kalerkantho

সোমবার ।  ১৬ মে ২০২২ । ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ১৪ শাওয়াল ১৪৪৩  

অবসরের ঘোষণাই দেবেন না তামিম

২৪ জানুয়ারি, ২০২২ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রীড়া প্রতিবেদক : মাশরাফি বিন মর্তুজা সুযোগটা দেননি। কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই ২০১৭ সালে শ্রীলঙ্কায় প্রথম টি-টোয়েন্টির টসের সময় এই ফরম্যাটের আন্তর্জাতিক ম্যাচ থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি। তামিম ইকবাল সেই সুযোগ চেয়ে নিয়েছিলেন, কিন্তু পাননি। বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পরশু মিডিয়াকে জানিয়ে দিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

বিষয়টি নিশ্চিত হতে ফোনে পাওয়া যায়নি তামিমকে। তবে তাঁর ঘনিষ্ঠজনদের বরাতে জানা গেছে, এই অবস্থায় নিজের টি-টোয়েন্টির ভবিষ্যৎ নিয়ে নতুন করে ভাবছেন বাঁহাতি ওপেনার। সেই ভাবনার কথা আজ কিংবা চলমান বিপিএলের সময়ই নাকি জানিয়ে দেবেন তিনি।

কী সেই সিদ্ধান্ত? তামিমের অতি ঘনিষ্ঠ একজন গতকাল জানিয়েছেন, ‘এই ফরম্যাটে বড়জোর এক বছর খেলবে। তাই ওটা আঁকড়ে রাখতে চায় না ও। তাড়িয়ে দেওয়ার আগে নিজে থেকেই সরে দাঁড়াতে চেয়েছিল। ’

কিন্তু সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিচ্ছেন না বলেই জানিয়েছে ওই সূত্র, ‘টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের আগে বোর্ডের শীর্ষকর্তাকে জানিয়েছিল তামিম। সঙ্গে এ-ও বলেছিল, এই ফরম্যাট থেকে সরে দাঁড়ানোর বিষয়টি জানানোর সুযোগ যেন ওকে দেওয়া হয়। ’ সেটি আর হয়নি। তাই নিজের মতো করেই একটি ঘোষণা ঠিক করেছেন তামিম। ২০২৩ বিশ্বকাপকে অনেক আগেই পাখির চোখ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক। সেটিকে সামনে রেখেই অন্তত পরবর্তী ওয়ানডে বিশ্বকাপ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি থেকে নিজেকে দূরে রাখার কথাই নাকি জনসমক্ষে জানাবেন তামিম ইকবাল।

সেই ঘোষণা আগেই একরকম দিয়েছিলেন তামিম। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ থেকে সরে দাঁড়ানোর সময়ও বলেছিলেন যে, টেস্ট আর ওয়ানডেকেই অগ্রাধিকার দেন তিনি। বিশেষ করে ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপ। ওটাই তামিমের সম্ভাব্য শেষ বিশ্বমঞ্চ। শেষটা ভালোভাবে করার লক্ষ্যে নিজের আন্তর্জাতিক সূচিও সাজিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি ২০২৩ বিশ্বকাপকে লক্ষ্য ধরে সম্ভাব্যদের তাজা রাখার জন্যও রোটেশন পদ্ধতির প্রস্তাব নিয়ে ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের সঙ্গে টুকটাক আলোচনাও করেছেন তামিম। নিজের অগ্রাধিকার তালিকার তিন নম্বরে থাকা টি-টোয়েন্টি খেলার জোর ইচ্ছা তাঁর নিজেরও নেই।

বরং নিজের স্ট্রাইক রেট, ব্যাটিংয়ের ধরন নিয়ে চারপাশের সমালোচনার স্রোতে নিজের ফোকাস ভাসিয়ে দিতে নারাজ তামিম। তাঁর ঘনিষ্ঠ সূত্রের মতে, ‘এত বছর খেলার পর নিজেকে নতুন করে প্রমাণের কোনো কারণ খুঁজে পায় না তামিম। ক্যারিয়ারের শেষটায় ক্রিকেট উপভোগ করতে চায়। উপভোগ্য ক্রিকেট খেলতে চায়। ’ তামিমের উপভোগ্য ক্রিকেটে টি-টোয়েন্টি ইন্টারন্যাশনাল আর নেই। আবার ঘটা করে এই ফরম্যাট থেকে অবসর ঘোষণার ইচ্ছাও আর নেই। যেমনটা ওয়ানডে থেকে অবসর নেননি সফলতম ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি।



সাতদিনের সেরা