kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৬ আগস্ট ২০২২ । ১ ভাদ্র ১৪২৯ । ১৭ মহররম ১৪৪৪

তামিমের কাছেই শুনতে চায় বোর্ড

৬ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



তামিমের কাছেই শুনতে চায় বোর্ড

ক্রীড়া প্রতিবেদক : জিজ্ঞাসা ছিল আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে তাঁর ভবিষ্যৎ নিয়ে। গতকাল দুপুরে এর জবাব না দিয়ে বরং অভিযোগই করলেন তামিম ইকবাল, ‘টি-টোয়েন্টি নিয়ে আমার যে পরিকল্পনা, সেটি বলার সুযোগই আমাকে দেওয়া হয় না। হয় আপনারা (সংবাদমাধ্যম) বলে দেন, নয়তো অন্য কেউ বলে দেয়। এভাবেই চলতে থাকুক।

বিজ্ঞাপন

দ্বিতীয় অভিযুক্ত কে, তা স্পষ্ট না হলেও ইঙ্গিতটা ক্রিকেট প্রশাসনের দিকেই। যদিও সন্ধ্যায় লন্ডন থেকে টেলিফোনে তামিমের অভিযোগের কোনো ভিত্তি খুঁজে পেলেন না বিসিবির ক্রিকেট অপারেশনস কমিটির প্রধান জালাল ইউনুস, ‘তামিমকে বলতে দেওয়া হয় না, এটা ঠিক না। আমরা বলেই আসছি যে তামিম নিজের পরিকল্পনা নিজেই বলবে। আমাদের পক্ষ থেকে তো বলে দেওয়া হয়নি যে সে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি আর খেলবে না বা খেলবে। ’

বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার বিসিবির সঙ্গে তামিমের কথা হয়েছে জানিয়ে চট্টগ্রামে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা টেস্ট চলাকালীন জালালও বলেছিলেন যে, ‘কিছুদিনের মধ্যেই তামিম আপনাদের এ বিষয়ে নিজের অবস্থান জানাবে। ’ তবে এই সংস্করণে তামিমকে আবার পাওয়ার সম্ভাবনা যে কম, সে ইঙ্গিত দিতে দেখা গেছে বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসানকে। বিশেষ করে সময় থাকতে সিনিয়র ক্রিকেটারদের সরে যাওয়ার পরামর্শ দিতে গিয়ে সম্প্রতি উদাহরণ হিসেবে তামিমকেও টেনেছিলেন তিনি, ‘তামিম যেমন টি-টোয়েন্টি আর খেলছে না, রিয়াদও (মাহমুদ উল্লাহ) টেস্ট খেলা ছেড়ে দিয়েছে। ’ তামিমের অভিযুক্ত ‘অন্য কেউ’ তাই নাজমুল কি না, আছে এমন আলোচনাও। যদিও জালালের দাবি, বোর্ড সভাপতি তাঁর বক্তব্যে নিশ্চিতভাবেই সেরকম কিছু বোঝাননি, ‘‘আপনারা জানেন, তামিম ছয় মাসের ছুটি নিয়েছে এই সংস্করণ থেকে। আমি নিশ্চিত যে বোর্ড সভাপতি ‘টি-টোয়েন্টি আর খেলছে না’ বলতে ওই সময়টির কথাই বুঝিয়েছেন। ’’ গত ২৭ জানুয়ারি বিপিএল চলাকালীন ছয় মাসের জন্য আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে স্বেচ্ছা বিরতির ঘোষণা দেন তামিম, যা শেষ হওয়ার কথা আগামী ২৭ জুলাই।

অস্ট্রেলিয়ায় বিশ্বকাপেরও আর খুব বেশি বাকি নেই। বিরতির মেয়াদ শেষ হলে তাঁকে এই বৈশ্বিক আসরে আদৌ পাওয়া যাবে কি না, তা নিয়ে আশা আর সংশয়ের দোলাচল তামিমই দূর করবেন বলে অপেক্ষায় জালাল, ‘আমরা চাই তামিম নিজের মুখেই বলুক। ’ ২০২০ সালের মার্চে শেষবার বাংলাদেশের হয়ে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি খেলেছিলেন এই বাঁহাতি ওপেনার। এরপর কভিডের কারণে স্তব্ধ ক্রিকেট আবার মাঠে গড়ানোর পর এই সংস্করণে আর খেলেনইনি তিনি। চোট-আঘাতের সমস্যাও ছিল। তা পুরোপুরি কাটিয়ে উঠে যখন গত বছর অক্টোবর-নভেম্বরে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে খেলার অপেক্ষা, তখন আবার এক ভিডিও বার্তায় জানিয়ে দেন যে তিনি ওই বৈশ্বিক আসরে খেলবেন না। এরপর আসে স্বেচ্ছা বিরতির ঘোষণা। এই বিরতি শেষে তাঁকে আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দলে পাওয়া নিয়ে কয়েক দফা বিসিবি-তামিম দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কথাও পুনর্ব্যক্ত করলেন জালাল, ‘আমাদের মধ্যে অনেকবারই কথা হয়েছে। বোর্ড সভাপতির সঙ্গে বেশ কয়েকবারই কথা হয়েছে, হয়েছে আমার সঙ্গেও। নিজের সিদ্ধান্ত নেওয়ার স্বাধীনতা ওর অবশ্যই আছে। তবে আমরাও আমাদের যা বলার, ওকে বলেছি। ’ কী বলেছেন? ‘ও বিশ্বকাপ দলে থাকলে আমাদের ভালো হতো, এটিই বলা হয়েছে তামিমকে। ওর মতো অভিজ্ঞ ক্রিকেটারকে আমরা নিশ্চয়ই চাইব। এখন সে কী করবে, সেটি নিজেই জানাক। আমরাও চাই, তামিম নিজের মুখেই বলুক। ’ তাৎক্ষণিকভাবে সিদ্ধান্ত জানাতে আগ্রহী তামিমকে ভাবনা-চিন্তার জন্য সময় দেওয়ার কথাও জানালেন জালাল, ‘আমরা আমাদের চাওয়া জানিয়েছি। তামিম তখনই কিছু একটা বলতে চেয়েছিল। তবে আমরা বলেছি, সময় নাও। ’



সাতদিনের সেরা