kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

পাঁচ আসর পর খালি হাতে বাংলাদেশ

ব্যক্তিগত ও দলীয় কোনো বিভাগেই গর্ব করার মতো কিছু করে দেখাতে পারেননি কেউ। পদকপ্রসবা শ্যুটিং আর সম্ভাবনাময় আর্চারি না থাকায় টানা পাঁচ আসর পর কমনওয়েলথ গেমস থেকে তাই খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে টিম বাংলাদেশকে।

৬ আগস্ট, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ব্যর্থতায় শুরু, শেষটাও বিবর্ণ। বলার মতো কোনো অর্জনই নেই টিম বাংলাদেশের। দেশ ছাড়ার আগে কারো মুখে উচ্চারিত হয়নি পদক জয়ের কথা। বার্মিংহামে পোডিয়ামে উঠতেও পারেননি বাংলাদেশের কোনো অ্যাথলেট।

বিজ্ঞাপন

ব্যক্তিগত ও দলীয় কোনো বিভাগেই গর্ব করার মতো কিছু করে দেখাতে পারেননি কেউ। পদকপ্রসবা শ্যুটিং আর সম্ভাবনাময় আর্চারি না থাকায় টানা পাঁচ আসর পর কমনওয়েলথ গেমস থেকে তাই খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে টিম বাংলাদেশকে। অ্যাথলেটিকস, সাঁতার, কুস্তি, ভারোত্তোলন, টেবিল টেনিস, উচ্চলাফ, বক্সিং এবং জিমন্যাস্টিকস—এই সাতটি ডিসিপ্লিনে অংশ নিয়েছিল বাংলাদেশ। এর সবগুলোতেই প্রাপ্তির খাতায় বড় বড় শূন্য!

বাংলাদেশের কেউ যে পদক জিতবে না, তা আগে থেকে জানা ছিল। তবে দুই প্রবাসী স্প্রিন্টার ইমরানুর রহমান এবং নিউজিল্যান্ডপ্রবাসী জিমন্যাস্ট আলী কাদের কেমন করেন, এ নিয়েই ছিল শুধু খানিকটা কৌতূহল। কিন্তু  প্রত্যাশার ছিটেফোঁটাও মেটাতে পারেননি তাঁদের কেউই।

ট্র্যাক অ্যান্ড ফিল্ডের সবচেয়ে আকর্ষণীয় ইভেন্ট ১০০ ও ২০০ মিটার স্প্রিন্টে অংশ নিয়েছিলেন তিনজন। ইমরানুর রহমান, সুমাইয়া দেওয়ান এবং রাকিবুল হাসান—তিনজনই বাদ পড়েছেন হিটে। লন্ডনপ্রবাসী ইমরানুর ১০.৪৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে নিজের হিটে হয়েছিলেন তৃতীয়। কিন্তু পরের রাউন্ডে জায়গা করে নেওয়ার মতো দৌড়টা তিনি দিতে পারেননি একদমই। নিজের সেরা সময়ের কাছেও যেতে পারেননি ইমরানুর। ২০০ মিটার স্প্রিন্টে রাকিবুল হাসান হিটে আটজনের মধ্যে হয়েছেন সপ্তম। তিনি সময় নিয়েছিলেন ২২.৪৬ সেকেন্ড। করোনার ধকল কাটিয়ে ট্র্যাকে নামতে পেরেই অবশ্য তাঁর খুশি থাকার কথা। মেয়েদের ১০০ মিটার স্প্রিন্টে সুমাইয়া দেওয়ান ১২.৪২ সেকেন্ডের সেই ‘সেরা’ টাইমিং করেও হিটে সাতজনের মধ্যে হয়েছেন সপ্তম। জিমন্যাস্টিকসে সেরা আটে থাকতে পারেননি আলী কাদের হক, শিশির আহমেদ ও সাঈদ রাফিরাও।

সাঁতারের পুলের গল্পটাও অভিন্ন। পুরুষদের ৫০ মিটার বাটারফ্লাইয়ে মাহমুদুন নবী নাহিদ আটজনের মধ্যে অষ্টম; সোনিয়া খাতুন, আসিফ রেজা, সুকুমার রাজবংশীরা দেশকে গর্ব করার মতো কিছু করে দেখাতে পারেননি। বক্সিংয়ে সুরো কৃষ্ণ, সেলিম হোসেন, আলী হোসেন। ভারোত্তোলনে আশিকুর রহমান তাজ, মনিরা কাজী, মাবিয়া আক্তার সীমান্তরাও এই ব্যর্থতার মিছিলেই। এই হতাশার মাঝে টেবিল টেনিসে কিছুটা আলো ছড়িয়েছেন সোনম সুলতানা সোমা, সাদিয়া ইসলামরা।

টানা পাঁচ আসর পর কমনওয়েলথ গেমস থেকে খালি হাতে ফিরছে বাংলাদেশ।

 



সাতদিনের সেরা