kalerkantho

রবিবার । ১৪ আগস্ট ২০২২ । ৩০ শ্রাবণ ১৪২৯ । ১৫ মহররম ১৪৪৪

রক্ষণই মন্ত্র বাংলাদেশের

জাতীয় দলের স্প্যানিশ কোচ হাভিয়ের কাবরেরা বলেছেন, ‘দুই দলে ভাগ হয়ে ৬০ মিনিটের বেশি সময় ধরে ম্যাচ খেলেছে ফুটবলাররা। গতকাল দলের সঙ্গে যোগ দেওয়া সুফিলও (মাহবুবুর রহমান) মাঠে ছিল। সবাইকে আস্তে আস্তে ম্যাচের কৌশলে ঢুকতে হবে।’

৫ জুন, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : ইন্দোনেশিয়ার ম্যাচটিই হয়ে গেছে বাংলাদেশের এশিয়ান কাপ ফুটবল বাছাইয়ের মন্ত্র। এই প্রীতি ম্যাচের মতো রক্ষণাত্মক কৌশলেই বাছাই পর্বের তিন ম্যাচ খেলার পরিকল্পনা করছেন হাভিয়ের কাবরেরা।

কুয়ালালামপুরে এক দিন বিশ্রামের পর গতকাল শুরু হয়েছে দলের অনুশীলন। তবে কঠিন অনুশীলন হয়নি।

বিজ্ঞাপন

জাতীয় দলের স্প্যানিশ কোচ হাভিয়ের কাবরেরা বলেছেন, ‘দুই দলে ভাগ হয়ে ৬০ মিনিটের বেশি সময় ধরে ম্যাচ খেলেছে ফুটবলাররা। গতকাল দলের সঙ্গে যোগ দেওয়া সুফিলও (মাহবুবুর রহমান) মাঠে ছিল। সবাইকে আস্তে আস্তে ম্যাচের কৌশলে ঢুকতে হবে। ’ ৮ জুন থেকে শুরু বাছাই পর্বের কৌশল নিয়ে তিনি বিস্তারিত কিছু বলেননি। তবে বাহরাইন, মালয়েশিয়া ও তুর্কমেনিস্তানের মতো শক্তিশালী দলের বিপক্ষে জয়ের চিন্তা করার যে সুযোগ নেই, সেটা বলে দেওয়া যায়।

কারণ ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে গোলশূন্য ড্র ম্যাচটিই হয়ে গেছে তাদের সামনে চলার অনুপ্রেরণা। প্রীতি ম্যাচ ড্রয়ের পর কোচ-খেলোয়াড়রা উজ্জীবিত। তাঁদের উচ্ছ্বাস ও আত্মবিশ্বাস মিলিয়ে এখন এটাই হয়ে গেছে পরের ম্যাচগুলোর কৌশল। ‘আজ (কাল) ইন্দোনেশিয়ার ম্যাচের ভিডিও দেখিয়ে কোচ আমাদের সঙ্গে আলাপ করেছেন। কার কোথায় ভুল ছিল, সেগুলো দেখিয়েছেন। তাঁর কথাবার্তায় বুঝেছি, ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে যে ম্যাচ খেলেছি, সেভাবেই খেলতে হবে আমাদের পুরো টুর্নামেন্ট। রক্ষণভাগে আরো ভালো খেলতে হবে আমাদের’, বলেছেন ডিফেন্ডার ইয়াসিন আরাফাত। ইন্দোনেশিয়ার বিপক্ষে রক্ষণভাগ ভালো খেললেও পরাস্ত হয়েছিল কয়েকবার, গোলরক্ষক আনিসুর রহমানের নৈপুণ্যে শেষ পর্যন্ত সুরক্ষিত থাকে বাংলাদেশের গোলপোস্ট। বেশ কয়েকটি দুর্দান্ত সেভ করেছেন বসুন্ধরা কিংসের এই গোলরক্ষক।

তবে এ রকম সেভ প্রতি ম্যাচে হবে, এমন কোনো নিশ্চয়তা নেই। তাই এই গোলরক্ষক বারবার বলেছেন, ‘শক্তিশালী দলগুলোর বিপক্ষে ভালো করার উপায় একটাই—সবাইকে একসঙ্গে ভালো খেলতে হবে। বাহরাইনের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে আমাদের কঠিন পরীক্ষা হবে। এই ম্যাচ থেকে পয়েন্ট নিতে হলে আমাদের সর্বোচ্চটা দিতে হবে। ’ অর্থাৎ রক্ষণে কোনো ভুল করা চলবে না। রক্ষণভাগ নির্ভুল করার কাজ শুরু হবে আজ থেকে। ‘রক্ষণাত্মক কৌশলে খেলা ছাড়া আমাদের হাতে খুব বেশি বিকল্পও নেই। আমাদের যে সামর্থ্য আছে সে অনুযায়ীই খেলতে হবে। তা ছাড়া রিয়াল মাদ্রিদের মতো শক্তিশালী দলও অনেকখানি নিচে নেমে খেলে এবং কাউন্টারে দ্রুত আক্রমণে ওঠে। ভালোভাবে রক্ষণ সামাল দিয়ে আমাদের প্রতি আক্রমণে ওঠার কাজটা ঠিকঠাক করতে হবে’, বলেছেন দলের কোচিং স্টাফের এক সদস্য।   

এটা পরিষ্কার হয়ে গেল, এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের তিনটি ম্যাচে অগ্নিপরীক্ষা হবে বাংলাদেশ দলের রক্ষণভাগের। কুয়ালালামপুরে এই পরীক্ষা উতরানোর অনুশীলন আজ থেকে।

 



সাতদিনের সেরা