kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

বড় পরিসরে স্কুল দাবার যাত্রা

৫ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : দাবার অচলায়তন ভাঙতে বড় পরিসরে শুরু হচ্ছে স্কুল দাবা। নতুন দাবাড়ু তৈরিতে গতকাল শুরু এই টুর্নামেন্টের নাম ‘মার্কস অ্যাক্টিভ স্কুল চেস চ্যাম্পস’ যেখানে অংশ নিচ্ছে সারা দেশের চার শ স্কুল।

দাবা অঙ্গনে খুব পরিচিত টুর্নামেন্ট ছিল স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড স্কুল দাবা। এটি সর্বশেষ হয়েছে ২০১৩ সালে, এর পর থেকে নেই স্কুলপড়ুয়াদের জন্য দাবা খেলার বড় কোনো প্ল্যাটফরম।

বিজ্ঞাপন

আট বছর পর আবার দেশব্যাপী শুরু হচ্ছে স্কুল দাবার ব্যাপক কার্যক্রম। দাবা ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাহাবউদ্দিন শামীম বলেছেন, ‘আগে কখনো এত বড় পরিসরে স্কুল দাবা হয়নি। এবার ৬৪ জেলায় চার শ স্কুলের দুই হাজার খুদে দাবাড়ু অংশ নেবে। আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে এটাকে সফলভাবে শেষ করার পরিকল্পনা আমাদের। ’ আগের ফরম্যাটে এই টুর্নামেন্টে কোনো স্কুল দল হয়ে খেলত না। এখন খেলবে দল হয়ে এবং প্রত্যেক দলে থাকবে ছয়জন করে। মূল টুর্নামেন্ট শুরু হবে জুলাইয়ের মাঝামাঝিতে। জেলার লড়াই শেষে বিভাগীয় পর্যায়ে খেলা হবে এবং শেষে ঢাকায় ১০টি স্কুল দলের লড়াইয়ের মাধ্যমে শিরোপা নির্ধারিত হবে।

আবুল খায়ের গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় এই টুর্নামেন্টের উদ্বোধন হয়েছে গতকাল ঢাকায় এক পাঁচতারা হোটেলে। জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এ উপলক্ষে ৫০ জন স্কুল ছাত্র-ছাত্রীর সঙ্গে সিমুলটেনিয়াস গেম খেলেছেন গ্র্যান্ড মাস্টার নিয়াজ মোরশেদ, জিয়াউর রহমান ও এনামুল হোসেন রাজীব। তাদের মধ্যে সাড়ে ছয় বছর বয়সী সারাহ অবিশ্বাস্যভাবে ম্যাচ ড্র করে উপমহাদেশের প্রথম গ্র্যান্ডমাস্টার নিয়াজ মোরশেদের সঙ্গে। এই গ্র্যান্ডমাস্টার বক্তৃতা দেওয়ার সময় খুদে দাবাড়ুকে ডেকে নেন এবং বলেন, ‘সারাহ খুব ভালো খেলেছে আমার বিপক্ষে। এই টুর্নামেন্ট থেকে এ রকম অনেক প্রতিভা উঠে আসবে, তারা যেন হারিয়ে না যায়। টুর্নামেন্টের পর তাদের নিয়ে যেন কাজ করা হয়। ’

সবাইকে আশ্বস্ত করে দাবা ফেডারেশনের সভাপতি ও পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘এই টুর্নামেন্টের মাধ্যমে আমরা ভবিষ্যতের গ্র্যান্ডমাস্টার তৈরি করতে চাই। এখানে যারা ভালো করবে তাদের নিয়ে তো প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা হবে। এ ছাড়া প্রতিভাবান চার দাবাড়ুকে (দুজন করে ছেলে ও মেয়ে) স্পেনে পাঠিয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। ’ টুর্নামেন্টের চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ১০ লাখ টাকা আর রানার্স আপ দল পাবে পাঁচ লাখ টাকা।



সাতদিনের সেরা