kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৩০ জুন ২০২২ । ১৬ আষাঢ় ১৪২৯ । ২৯ জিলকদ ১৪৪৩

বেশি ম্যাচ পেয়ে খুশি নিগার

২৬ মে, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বেশি ম্যাচ পেয়ে খুশি নিগার

ক্রীড়া প্রতিবেদক : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে নিয়মিতই খেলে বাংলাদেশ। তবে বাছাই পর্বের বাধা পেরিয়ে কদিন আগে প্রথমবার ওয়ানডে বিশ্বকাপ খেলেছে নিগার সুলতানার দল। গতকাল নিগার, সালমা, জাহানারাদের সুখবরই দিল আইসিসি। উইমেন্স চ্যাম্পিয়নশিপের পরবর্তী চক্রে আয়ারল্যান্ডের পাশাপাশি সুযোগ পেয়েছে বাংলাদেশও।

বিজ্ঞাপন

২০১৪-২০১৬ ও ২০১৭-২০২০ চক্রে ছিল শুধু আটটি দল। সেই আট দল অস্ট্রেলিয়া, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড, ভারত, পাকিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে ২০২২-২০১৫ চক্রে থাকছে বাংলাদেশ, আয়ারল্যান্ডও। আইসিসি র্যাংকিংয়ে ৯ ও ১০ নম্বরে থাকা দুই দলের অন্তর্ভুক্তিতে এবারের চক্রটা ১০ দলের।

আগামী তিন বছরে ১০ দলের সবাই আটটি করে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলবে। এর চারটি দেশের মাটিতে, বাকি চারটি প্রতিপক্ষের মাঠে। বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন মেগ ল্যানিংয়ের অস্ট্রেলিয়া, মিথালি রাজের শক্তিশালী ভারতের পাশাপাশি বাংলাদেশে আসবে পাকিস্তান ও আয়ারল্যান্ড। দেশের মাটিতে পাকিস্তান ও আয়ারল্যান্ডকে হারাতে পারলে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ বাড়বে বাংলাদেশের। বাকি চারটি সিরিজ খেলতে বাংলাদেশ যাবে নিউজিল্যান্ড, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা ও ওয়েস্ট ইন্ডিজে।

এই চক্রে সেরা পাঁচটি দল স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে সরাসরি সুযোগ পাবে ২০২৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ খেলার। বাকি দলগুলোকে খেলতে হবে বাছাই পর্ব। যোগ্যতা অর্জনের নতুন নিয়মের অংশ হিসেবে ওয়ানডে মর্যাদা পেয়েছে পাঁচ সহযোগী দেশ নেদারল্যান্ডস, পাপুয়া নিউ গিনি, স্কটল্যান্ড, থাইল্যান্ড ও যুক্তরাষ্ট্র। আইসিসির এ সিদ্ধান্তে খুশি বাংলাদেশ মেয়েদের দলের অধিনায়ক নিগার সুলতানা, ‘এটা আমাদের দলের জন্য খুব ভালো খবর। ভীষণ খুশি আমি। আমরা এত দিন অল্প ম্যাচ খেলারই সুযোগ পেতাম, নতুন সিদ্ধান্তে আরো বেশি ম্যাচ খেলতে পারব। নিজেদের অভিজ্ঞতা বাড়ানোর জন্য খুব ভালো হবে এটা। ঘরের মাঠের সিরিজগুলো থেকে সুবিধা নিতে হবে। তবে আসল চ্যালেঞ্জটা হচ্ছে বিদেশে ম্যাচ জেতা। ’

বর্তমান বিশ্বচ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া দেশের মাটিতে খেলবে ভারত, দক্ষিণ আফ্রিকা, পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে। বাংলাদেশের পাশাপাশি মেগ ল্যানিংয়ের দল সফর করবে ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড ও আয়ারল্যান্ডে। বাংলাদেশের মতো নতুন শক্তির দলের সঙ্গে খেলা নিয়ে মেগ ল্যানিং রীতিমতো উচ্ছ্বসিত, ‘বাংলাদেশ আর আয়ারল্যান্ডের এই চক্রে যুক্ত হওয়াটা শুধু তাদের সঙ্গে আমাদের খেলার সুযোগ নয়, শীর্ষ দলগুলোর বিপক্ষে তাদেরও মেলে ধরার সুযোগ। মেয়েদের ক্রিকেটকে যতটা সম্ভব শক্তিশালী করতে চাই আমরা। পরের স্তরের দেশগুলোর উন্নতি এই প্রক্রিয়ার বড় একটা অংশ। ’



সাতদিনের সেরা