kalerkantho

শনিবার । ২০ আগস্ট ২০২২ । ৫ ভাদ্র ১৪২৯ । ২১ মহররম ১৪৪৪

বিতর্কের রেশ ম্যাচ শেষেও

ক্ষমা চাইলেন নাদাল

৪ জুলাই, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বিতর্কের রেশ ম্যাচ শেষেও

একটা সময় দ্বৈতে ছিলেন জুটি। সেই নিক কিরগিওস আর স্তেফানোস সিতসিপাস জড়ালেন দ্বন্দ্বে। উইম্বলডনে তুমুল বিতর্কের ম্যাচে ছড়াল উত্তেজনা। এর রেশ ছিল সংবাদ সম্মেলনেও।

বিজ্ঞাপন

শেষ হাসিটা অবশ্য ‘ব্যাডবয়’ কিরগিওসের। চতুর্থ বাছাই সিতসিপাসকে ৬-৭, ৬-৪, ৬-৩, ৭-৬ গেমে হারিয়েছেন তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচটিতে। অন্য ম্যাচে রাফায়েল নাদাল ৬-১, ৬-২, ৬-৪ গেমে হরিয়েছেন লরেঞ্জো সরেঞ্জোকে। কোর্টে চিত্কার করায় ম্যাচ চলার সময়ই মেজাজ হারিয়ে সরেঞ্জোকে নেটের কাছে ডেকে নিয়ে কথা বলেছেন নাদাল। অবশ্য কৃতকর্মের জন্য ক্ষমা চেয়েছেন ম্যাচ শেষে, ‘আমারই ভুল। এটা লকার রুমে করতে পারতাম। ওকে নেটে ডাকা ঠিক হয়নি। ক্ষমা চাইছি। ’

নাদাল মিটমাট করে নিলেও কিরগিওস-সিতসিপাসের তুমুল বিতর্কের রেশ কাটেনি ম্যাচ শেষেও। বিতর্কের শুরু দ্বিতীয় সেট শেষে। সেই সেটটি হারায় হতাশায় গ্যালারির দর্শকদের দিকে বল মারেন সিতসিপাস। এর পরই আম্পায়ারের কাছে তাঁকে বহিষ্কারের দাবি জানান কিরগিওস। উদাহরণ দেন ২০২০ ইউএস ওপেনে লাইন জাজকে বল মেরে নোভাক জোকোভিচের বহিষ্কারের ঘটনাটির। এর জেরেই কি না, তৃতীয় সেটে মেজাজ হারিয়ে কিরগিওসের শরীর লক্ষ্য করে আন্ডারআর্ম সার্ভ করেছিলেন সিতসিপাস। তাতে শাস্তি হিসেবে ১ পয়েন্ট পেনাল্টি গুনতে হয়েছে তাঁকে। কোর্টে মেজাজ দেখানোয় সতর্ক করা হয় কিরগিওসকেও। ম্যাচ শেষে প্রতিপক্ষকে একহাত নিয়েছেন সিতসিপাস, ‘কিরগিওস বিপক্ষকে কটাক্ষ করতে পছন্দ করে। হয়তো স্কুলে কেউ কটাক্ষ করেছিল ওকে। টেনিস খেলতে এসে মনে হচ্ছিল সার্কাস চলছে!’

এবারের উইম্বলডনেই দর্শকের দিকে থুতু ছিটিয়ে রেকর্ড ১০ হাজার ডলার জরিমানা গুনেছেন কিরগিওস। ২০১৬ সালে সাংহাই মাস্টার্সে নিয়ম ভাঙায় টুর্নামেন্ট থেকে বহিষ্কার করা হয় তাঁকে। তবু নিজেকে শোধরাননি এই অস্ট্রেলিয়ান। সিতসিপাসের অভিযোগ শুনে উল্টো বিস্মিত তিনিই, ‘আমি কী করলাম? আমার দিকে বল ছুড়ে মারল ও, দর্শকদের দিকেও মারল। আসলে গত মাসে ওকে হল ওপেনে হারিয়েছিলাম। উইম্বলডনে হারালাম টানা দ্বিতীয়বার। এমন হতাশায়ই এসব করেছে ও!’ এএফপি



সাতদিনের সেরা