলে পরিণত হয় তারা।

বিজ্ঞাপন

সেখান থেকে চুন্দান রিজওয়ানের (৩৬ বলে ৫১*) ফিফটি এবং বাসিল হামিদের (৪০ বলে ৪২) ব্যাটে গড়া প্রতিরোধ হারের ব্যবধানই কমিয়েছে কেবল। স্বাগতিকরা থেমেছে অনেক দূরেই, পাঁচ উইকেটে ১৩৭ রানে। সুবাদে ৩২ রানের সহজ জয় দিয়েই আমিরাত সফর শেষ করে আজ দেশে ফিরছে ২-০-তে সিরিজ জেতা নুরুল হাসানের দল।

চতুর্থ উইকেটে রিজওয়ান-বাসিল মিলে ৭১ বলে যোগ করেন ৯০ রান। শেষে রানের গতি একটু বাড়ালেও জুটির ৫০ রান তুলতে গিয়ে তাঁদের ৪৪ বল খেলে ফেলা ম্যাচ থেকে ছিটকেও দেয় আমিরাতকে। বাসিলকে ফিরিয়ে এই জুটি ভাঙেন এবাদত হোসেন। এর আগে ইনিংসের তৃতীয় ওভারেই চিরাগ সুরিকে ফিরিয়ে প্রথম আঘাত হানেন নাসুম আহমেদ। এই বাঁহাতি স্পিনারকে টানা দুই বলে ছক্কা মারা আরেক ওপেনার মোহাম্মদ ওয়াসিমকেও টিকতে দেননি তাসকিন আহমেদ। এর পরই মোসাদ্দেকের জোড়া আঘাত। এই অফস্পিনারকে তুলে মারার চেষ্টায় আরিয়ান লাকরা ক্যাচ হওয়ার পরের বলেই বোল্ড ভ্রিতিয়া অরবিন্দও।

এর আগে নিজেদের ব্যাটিংয়েও উন্নতির ছাপ রেখেছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে পাওয়ার প্লেতে লণ্ডভণ্ড হলেও এবার সেই ভুল করল না সফরকারীরা। যদিও ওপেনিংয়ে যথারীতি ব্যর্থ সাব্বির রহমান (১২)। তবে ছন্দে ছিলেন তাঁর ওপেনিং সঙ্গী ম্যাচসেরা মেহেদী হাসান মিরাজ। এক ম্যাচ আগেই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপে করেছিলেন নিজের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ৩৮ রান। এবার নিজেকে ছাড়িয়ে গিয়ে ছিলেন প্রথম ফিফটির অপেক্ষায়ও। তবে আম্পায়ারের বিতর্কিত সিদ্ধান্তে ৪৬ রানেই থামতে হয় ৩৭ বল খেলা ব্যাটারকে। অন্য কেউ বড় ইনিংস না খেললেও লিটন দাস (২০ বলে ২৫), মোসাদ্দেক (২২ বলে ২৭), ইয়াসির আলী (১৩ বলে ২১*) ও নুরুলদের (১০ বলে ১৯*) অবদানে ১৬৯ রানের বড় পুঁজিই জমা করে বাংলাদেশ।



সাতদিনের সেরা