kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ । ১৪ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ২ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

অনেক নাটকের পর...

‘নতুন পরিবেশে’ ফিরছেন সাকিব

১২ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



‘নতুন পরিবেশে’ ফিরছেন সাকিব

ফাইল ফটো

ক্রীড়া প্রতিবেদক : নানা কাণ্ডে এর আগেও বেশ কয়েকবার নিজেকে খাদের কিনারায় নিয়ে দাঁড় করিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। বেটিং সাইটের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান বেটউইনার নিউজের সঙ্গে বিতর্কিত চুক্তি করে এই অলরাউন্ডার আবারও একই জায়গায় নিজেকে আবিষ্কার করেন। তারুণ্যের সেরা সময় অনেকটাই পেছনে ফেলে আসা এই তারকা ক্রিকেটারের জন্য গতকাল দুপুরেই এমন ভাষায় চরম বার্তা ঘোষণা করে দেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান, ‘ওটা থেকে সম্পূর্ণ বের হয়ে আসতে হবে ওকে। না হলে সে আমাদের দলেই থাকবে না, অধিনায়কত্ব তো পরের ধাপ।

বিজ্ঞাপন

দলেই থাকার সুযোগ নেই। ’

এই যুগে মুহূর্তেই সেই বার্তা তাঁর কাছে পৌঁছে না যাওয়ার কোনো কারণ নেই। তাই গতকাল দুপুরে ধানমণ্ডিতে নিজের কর্মস্থলের রিসেপশনে দাঁড়িয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে নাজমুলের ঝাঁজালো প্রতিক্রিয়ার ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই সাকিবের ই-মেইল। যুক্তরাষ্ট্র থেকে বেটউইনার নিউজের সঙ্গে চুক্তি বাতিলের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে এ যাত্রায় পার পেয়ে যাওয়াও নিশ্চিত করেন তিনি। যত দূর জানা গেছে, শনিবার তাঁকে তলব করেছেন বিসিবি সভাপতি। সেদিন সকালেই যুক্তরাষ্ট্র থেকে দেশে ফেরার কথা রয়েছে সাকিবের। না জানিয়ে বেটউইনার নিউজের সঙ্গে চুক্তি করার জন্য ব্যাপক জিজ্ঞাসার মুখেও পড়ার কথা আছে তাঁর। কারণ চুক্তি বাতিল করলেও এ ক্ষেত্রে আগে বিসিবির সঙ্গে কেন্দ্রীয় চুক্তির শর্তও ভেঙেছেন তিনি। আপাতত বিষয়টি নিয়ে দেশের সর্বোচ্চ ক্রিকেট প্রশাসনকে নমনীয় বলে মনে হলেও বাস্তবে অতটা নয় নিশ্চিতভাবেই। বরং শনিবার দেশে ফেরা যেন এই অলরাউন্ডারকে ‘নতুন পরিবেশে’ই স্বাগত জানাচ্ছে, যেখানে আগের মতো আর ছাড়ের দুনিয়াও উন্মুক্ত হয়ে নেই।

উন্মুক্ত থাকলে টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্বের ভাবনা থেকে কালই তাঁকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করে ফেলত না বিসিবি। সরাসরি না বললেও সে আভাসও কি গতকাল নাজমুল দেননি? ‘আমরা কি এক ম্যাচের জন্য মোসাদ্দেককে অধিনায়ক করিনি?’—একাধারে সম্ভাব্য অধিনায়ক হিসেবে বিবেচনায় থাকা লিটন কুমার দাস ও নুরুল হাসান সোহানরা চোটে পড়ার পরও অধিনায়ক বেছে নেওয়া নিয়ে কোনো চাপ নেই বলেই দাবি করেছেন নাজমুল। অন্য একাধিক সূত্র অবশ্য বিতর্কিত চুক্তি করার দায়ে সাকিবকে নেতৃত্ব দেওয়া নিয়ে বিসিবির ভাবনার দিকবদলের বিষয়টি নিশ্চিতই করেছে একরকম। অথচ জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করে পাওয়া এক বছরের নিষেধাজ্ঞা শেষ করে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পর টেস্ট অধিনায়ক হতেও খুব বেশি সময় লাগেনি তাঁর। এ রকম কাউকে আর কখনো নেতৃত্ব না দেওয়ার নীতিই অন্যান্য দেশে মানা হয়। ২০১৪ সালে বিসিবির অনাপত্তিপত্র না নিয়েই সিপিএল খেলতে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের পথে রওনা হয়ে যাওয়া সাকিবকে মাঝপথ থেকে ফেরানো হয়েছিল দেশে। ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞাও পরে কমে এসেছিল। সেই ঘটনা আর আইসিসির নিষেধাজ্ঞার মাঝামাঝি সময়ে আবারও অধিনায়ক হওয়া সাকিব এর আগে বিতর্কিত নানা কাণ্ডের পরও ব্যাপক জনসমর্থন পেয়ে এসেছেন। এমনকি জুয়াড়ির প্রস্তাব গোপন করার পরও ভক্তদের ভালোবাসায় ভাটার টান পড়তে দেখা যায়নি। তবে এবারের বিতর্কিত চুক্তির ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিরঙ্কুশ সেই সমর্থনও আর লক্ষ করা যাচ্ছে না। সেই সঙ্গে নেতৃত্ব বিষয়ে বোর্ডেরও অবস্থান নিয়ে ফেলাটা এবার যেন সত্যিই নতুন পরিবেশে এনে ফেলছে সাকিবকে!



সাতদিনের সেরা