kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

মানসিকতা বদলের প্রথম পদক্ষেপ শ্রীরাম

২০ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



মানসিকতা বদলের প্রথম পদক্ষেপ শ্রীরাম

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টি-টোয়েন্টি ব্যর্থতার বৃত্ত ভাঙতে একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে রাখার কথা আগের দিনই সংবাদমাধ্যমকে বলেছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান। পরদিনই সেটি জানিয়েও দিলেন। এশিয়া কাপ থেকে নতুন করে শুরুর লক্ষ্যে বাংলাদেশের টি-টোয়েন্টি দল পরিচালনার কাঠামো বদলে ফেলার পথে প্রথম পদক্ষেপটিও নিয়ে ফেলেছে দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট প্রশাসন। নতুনের হাওয়ায় উড়ে আগামীকাল ঢাকায় পা রাখতে চলেছেন আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজি রয়াল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর সহকারী ব্যাটিং ও স্পিন বোলিং কোচ শ্রীধরন শ্রীরাম।

বিজ্ঞাপন

আগামী অক্টোবর-নভেম্বরে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত তাঁর নিয়োগ আপাতত টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট হিসেবেই।

ঢাকায় পা রাখার দু-এক দিনের মধ্যে ভারতের সাবেক এই ক্রিকেটারের পদ-পদবি বদলে যাওয়ার সম্ভাবনাও দেখিয়ে রেখেছেন বিসিবি সভাপতি। এমনিতে টি-টোয়েন্টির দায়িত্ব থেকে বর্তমান হেড কোচ রাসেল ডমিঙ্গোকে অব্যাহতি দিয়ে ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্সকে এশিয়া কাপে মূল দায়িত্ব দিয়ে পাঠানোর একটি আলোচনা ছিল। তবে সেরকম কিছু যে হচ্ছে না, নাজমুল তা নিশ্চিত করেছেন যেমন, তেমনি আইসিসির ঠাসা ভবিষ্যৎ সফরসূচি (এফটিপি) সামনে রেখে ডমিঙ্গোর ওপর থেকে চাপ কমানোর ভাবনার কথাও শুনিয়েছেন।  

তাঁকে কুড়ি-বিশের ক্রিকেট থেকে সরিয়ে দেওয়া হলে শ্রীরামই এই সংস্করণের হেড কোচ হবেন কি না, তা অবশ্য নিশ্চিত করেননি নাজমুল। তাঁর নিয়োগ চূড়ান্ত জানিয়ে শুধু বলেছেন, ‘শ্রীরাম আমাদের সংক্ষিপ্ত তালিকায় ছিলেন। ২১ তারিখ দুপুরবেলা আসার কথা রয়েছে তাঁর। সে নিশ্চিতভাবেই হেড কোচ হিসেবে আসছে না। সে আসছে টেকনিক্যাল কনসালট্যান্ট হিসেবে। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত থাকবে সে। ’ বর্তমান হেড কোচকে টি-টোয়েন্টির দায়িত্ব থেকে মুক্তি দেওয়া হবে কি না, সেটি সোমবার ডমিঙ্গো, শ্রীরাম ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বলেও জানিয়ে রেখেছেন।

যদিও ডমিঙ্গোকে টেস্ট আর ওয়ানডেতেই ব্যস্ত রাখার সিদ্ধান্তও চূড়ান্ত বলে মনে হতে পারে বিসিবি সভাপতির কথায়, ‘আমরা টি-টোয়েন্টি মানসিকতায় বদল আনতে চাচ্ছি। সেটি ডমিঙ্গোকে রেখে নাকি বাদ দিয়ে, সে আলোচনা হয়নি এখনো। এখন পর্যন্ত ভাবনা হচ্ছে, ডমিঙ্গো টেস্ট এবং ওয়ানডেতে মনোযোগ দেবে। ’ ডমিঙ্গোর ভার কমানো বাস্তবসম্মত বলেও মনে করেন তিনি, ‘সামনে যে পরিমাণ খেলা, ডমিঙ্গোর পক্ষে এত ভ্রমণ করা সম্ভবই হবে না। অনেক সিরিজে সে যেতেই পারবে না। কারণ তার তো ছুটিও লাগবে। সামনের এফটিপিতে অনেক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। এই দায়িত্ব আরেকজনকে দেওয়া মানে তার ভার অনেক কমে গেল। ’

ডমিঙ্গোর ভার কমানোর ভাবনায় ঢুকে পড়া শ্রীরামকে বেছে নেওয়ার কারণ ব্যাখ্যায় নাজমুল বলছিলেন, ‘‘বেশ কয়েকটি বিবেচনায় তাকে নেওয়া হয়েছে। আইপিএলের সঙ্গেও তার সম্পৃক্ততা আছে। আমরা এমন কাউকে চাচ্ছিলাম, যার ‘হাই গ্রেড’ টি-টোয়েন্টির অভিজ্ঞতা আছে। এটি একটি কারণ। তা ছাড়া আরেকটি ব্যাপার হলো, এবারের বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়ায়। সেখানে সে বহুদিন কাজ করেছে। এই দুটো কারণেই আমরা তাঁকে বিশ্বকাপ পর্যন্ত নিয়েছি। ’’ শ্রীরামের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার সাদামাটা হলেও প্রথম শ্রেণিতে ১৮ বছরের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা। খেলা ছাড়ার পর অবশ্য দ্রুতই কোচ হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠা করে ফেলেন। ‘এ’ দলের কোচ হিসেবে দক্ষতার প্রমাণ দেওয়ার পর তাঁকে অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলে স্পিন বোলিং পরামর্শক হিসেবে কাজ করার সুযোগ করে দেন ড্যারেন লেম্যান। এই ভূমিকায়ও সাফল্য পাওয়ায় চার বছর (২০১৮-২০২২) অস্ট্রেলিয়ার সহকারী কোচ হিসেবেও কাজ করেন। নিজে থেকেই সেই দায়িত্ব ছেড়ে আসা শ্রীরাম রয়াল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর আগে কাজ করেছেন কিংস ইলেভেন পাঞ্জাব এবং দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের হয়েও।



সাতদিনের সেরা