kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৬ অক্টোবর ২০২২ । ২১ আশ্বিন ১৪২৯ ।  ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

চার সেঞ্চুরিতেই পার্থক্য

৮ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



চার সেঞ্চুরিতেই পার্থক্য

রাজার দুইয়ে দুই

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টানা দুই ম্যাচ হেরে এরই মধ্যে সিরিজ খুইয়ে বসে থাকা বাংলাদেশ পিছিয়ে ২-০-তে; কিন্তু তামিম ইকবালের কথা শুনলে মনে হবে তিন ওয়ানডের সিরিজের এক ম্যাচ বাকি থাকতে বাংলাদেশ আসলে ৪-০-তেই পিছিয়ে। ওয়ানডে অধিনায়কের কথা শুনলে সে রহস্যোদ্ধার হতে বাধ্য। সিরিজ হারার পর পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে সঞ্চালককে নিজেদের এই দুরবস্থার ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বাঁহাতি ওপেনার বলছিলেন, ‘আসলে এই সিরিজে পার্থক্য গড়ে দিয়েছে সেঞ্চুরিই। ওরা সেঞ্চুরি করেছে চার-চারটি আর আমরা একটিও নয়।

বিজ্ঞাপন

নিজের দলের কারো ব্যাটে একটিও সেঞ্চুরি দেখতে না পাওয়ার দায়ও নিচ্ছেন তিনি। সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডের উদাহরণ দিয়েই বললেন, ‘আমরা কিন্তু শুরু ভালোই করেছিলাম; কিন্তু কেউই ইনিংসটা বড় করে সেঞ্চুরির দিকে নিয়ে যেতে পারিনি। ’ এই না পারার পেছনে কোনো কিছুতেই অজুহাত হিসেবে দাঁড় করালেন না তামিম। এমনকি হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে দ্বিতীয় ওয়ানডের উইকেটও বড় রান করার উপযোগী ছিল বলেই মনে করেন তিনি, ‘উইকেট শুরু থেকেই বেশ ভালো ছিল (রান করার জন্য)। ’

প্রথম ওয়ানডেতে একাদশে বাঁহাতি স্পিনার না রাখার ভুল এই ম্যাচে আর করেনি বাংলাদেশ। এবার তাইজুল ইসলামকে নিয়ে নামে তারা। একাদশে জায়গা হয় হাসান মাহমুদেরও। ব্যতিক্রম বলতে এই তরুণ পেসারের কথাই বলতে হয়। ৪৭ রানে ২ উইকেট নেওয়া হাসানই যা একটু ভোগাতে পেরেছেন জিম্বাবুয়ের ব্যাটারদের। ইয়র্কারে কখনো কখনো কাঁপিয়ে দিয়েছেন সেঞ্চুরিয়ান রেজিস চাকাভাকেও। শুরুর দিকে তাঁর সুইংয়ে নিয়মিতই পরাস্ত হচ্ছিলেন স্বাগতিক দলের টপ অর্ডার ব্যাটাররা। তবে অন্য পেসারদের বলে ধার কিংবা কার্যকারিতা ছিলই না বলা চলে। আর টানা দুই সেঞ্চুরিতে সিরিজের ভাগ্য গড়ে দেওয়া সিকান্দার রাজার সঙ্গে জিম্বাবুয়ের অধিনায়ক চাকাভার জুটি জমে যেতেই যেন বোলিং থেকে জয়ের তাড়নাও উধাও হয়ে যায় তাঁদের। সেই সঙ্গে জঘন্য ফিল্ডিংয়েরও বাংলাদেশের সিরিজ হারের নেপথ্যে বড় ভূমিকা। অফস্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ এবং তাইজুলরাও পারেননি দলকে যথাসময়ে ব্রেক থ্রু এনে দিতে। তবে নিজেদের ব্যর্থতা নয়, জিম্বাবুয়ের সাফল্যকেই তামিম কৃতিত্ব দিলেন বেশি। এমনকি নিজেদের সবচেয়ে পছন্দের সংস্করণেও এবার জিম্বাবুয়ের এগিয়ে থাকা মেনে নিতে কোনো দ্বিধা নেই তাঁর, ‘স্পিনারদের বিপক্ষে রান করা কিন্তু খুব সহজ ব্যাপার ছিল না। সব কৃতিত্বই জিম্বাবুইয়ানদের। এই সিরিজে ওরাই আমাদের চেয়ে ভালো দল ছিল। আমাদের তাই নিজেদের মেলে ধরতে হবে। আমরা মোটেও আমাদের সেরা ক্রিকেটটা এখানে খেলতে পারিনি। এ জন্যই আমাদের (চলতি সিরিজে) এই বাজে অবস্থা। ’   

এদিকে সিরিজজয়ী দলের অধিনায়ক চাকাভা এখন শেষ ওয়ানডে জেতারও লক্ষ্য স্থির করেছেন। নিজের প্রথম ওয়ানডে সেঞ্চুরি দিয়ে সিরিজ জয় রাঙানো এই ব্যাটার ৫৫তম ম্যাচে প্রথমবার তিন অঙ্ক ছুঁয়ে বলছিলেন, ‘বেটার লেট দ্যান নেভার। সিরিজ জেতাটা অনেক বড় কিছু আমাদের জন্য। আমরা ভালো ক্রিকেট খেলছিলাম। ভালো ক্রিকেট খেলার তাগিদও নিজেদের ভেতর থেকেই আসছিল। চেষ্টা করেছি ইতিবাচক ক্রিকেট খেলে যেতে। কোচরা বলছিলেন খেলাটিকে গভীরে নিয়ে গিয়ে ইতিবাচক খেলা খেলতে। সেই চেষ্টাই করেছি। আমাদের আবারও ভালো ক্রিকেট খেলতে হবে। কারণ আমরা চাই শেষ ওয়ানডেটিও জিততে। ’ আর সিরিজ জয়ের নায়ক রাজা দলের ব্যাটিং গভীরতা বাড়ার সন্তুষ্টির কথা বললেন, ‘একটি সেঞ্চুরি আমি করলাম, আরেকটি রেজিস। দুর্দান্ত একটি ক্যামিও এসেছে টনির (মুনিয়োঙ্গা) ব্যাট থেকেও। এটিই আমাদের স্কোয়াডের গভীরতার জানান দিচ্ছে। ’



সাতদিনের সেরা